শিরোনাম

শিরোনাম

রাজবাড়ী-২ আসনে গণসংযোগে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হক

রাজবাড়ী প্রতিনিধি : দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে গণসংযোগে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন রাজবাড়ী-২ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী ও কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নুরে আলম সিদ্দিকী হক।

বৃহস্পতিবার (২১ ডিসেম্বর) বিকেলে রাজবাড়ী জেলার কালুখালী ও বালিয়াকান্দি উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করেন তিনি।

Independent-candidate-Noore-Alam-Siddiqui-Haque-is-busy-with-public-relations-in-Rajbari-2-constituency-newsasia24 3

গণসংযোগকালে সাধারণ মানুষের কাছে ভোট প্রার্থণা ও দোয়া চান স্বতন্ত্র প্রার্থী ও কৃষকলীগ নেতা নুরে আলম সিদ্দিকী হক।

গণসংযোগকালে তিনি বলেন, গত ১৮ ডিসেম্বর থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে আমি নির্বাচনী প্রচারণায় নেমেছি। নামার পর থেকেই আল্লাহর রহমতে ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। আমি মনে প্রাণে বিশ্বাস করি বর্তমান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ইতিমধ্যেই ঘোষণা দিয়েছেন সাড়া দেশে একটি উৎসবমুখর গ্রহণযোগ্য নির্বাচন তিনি উপহার দিবেন।

Independent-candidate-Noore-Alam-Siddiqui-Haque-is-busy-with-public-relations-in-Rajbari-2-constituency-newsasia24 56

সেটা যদি সত্যিকার অর্থেই বাস্তবায়িত হয় তাহলে আমি মনে প্রাণে বিশ্বাস করি এই রাজবাড়ী-২ আসনে পাংশা, বালিয়াকান্দি ও কালুখালীর সর্বস্তরের মানুষজন ঈগল প্রতীকের দিকে চেয়ে আছে। কারণ, আপনারা জানেন পাংশা, বালিয়াকান্দি ও কালুখালীতে দীর্ঘদিন আওয়ামীলীগের সত্যিকারের নেতাকর্মীরা একটি দুর্বিষহ জীবনযাপন করছে।

আরও পড়ুন: 

আওয়ামীলীগের প্রকৃত নেতা কর্মীরা, ত্যাগী নেতাকর্মীরা এখন ভাল নেই। শুধু আওয়ামীলীগই নয়, অপরাপর অনেকেই আজকে তাদের জীবনমান অনেক ক্ষেত্রেই এখন হুমকির সম্মুখীন। এমন একজন ব্যক্তি এই আসনে আছেন তার কারণে রাজনীতি থেকে বিশেষ করে সিনিয়র নেতারা দূরে চলে গেছেন। রাজনীতিতে তারা আর ফিরতে চান না।

তিনি আরো বলেন, যদি সুষ্ঠু নির্বাচন হয় তাহলে মানুষ ঈগল প্রতীক মার্কায় উৎসাহ নিয়ে, আনন্দ নিয়ে মিছিল সহকারে এই ঈগল প্রতীকে ভোট দিয়ে আগামী ৭ই জানুয়ারী ঈগল প্রতীকের বিজয় উৎসব করবে। কারণ ঈগল প্রতীক হলো পাংশা, কালুখালী ও বালিয়াকান্দি উপজেলার নির্যাতিত-নিপীড়িত মানুষের মুক্তির প্রতীক।

এ সময় অন্যান্য নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

google-news-channel-newsasia24

ফলো করুন

জুমআর দিনের ফজিলতপূর্ণ ও গুরুত্বপূর্ণ আমলগুলো জেনে নিন

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: জুমআর দিন মুসলিমদের জন্য রয়েছে অনেক ফজিলতপূর্ণ আমল।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, যে ব্যাক্তির জুমআ মধ্যবর্তী সময়ে গোনাহ হয়ে থাকে তা পরবর্তী জুমআ (পালনে) সে সব মধ্যবর্তী গোনাহসমূহের কাফফারা হয়ে থাকে। যদি কবিরা গোনাহ থেকে বেঁচে থাকে।’ (মুসলিম, তিরিমজি)

dorude-ibrahim-newsasia24উল্লেখিত হাদিসেরর আলোকে বুঝা যায় যে, কোনো ব্যক্তি যদি এক জুমআ থেকে অপর জুমআ আদায় করে তবে ওই ব্যক্তির দ্বারা সংঘটিত ৭ দিনের সব গোনাহ মাফ করে দেয়া হবে।

