শিরোনাম

শীর্ষ সংবাদ

বাড়িওয়ালির স্বামীকে নিয়ে পালালেন ভাড়াটিয়া তরুণী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: গ্রাম  থেকে শহরে চাকরির পরীক্ষা দিতে এসেছিলেন এক তরুণী। এ সময় তার সঙ্গে আলাপ হয় এক নারী কনস্টেবলের। মেয়েটি নিজের গ্রামের জেনে তাকে বাড়িতে থাকতে দেন তিনি। চাকরি পাবার পর কনস্টেবলের স্বামীর সঙ্গেই পালিয়ে গেলেন সেই তরুণী।

ঘটনাটি ঘটে বিহারের পাটনা শহরে। ওই তরুণী বিহার পাবলিক সার্ভিস কমিশন পরীক্ষা দিয়ে শিক্ষিকার চাকরি পেয়েছেন। তার এই কীর্তির খবর প্রকাশ্যে আসতেই শোরগোল পড়ে গেছে। ইতোমধ্যে স্থানীয় থানায় এফআইআর দায়ের করেছেন বাড়িওয়ালি নারী।

জানা গেছে, পাটনার দারভাঙায় দুই বছরের মেয়ে এবং স্বামীকে নিয়ে সুখের সংসার ছিল বাড়িওয়ালির। কিছুদিন আগে উত্তরপ্রদেশে থেকে আসা একটি মেয়েকে বাড়ি ভাড়া দেন তিনি।

আরও পড়ুন:

তাদের বাড়িতে থেকেই চাকরি পান তরুণী। এরপর সব কিছু ঠিকঠাক চলছিল। তবে মাসখানেক পর আচমকাই গায়েব হয়ে যান তরুণী। একইদিন থেকে নিখোঁজ ছিলেন বাড়িওয়ালির স্বামীও। এ সময় দুজনের ফোনও বন্ধ ছিল।

বাড়িওয়ালির অভিযোগ, অনেক খুঁজেও স্বামী এবং তরুণীর সন্ধান পাননি। একপর্যায়ে স্বামীর সঙ্গে ফোনে কথা হয় তার। এ সময় তিনি স্ত্রীকে ডিভোর্সের কথা বলেন। এরপর আর বুঝতে বাকি থাকে না তার স্বামীই তরুণীকে নিয়ে পালিয়েছেন। এরপরই দুই বছরের শিশুকে নিয়ে পুলিশের দ্বারস্থ হন বাড়িওয়ালি।

google-news-channel-newsasia24

Follow

ময়মনসিংহে ট্রাকচাপায় মা ও মেয়ে নিহত

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি: ময়মনসিংহে ট্রাকচাপায় মা-মেয়েসহ তিনজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও দুজন।

আজ সোমবার (২২ জানুয়ারি) দুপুর ২টার দিকে ময়মনসিংহ-টাঙ্গাইল মহাসড়কের চেরুমণ্ডল এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

Mother-and-daughter-killed-by-truck-in-Mymensingh-newsasia24

নিহতরা হলেন উপজেলার বিনোদবাড়ি মানপুর গ্রামের নজরুল ইসলামের স্ত্রী হাসিনা খাতুন (৩৫) ও তার মেয়ে আদিবা (৩) এবং দাওগাঁও ইউনিয়নের চিকিৎসক মৃনাল চন্দ্র দাস (৪২)।

মুক্তাগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ফারুক আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মুক্তাগাছা ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার সুশান্ত কুমার দে জানান, ময়মনসিংহ-টাঙ্গাইল মহাসড়কের চেরুমণ্ডল এলাকায় একটি কালভার্ট তৈরির কাজ চলছে। যে কারণে রাস্তার একপাশ দিয়ে গাড়ি চলাচল করছিল।

আরও পড়ুন:

অটোরিকশাটি মুক্তাগাছার দিকে আসার জন্য কাজ চলা রাস্তার একপাশে ওঠার সময় টাঙ্গাইলগামী একটি ট্রাক চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই মা-মেয়েসহ তিনজনের মৃত্যু হয়। আহত হন আরও দুজন। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়। মরদেহ পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