জুমআর দিনের আমলগুলো নিম্নে দেওয়া হল:

১. জুমআর দিনে ‘সুরা কাহফ’ তেলাওয়াত করা। পবিত্র কুরআনুল কারিমের ১৫তম পারার ১৮নং সুরা এটি। যদি কেউ সম্পূর্ণ সুরাটি তেলাওয়াত করতে না পারে তবে সে যেন অবশ্যই এ সুরার প্রথম এবং শেষ ১০ আয়াত তেলাওয়াত করে।

আরও পড়ুন>>ইসলামের কিছু প্রশ্ন ও উত্তর… ( পর্ব-৪ )

২. জুমআর দিনে বেশি বেশি দরূদ পাঠ করা উত্তম ও ফজিলতপূর্ণ। যদি কোনো ব্যক্তি একবার দরূদ পড়ে তবে তার প্রতি ১০টি রহমত নাজিল হয়। বেশি বেশি করে দরুদে ইব্রাহিম পড়তে হবে।

৩.জুমআর দিন দোয়া কবুলের কিছু সময় বা মুহূর্ত রয়েছে; সে সময়গুলোতে বেশি বেশি দোয়া ও ইসতেগফার করা। জুম্মার দিন বেশি বেশি করে ইস্তেগফার পড়লে আল্লাহর রহমত হবে আপনার পরিবারের উপর।

আরও পড়ুন>>মসজিদের ইমাম-খতিবদের সম্মানী তিনগুন বাড়ানোর আশ্বাস

বিশেষ করে, জুমআর দিন ও জুমআর নামাজ আদায় মুসলিম উম্মাহর জন্য অনেক গুরুত্ব ও ফজিলতপূর্ণ দিন। এ দিনের প্রতিটি আমলই গুরুত্বপূর্ণ। এ কারণেই প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম জুমআর নামাজ পরিত্যাগ করার ব্যাপারে সতর্কতা জারি করেছেন।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি (ইচ্ছা করে) অলসতাবশত তিনটি জুমআ ছেড়ে দেবে, আল্লাহ তাআলা তার হৃদয়ে মোহর মেরে দেন।’ (মুসলিম, তিরমিজি, নাসাঈ, আবু দাউদ, ইবনে মাজাহ, মুয়াত্তা মালেক)

আরও পড়ুন>>ইসলামের কিছু প্রশ্ন ও উত্তর… ( পর্ব-৩ )

পরিশেষে… আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে জুমআর নামাজ আদায় করার তাওফিক দান করুন। জুমআর দিনের আমল ও করণীয়গুলো যথাযথ আদায় করার তাওফিক দান করুন। জুমআর দিনে মর্যাদা ও ইবাদত-বন্দেগির মাধ্যমে সবাইতে মাফ করে দিন। আমিন।

google news newsasia24

Follow

কোকেন ব্যবহারে বৈধতা দিচ্ছে সুইজারল্যান্ড

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভয়ঙ্কর মাদক কোকেন কেনাবেচা ও ব্যবহারে বৈধতা দিচ্ছে সুইজারল্যান্ডের রাজধানী বার্ন। বিনোদনমূলক ব্যবহারের জন্য সীমিত মাত্রায় কোকেন অনুমোদনের পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।

দেশটিতে ব্যাপক হারে মাদকের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ ও সীমিত করতে নিরাপদ বিকল্প হিসেবে নিয়ন্ত্রিতভাবে এমন উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। পরীক্ষামূলকভাবে একটি পাইলট প্রকল্পের আওতায় এটি বাস্তবায়ন করা হবে।

suizerland-koken-buy-newsasia24

এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, মাদক বৈধ করার প্রস্তাবটি ইতিমধ্যে বার্নের স্থানীয় পার্লামেন্ট থেকে সমর্থন পেয়েছে। তবে এটি বাস্তবায়নের জন্য জাতীয় আইনে পরিবর্তন আনতে হবে।

আরও পড়ুুুুুুুুুন>>কুয়েত আমির শেখ নাওয়াফের মৃত্যুতে বাংলাদেশে আজ রাষ্ট্রীয় শোক

এই উদ্যোগের পক্ষের লোকেরা যুক্তি দিচ্ছেন, দেশটির মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ব্যর্থ হয়েছে। এ অবস্থায় নিয়ন্ত্রিতভাবে বৈধকরণের মতো ব্যতিক্রমী উপায় মাদকের বিরুদ্ধে জয় নিশ্চিত করতে পারবে।

রাজধানী বার্নের কাউন্সিলে বাম দলের সদস্য ইভা চেন বলেন, ‘মাদকের বিরুদ্ধে চলমান যুদ্ধ ব্যর্থ হয়েছে। এখন আমাদের নতুন ও অভিনব উপায়ে এই সংকট মোকাবিলা করতে হবে। নিয়ন্ত্রিতভাবে অনুমোদন এবং আইনি পন্থা দমনের চেয়ে বেশি কার্যকর হতে পারে।’

আরও পড়ুন>>পানি খেয়েই জীবিত আছেন ৫০ বছর

এমন ব্যতিক্রমী পদক্ষেপটিকে মাদক নীতির বৈশ্বিক পরিবর্তনের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ হিসেবে ভাবা হচ্ছে। কারণ যুক্তরাষ্ট্রের অঙ্গরাজ্যগুলোসহ ক্রমবর্ধমান হারে অনেক দেশই গাঁজা বৈধ করার সিদ্ধান্ত নিচ্ছে।

এদিকে কোকেনকে বৈধতা দেওয়া উদ্যোগের সমালোচকেরা স্বাস্থ্য ঝুঁকির বিষয়গুলোকে সামনে আনছেন। তাদের মতে, বৈধতা মাদকের আসক্তি বাড়িয়ে দিতে পারে এবং এর ফলে হৃদ্‌রোগ, স্ট্রোক, বিষণ্নতা ও উদ্বেগসহ গুরুতর স্বাস্থ্য জটিলতা ব্যাপকহারে ছড়িয়ে পড়তে পারে।

google news newsasia24

Follow

রাজশাহীর গ্রীণ ডায়াগনস্টিক সেন্টারের পরিচালকের ৬ মাসের কারাদণ্ড

রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহীর তানোরে গ্রীণ ডায়াগনস্টিক সেন্টার এর পরিচালক রাব্বি ইসলাম কে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা ও ছয় মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

গত মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর) বিকেল ৫টায় উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবিদা সিফাত এ অভিযান পরিচালনা করেন। এ সময় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. দিপ সরকার উপস্থিত ছিলেন।

rajsahi-tanor-diagonoshtic-center-abida-shifat-newsasia24

গ্রীণ ডায়াগনস্টিক সেন্টারের পরিচালককে ২০১০ অনুযায়ী, ‘মেডিক্যাল প্র্যাকটিস এবং বেসরকারি ক্লিনিক ও ল্যাবরেটরি নিয়ন্ত্রণ অধ্যাদেশ, ১৯৮২’ লঙ্ঘন এবং বাংলাদেশ মেডিকেল ও ডেন্টাল কাউন্সিল আইন, এ দণ্ড দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন:

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) বিল্লাল হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, জনস্বার্থে এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

google news newsasia24

Follow

গানের আসরে চেয়ারে বসা নিয়ে সংঘর্ষ, নিহত ১

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: নেত্রকোনার মদনে গানের আসরে চেয়ারে বসা নিয়ে দ্বন্দ্বে দুই পক্ষের সংঘর্ষ হয়েছে। এতে জুয়েল মিয়া (৩৫) নামের এক কৃষক নিহত হয়েছেন।

আহত হয়েছেন উভয়পক্ষের অন্তত ৩০ জন। গুরুতর আহত ১০ জনকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

song-songhorsho-netrokona-newsasia24

আজ বৃহস্পতিবার (২১ ডিসেম্বর) দুপুরে উপজেলার কাইটাইল ইউনিয়নের বাঁশরী (বাফলা) গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। নিহত জুয়েল মিয়া ওই গ্রামের সুলতু মিয়ার ছেলে।

আরও পড়ুন>>কক্সবাজারের পেকুয়ায় পুড়ে ছাই ১৫ বসতঘর

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর) রাতে উপজেলার কাইটাইল ইউনিয়নের কাইটাইল গ্রামের নজরুল ইসলামের বাড়িতে ঝুমুর গানের আসর বসে।