ফারুক আহমেদ আরও বলেন, ট্রাকচালক পালিয়ে গেছেন। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

google-news-channel-newsasia24

Follow

দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণের উপায় খুঁজতে জরুরি সভায় বসেছেন মন্ত্রীরা

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: দ্রুত সময়ের মধ্যে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণের উপায় বের করতে এক জরুরি সভায় বসেছেন সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীরা।

আজ রবিবার (২১ জানুয়ারি) অর্থ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বিকেল ৫টা ১৫ মিনিটের দিকে আন্তঃমন্ত্রণালয়ের এ জরুরি সভা শুরু হয়।

এ সভায় সভাপতিত্ব করছেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। সভায় আরও উপস্থিত রয়েছেন, খাদ্যমন্ত্রী, কৃষিমন্ত্রী, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী, বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী , বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর, এনবিআর চেয়ারম্যানসহ রাষ্ট্রের উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তারা।

এ সভায় দেশের খোলা বাজারের নিত্যপণ্যের সরবরাহ বাড়ানোর কৌশল নির্ধারণ, মজুতদার ও সিন্ডিকেটের কারসাজি রোধ এবং প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণের উপায় বের করা হবে। রমজানের আগে আমদানি সহজ করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হতে পারে।

আরও পড়ুন:

ঘোষিত মুদ্রানীতি ও রাজস্ব নীতির মধ্যে সমন্বয় ঘটিয়ে সভায় মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের উপায় নির্ধারণ করা হবে। একইসঙ্গে চাল, আটা, তেল, চিনি, আলু, পেঁয়াজ, গরুর মাংস, ডিম ও পোলট্রি পণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণ করার উদ্যোগ নেওয়া হবে।

google-news-channel-newsasia24

Follow

রাজশাহীতে স্কুলছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহীর বাঘায় দশম শ্রেণির ছাত্রী মিথিলা খাতুনের (১৬) ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

গতকাল শনিবার(২০ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ১১টার দিকে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। মিথিলা উপজেলার দক্ষিণ মিলিক বাঘা শাহপাড়া গ্রামের মেহেদী হাসানের মেয়ে।

বাঘা থানার ওসি আমিনুল ইসলাম বলেন, মিথিলা রাজশাহী মিলেনিয়াম স্কুলে দশম শ্রেণিতে লেখাপড়া করত। শুক্রবার বাড়িতে আসে মিথিলা। তার মা থাকেন দুবাইয়ে। বাবা অন্যত্রে বিয়ে করে ঢাকায় থাকেন। খালার কাছে থাকত মিথিলা।

শনিবার রাতের খাবার খাওয়ার জন্য তাকে ডাকা হয়। তার কোনো সাড়া না পেয়ে ডাকতে গিয়ে দেখেন ঘরের দরজা বন্ধ। বিষয়টি নিয়ে খালার সন্দেহ হয়। একপর্যায়ে পাশের বাড়ির লোকজনকে বিষয়টি অবগত করা হলে ঘরের দরজা ভেঙে দেখেন ওড়না প্যাঁচিয়ে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে আছে। পরে ৯৯৯ নম্বরে ফোন দিলে ঘটনাস্থল থেকে রাতে লাশ উদ্ধার করা হয়।

আরও পড়ুন:

আজ রবিবার সকালে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ পাঠানো হয়েছে। তবে কী কারণে আত্মহত্যা করেছে, এর সঠিক কারণ জানা যায়নি। এ বিষয়ে একটি ইউডি মামলা করা হয়েছে।

google-news-channel-newsasia24

Follow

ফেসবুকে সুন্দরীর ফাঁদে সর্বস্বান্ত যুবক

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী কাজী জাহিদের সঙ্গে ফেসবুকে বন্ধুত্ব হয় সুন্দরী এক নেপালি তরুণীর। ওই তরুণীর সঙ্গে মেসেঞ্জারে নিয়মিত চ্যাট করেন জাহিদ। সম্পর্ক আরও গভীর হলে একে অপরের ব্যক্তিগত ছবি শেয়ার করেন। ভিডিও কলে তারা খোলামেলা কথা বলেন।

জাহিদের অজান্তেই নেপালি ওই সুন্দরী তরুণী কৌশলে স্ক্রিন রেকর্ডিংয়ের মাধ্যমে সেই ভিডিও চ্যাট ধারণ করেন। ফেসবুকে বন্ধুত্বের দুই মাসের মাথায় একদিন নেপালি তরুণী জাহিদকে জানান তার বাবা অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি। লিভার ও কিডনি জটিলতা দেখা দিয়েছে। দ্রুতই অপারেশন করতে হবে, এজন্য অনেক টাকা প্রয়োজন।

জাহিদের কাছে তিনি দুই লাখ টাকা চান। জাহিদ এক লাখ টাকা দিলে তরুণী বলেন, এ টাকায় হবে না। জাহিদের কাছে ফের পাঁচ লাখ টাকা দাবি করেন। টাকা না দিলে পূর্বে ধারণকৃত ছবি ও ভিডিও জাহিদের ঘনিষ্ঠদের ফেসবুক মেসেঞ্জারে পাঠাবে বলে হুমকি দেন। নিরুপায় হয়ে জাহিদ ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সাইবার ইউনিটে অভিযোগ করেন।

আরও পড়ুন>>পিরোজপুর স্কুলছাত্রীকে অপহরণের পর ধর্ষণ; পতিতালয়ে বিক্রির হুমকি

ডিবির তদন্ত কর্মকর্তা জানান, নেপালি তরুণীর মাধ্যমে প্রতারিত ভুক্তভোগী বিদেশে লোক পাঠানোর ব্যবসা করেন। তিনি ওই নেপালি তরুণীর সঙ্গে সম্পর্কের পর নিজের তথ্য দেন। ভুক্তভোগীর স্ত্রী ও বন্ধুদের ফেসবুকে যুক্ত করেন ওই তরুণী। এরপরই জিম্মি করে তাকে।

কাজী জাহিদের মতো সমাজের প্রতিষ্ঠিত ও ধনাঢ্য অনেক ব্যক্তি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে বন্ধুত্বের ফাঁদে পা দিয়ে অর্থকড়ি ও সম্মান খোয়াচ্ছেন। চক্রের সুন্দরী ও স্মার্ট মেয়েরা ফেসবুকে বন্ধুত্ব থেকে কায়দা করে গড়ে তোলে প্রেমের সম্পর্ক।

আরও পড়ুুুুন>>ফেসবুকে ও বিকাশে প্রতারনা; আটক ৩

নিজেদের মধ্যে খোলামেলা আলাপচারিতার ভিডিও রেকর্ড করেন চক্রের সদস্যরা। পরে জিম্মি করেন টার্গেট ব্যক্তিকে। মাসের পর মাস চলছে এ ধরনের প্রতারণা। চক্রটি দেশের বাইরে অবস্থান করে হুন্ডি ও ক্রিপ্টোকারেন্সির মাধ্যমে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, এ ধরনের ভুক্তভোগীর সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পেলেও আইনি সহায়তা নিচ্ছেন না। ভুক্তভোগীদের ৯০ ভাগই সামাজিক ও পারিবারিক মর্যাদাহানির ভয়ে নিয়মিত টাকা দিচ্ছেন চক্রটিকে। আর যারা অভিযোগ করছেন, তাদের একটি বড় অংশ মামলা করতে রাজি হয় না।

আরও পড়ুন>>মোটরসাইকেল চুরি ঠেকানোর উপায় বললেন ‘চোরদের গুরু’

অপরাধ বিশ্লেষকরা বলছেন, তথ্যপ্রযুক্তির ব্যাপক প্রসারের ফলে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ প্রতিনিয়ত সাইবার জগতে প্রবেশ করছেন। তাদের মধ্যে কিশোর-কিশোরী ও বয়োবৃদ্ধরাও আছেন। কিন্তু সাইবার সিকিউরিটি অ্যাওয়ারনেস বিষয়ে তাদের অধিকাংশের কোনো জ্ঞান নেই। এ কারণেই এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হচ্ছে।

google-news-channel-newsasia24

Follow

ঘুমন্ত স্ত্রীর প্রাণ নিল স্বামী

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামে স্বামীর কুড়ালের আঘাতে ঘুমন্ত স্ত্রী নিহত হয়েছে। নিহতের নাম লতা রাণী শীল (৫০)। ঘাতক স্বামী সত্য চন্দ্র শীল (৬০) ঘটনার পর থেকেই পলাতক।