আসরে চেয়ারে বসা নিয়ে বাঁশরী গ্রামের চন্দনের ছেলে মাহফুজের সঙ্গে একই গ্রামের নুরুল হকের ছেলে সাব্বিরের বাগবিতণ্ডা হয়। পরদিন সকালে মাহফুজ নিজ বাড়ির সামনে সাব্বিরকে পেয়ে মারধর করেন।

আরও পড়ুন>>হান্ড্রেড পার্সেন্ট নিশ্চিত নির্বাচন সুষ্ঠু হবে: মাহি

বিষয়টি মীমাংসার জন্য বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীসহ এলাকার গণ্যমান্য লোকজন কাইটাইল বাজারে সালিশি বৈঠকে বসেন। এসময় দুপক্ষের লোকজনের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হলে তারা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়ান।

সংঘর্ষে চন্দন মিয়া গ্রুপের জুয়েল মিয়া গুরুতর আহত হন। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান।

আরও পড়ুন>>রাজশাহীতে বিদ্যুতের খুঁটি পড়ে কিশোরের মৃত্যু

মদন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) উজ্জ্বল কান্তি সরকার জানান, ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে হাসপাতাল থেকে চারজনকে আটক করা হয়েছে। এলাকার পরিস্থিতি শান্ত রাখতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

google news newsasia24

Follow

ট্রেনে আগুন; দুর্বৃত্তদের সন্ধান মিলেছে, দ্রুতই গ্রেপ্তার: ডিবি প্রধান

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (ডিবি) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ জানিয়েছেন, রাজধানীর তেজগাঁওয়ে মোহনগঞ্জ এক্সপ্রেস ট্রেনে আগুনের ঘটনায় জড়িতদের সন্ধান পাওয়া গেছে।

আজ বৃহস্পতিবার (২১ ডিসেম্বর) রাজধানীর নিজ কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ এসব কথা জানান তিনি।

এ সময় হারুন অর রশীদ বলেন, ট্রেনে আগুন লাগানো এটা এক ধরনের দুর্বৃত্তায়ন। যারা আগুন লাগিয়েছে তারা ছাড় পাবে না। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ ডিবি পুলিশ কাজ করছে। অনেকের নাম পেয়েছি, আশা করছি তাদের দ্রুতই গ্রেপ্তার করা হবে।

তিনি আরও বলেন, যে কোনো ঘটনা ঘটার পর ডিবি সেটির ছায়া তদন্ত করে। রেলে নাশকতা ও দুর্বৃত্তায়নের কারণে শিশুসহ চারটি তাজা প্রাণ চলে যায়।

mohonganj-express-train-fire-quick-arrest-DB-harun-newsasia24 2

যারা এ কাজটি করেছে তারা ২৮ তারিখের পর থেকেই নির্বাচনকে ভণ্ডুল করার জন্য এবং সাধারণ মানুষকে আতঙ্কিত করার জন্য এমন কাজ করছে। বিচ্ছিন্ন কয়েকটি জায়গায় তারা বাসে আগুন লাগাচ্ছে। বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছি। নতুন করে তারা এখন ট্রেনে আগুন লাগানো শুরু করেছে।

সাধারণ মানুষের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে ডিবি প্রধান হারুন অর রশীদ বলেন, যারা নাশকতা করতে চায় তাদের নাম-নম্বর নিয়ে আমাদের জানাবেন, তাদের অবশ্যই আইনের আওতায় আনব।

আরও পড়ুন:

নির্বাচন নিয়ে হারুন বলেন, আমি মনে করি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে। সে লক্ষ্যে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কাজ করছে। কেউ যদি নাশকতা করে, দুর্বৃত্তায়ন করে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।

উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর) ভোরে রাজধানীর তেজগাঁও রেলস্টেশনের আগে চলন্ত ট্রেনে (মোহনগঞ্জ এক্সপ্রেস) আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা । এতে পুড়ে মারা যান নারী-শিশুসহ চারজন।

google-news-channel-newsasia24

দ্রুত গতিতে ছড়িয়ে পড়ছে ‘জেএন.১ ভাইরাস; স্বাস্থ্য সংস্থার উদ্বেগ

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: দ্রুত গতিতে ছড়িয়ে পড়ছে ‘জেএন.১ ভাইরাস। বিষেজ্ঞরা জানিয়েছেন, জেএন.১ করোনার একটি নতুন সাবভ্যারিয়েন্ট। এই বিষয়ে উদ্বেগ জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