আজ রবিবার (২১ জানুয়ারি) ভোর ৪টার দিকে নাগেশ্বরী পৌরসভার হেলিপোর্ট, কবিরের ভিটা গ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে ।

পুলিশ জানায়, পারিবারিক কলহের জেরে স্বামী স্ত্রীর মাঝে ঝগড়া চলছিলো। ভোরে স্বামী সত্য চন্দ্র শীল তার ঘুমন্ত স্ত্রী লতা রাণী শীলকে কুড়াল দিয়ে ঘাড়ে আঘাত করলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। নিহত লতা রাণী শীলের পিতার বাড়ি চিলমারী উপজেলার রাণীগঞ্জ ইউনিয়নের মহাদেব পাট এলাকার শীলপাড়ী গ্রামে।

আরও পড়ুন:

নাগেশ্বরী থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রূপ কুমার সরকার জানান, মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য কুড়িগ্রামে পাঠানো হচ্ছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে।

google-news-channel-newsasia24

Follow

নতুন শিক্ষাক্রমে ৬৫ বছরের প্রথা ভেঙে নতুন নিয়ম

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: ১৯৫৯ সালে নবম শ্রেণি থেকে বিভাগ বিভাজন চালু হয়েছিল। সে হিসাবে ৬৫ বছর এ নিয়মে চলেছে শিক্ষা পদ্ধতি। স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পর দফায় দফায় শিক্ষাক্রম পরিবর্তন হলেও এ প্রথা কখনো ভাঙা হয়নি।

অবশেষে এলো পরিবর্তন। দীর্ঘ ৬৫ বছর পর চলতি শিক্ষাবর্ষে নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের সবাই পড়ছে একই বিষয়। নতুন শিক্ষাক্রম অনুযায়ী চালু হয়েছে এ প্রক্রিয়া। যেখানে নেই বিজ্ঞান, মানবিক ও বাণিজ্য শাখার বিভাজন। সবার বই এক, ক্লাসরুম এক, মূল্যায়ন পদ্ধতিও এক।

65-years-tradition-is-broke-with-new-rules-in-the-new-education-system-newsasia24

তবে বেশিরভাগ অভিভাবক বিষয়টি ভালোভাবে নিচ্ছেন না। তারা বিভাগ বিভাজনের পক্ষে মত দিয়েছেন। আবার কেউ কেউ একমুখী এ পদ্ধতিকে ভালো বলছেন। এমন মিশ্র প্রতিক্রিয়ার মধ্যেও প্রায় সব অভিভাবকের প্রশ্ন, নতুন শিক্ষাক্রমে বিভাগ বিভাজন কখন থেকে এবং কীভাবে?

আরও পড়ুন>>তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রির নিচে নামলেই বন্ধ হবে প্রাথমিক বিদ্যালয়

অভিভাবকদের এমন প্রশ্নের স্পষ্ট উত্তর নেই জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) কাছেও। এনসিটিবি কর্মকর্তারা বলেন, নতুন জাতীয় শিক্ষাক্রমের রূপরেখায় বিষয়টির ধারণা থাকলেও তা চূড়ান্ত নয়।

চলতি বছর যেহেতু একাদশ-দ্বাদশে নতুন শিক্ষাক্রম চালু হচ্ছে না, তাই এ নিয়ে তোড়জোড়ও করছেন না তারা। এ বিষয়ে অনুসন্ধান ও যাচাই প্রক্রিয়ায় ‘ধীরে চলা’র নীতি নিয়েছে এনসিটিবি।

২০২৩ সালে প্রথম, ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণিতে নতুন শিক্ষাক্রম চালু হয়। চলতি বছর আরও চার শ্রেণিতে নতুন শিক্ষাক্রমে পড়ানো হচ্ছে। সেগুলো হলো- দ্বিতীয়, তৃতীয়, অষ্টম ও নবম।

আরও পড়ুন>> মাধ্যমিক স্কুলে শিক্ষার্থী বাছাই ডিজিটাল লটারি আজ

আগামী বছর অর্থাৎ, ২০২৫ সালে চতুর্থ, পঞ্চম ও দশম শ্রেণিতে নতুন শিক্ষাক্রম চালুর মাধ্যমে মাধ্যমিক পর্যন্ত স্তরে সব শ্রেণিতেই তা চালু হবে। ২০২৬ সালে একাদশ ও ২০২৭ সালে দ্বাদশ শ্রেণিতে চালু হবে নতুন শিক্ষাক্রম।

নবম শ্রেণিতে এ বছর নতুন শিক্ষাক্রম চালু হওয়ায় বিভাগ বিভাজন প্রথা বিলুপ্ত হয়ে গেছে। এটিই এ বছরে শিক্ষায় বড় পরিবর্তন। নতুন নিয়মে দশম শ্রেণি পর্যন্ত সব শিক্ষার্থীকে ১০টি অভিন্ন বিষয় পড়তে হবে।

আরও পড়ুন>>এইচএসসির ফল প্রকাশ; পাসের হার কমেছে ৭ দশমিক ৩১ শতাংশ

নতুন শিক্ষাক্রমে শুধু দশম শ্রেণির পাঠ্যবই থেকে এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র তৈরি করা হবে। আগে এটি নবম-দশম শ্রেণি মিলিয়ে করা হতো। ২০২৬ সালে নতুন শিক্ষাক্রমে শুধু দশম শ্রেণির বই পড়ে শিক্ষার্থীরা এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেবে।

google-news-channel-newsasia24

Follow

যে কারনে সারা বাংলাদেশে লোডশেডিং

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: সারা বাংলাদেশে বিদু্ৎ সরবারহে বিঘ্ন ঘটছে। এলএনজি সরবরাহে বিঘ্ন ঘটায় এ বিপত্তি। কক্সবাজারের মহেশখালীতে অবস্থিত এলএনজি টার্মিনালের কারিগরি ত্রুটি ধরা পড়েছে। ফলে গ্যাসভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদনে ব্যাঘাত ঘটছে। বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে এর ফলে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে লোডশেডিং হতে পারে।

আজ শনিবার (২০ জানুয়ারি) বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, মহেশখালীস্থ LNG FSRU এর কারিগরি ত্রুটির কারণে এলএনজি সরবরাহে বিঘ্ন ঘটছে।

আরও পড়ুন:

এর ফলে বর্তমানে গ্যাস ভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদন কিছুটা কম হচ্ছে। বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে অতি দ্রুত সমাধানে কাজ করছে মন্ত্রণালয়। এই পরিস্থিতিতে দেশের কিছু কিছু এলাকাতে খুবই স্বল্প সময়ের জন্য বিদ্যুৎ বিভ্রাট হতে পারে।

বিবৃতিতে সাময়িক এই অসুবিধার জন্য গ্রাহকদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করা হয়েছে

google-news-channel-newsasia24

ফলো করুন

শীতে আগুন পোহাতে গিয়ে পুড়ল ৫০ হাজার টাকা

গাজীপুর প্রতিনিধি: গাজীপুরের শ্রীপুরে তীব্র শীতে আগুন পোহাতে গিয়ে ৫০ হাজার টাকা অসর্তকায় আগুনয়ে পুড়ে গেছে। গতকাল বুধবার (১৮ জানুয়ারি) রাতে পৌরশহরের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের লোহাগাছ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

ক্ষতিগ্রস্ত ওই ব্যক্তির নাম জুয়েল রানা। তিনি লোহাগাছ গ্রামের সিরাজ উদ্দীনের ছেলে। তিনি শ্রীপুর বাজারে কাঁচামালের দোকানদারি করেন। এতেই তার সংসার চলে। মূলধন হারিয়ে তিনি দিশেহারা।

50,000-rupees-were-burnt-in-the-fire-in-winter-newsaia24

ক্ষতিগ্রস্ত জুয়েল রানা জানান, বুধবার রাতে দোকানে বেচাকেনা শেষ করে টাকা নিয়ে বাসায় ফিরেন তিনি। বলেন, আমি ওই দিন জ্বরে আক্রান্ত ছিলাম। বাড়িতে ঢুকেতেই মা আমাকে আগুনের পাশে দাঁড়াতে বলেন। মা রান্না শেষে খুড়ির চুলায় আগুন পোহাচ্ছিলেন। পরে আমিও সেখানে দাঁড়াই।

বেশ কিছুক্ষণ পর আগুন পোহানো শেষে ঘেরে ঢুকে দেখি আমার লুঙ্গিতে মোড়ানো টাকার বাণ্ডিল নাই। পরে দ্রুত দৌড়ে বাইরে এসে দেখি চলার আগুনের কাছে টাকা পড়ে আছে। এ সময় দ্রুত টাকাগুলো তুলে নেই। তবে এর মধ্যে বেশ কিছু টাকা পুড়ে ব্যবহার অযোগ্য হয়ে পড়েছে।

আরও পড়ুুুুন:

তিনি বলেন, এখানে ৬৫ হাজার টাকা ছিল। সেখান থেকে ৫১ হাজার টাকা পুড়ে নষ্ট হয়ে গেছে।

সোনালি ব্যাংক শ্রীপুর শাখার ব্যবস্থাপক রেজাউল করিম বলেন, ‘পুড়ে যাওয়া টাকা গুলো ব্যাংকে নিয়ে এসেছিল ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি। এ সব টাকা আমাদের এখানে রাখার নিয়ম নাই। তাই তাকে পুড়ে যাওয়া টাকাগুলো নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকে যোগাযোগ করার পরামর্শ দিয়েছি। ওখানে তিনি সহযোগিতা পেতে পারেন।’

google-news-channel-newsasia24

Follow

করোনার নতুন ধরন, টিকা নেওয়ার নির্দেশ

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) জানান, বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের ওমিক্রন ধরনের উপধরন জেএন.১ শনাক্ত হয়েছে। এখন পর্যন্ত পাঁচজনের নমুনা পরীক্ষায় জেএন.১ উপধরন শনাক্ত হয়েছে।

আইইডিসিআর-এর পরিচালক অধ্যাপক তাহমিনা শিরীন আজ(১৮ জানুয়ারি) বৃহস্পতিবার এ তথ্য জানান। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে আতঙ্ক ছড়ায় করোনা ভাইরাসের ওমিক্রন ধরনের উপধরন জেএন.১।

jn.1-virus-like-corona-newsasia24 2

ডা. তাহমিনা শিরীন জানিয়েছেন, ঢাকা ও ঢাকার বাইরের করোনা রোগীদের নমুনা পরীক্ষার পর এই উপধরন শনাক্ত হয়েছে। তবে তাদের মধ্যে কারও দেশের বাইরে থেকে আসার কোনো খবর নেই। তারা দেশেই ছিলেন।

ওমিক্রন ধরনের উপধরন জেএন.১ শনাক্ত প্রত্যেকেই ভালো আছেন। এ নিয়ে উদ্বেগের কিছুই নেই বলে জানিয়ছেন আইইডিসিআর-এর পরিচালক।

আরও পড়ুন:

এদিকে দেশে আবারও করোনার সংক্রমণ বাড়তে থাকায় দ্রুত টিকা দিতে নির্দেশনা দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

ডা. মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন বলেছেন, দেশব্যাপী করোনা সংক্রমণ বাড়ছে। এ জন্য ফাইজার কভিড-১৯ ভ্যাকসিন কার্যক্রমের প্রথম, দ্বিতীয় ও বুস্টার ডোজ (তৃতীয়, চতুর্থ ডোজ) বিতরণ এবং টিকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। শিগগিরই টিকাদান কার্যক্রম শুরু করতে হবে।

google-news-channel-newsasia24

Follow