ইতমধ্যে ভারত, চীন, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের বহু দেশে এই ভাইরাস টি ছড়িয়ে পড়ছে। তবে এতে করোনার মত ঝুঁকি নেই বলে জানান স্বাস্থ্য সংস্থা।

jn.1-virus-like-corona-newsasia24 2বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই সংক্রমণ রোধ কিছু পরামর্শ দিয়েছেন, কোভিড ও ফ্লু টীকা সম্পর্কে নিয়মিত আপডেট খবর রাখতে হবে, অসুস্থ হলে বাসায় থাকতে হবে এবং লক্ষণ দেখা দিলে পরীক্ষা করাতে হবে।

অন্যদিকে, জনবহুল এলাকাগুলোতে মাস্ক পরতে হবে, হাঁচি-কাশির সময় মুখ বন্ধ রাখতে হবে, যাতে সংক্রমণ ছড়িয়ে না পড়ে, নিয়মিত হাত পরিষ্কার করতে হবে।

আরও পড়ুন:

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলেছেন, নতুন শনাক্ত করা জেএন.১ হলো ওমিক্রনেরই সাব-ভ্যারিয়েন্ট। এতে ভারতে কোভিড ১৯-এর একটি ঝুঁকি সৃষ্টি হতে পারে।

২৪ ঘণ্টার মধ্যে ইনফ্লুয়েঞ্জার মতো অসুস্থতায় আক্রান্ত সব রোগীকে পরীক্ষা করে দেখা গেছে তার মধ্যে শতকরা ৩০ ভাগই কোভিড পজিটিভ। আশপাশের অনেকের দেহে কোভিড পজিটিভ পাওয়া যাচ্ছে।

google news newsasia24

Follow

অসহযোগ আন্দোলন: বিএনপির লিফলেট বিতরণ

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: অসহযোগ আন্দোলনের পক্ষে জনমত তৈরি করতে রাজধানীতে লিফলেট বিতরণ করেছে বিএনপি। একই সঙ্গে অসহযোগ আন্দোলন সফল করতে জনগণের প্রতি উদাত্ত আহ্বানও জানান তিনি।

আজ বৃহস্পতিবার (২১ ডিসেম্বর) সকালে রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোড ও বেইলি রোড এলাকায় লিফলেট বিতরণ করেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। এ সময় দলটির বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

bnp-liflet-bitorom-newsasia24

লিফলেট বিতরণকালে আসন্ন নির্বাচনকে ডামি নির্বাচন উল্লেখ করে ভোটবর্জনের আহ্বান জানান রুহুল কবির রিজভী।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে নিয়ে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা সিলেটে যে বক্তব্য দিয়েছেন, তার তীব্র সমালোচনা করে রিজভী বলেন, প্রধানমন্ত্রী যে ভাষায় কথা বলেছেন তা হলো সন্ত্রাসীদের ভাষা।

আরও পড়ুন>>শেখ হাসিনার নির্বাচনী সফর শুরু

আপনার এত সাহস থাকলে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দেন না কেন? কারণ জনগণ ভোট দেওয়ার সুযোগ পেলে আপনাদের প্রার্থীদের কেউ ভোট দিবে না।

তিনি বলেন, রাষ্ট্রশক্তিকে ব্যবহার করে ডামি নির্বাচন, নিজেরা নিজেরা নির্বাচন আয়োজন নিয়ে বাহাদুরি করার কিছু নেই। জনগণ এ ধরনের একতরফা নির্বাচনকে ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছে।

আরও পড়ুন>>যাই হোক নির্বাচনের শেষ পর্যন্ত থাকব: হিরো আলম

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, অবৈধ সরকার একটি একতরফা নির্বাচন করে ক্ষমতায় টিকে থাকার চেষ্টা করছে। কিন্তু এই নির্বাচন দেশে-বিদেশে কারও কাছে গ্রহণযোগ্য হবে না। এটা কোনো নির্বাচন নয়।

আরও পড়ুন>>জাতীয় পার্টি নির্বাচনে যাচ্ছে

তিনি আরও বলেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সরকার পতনের একদফা দাবিতে ভোটবর্জনের আহ্বানের পাশাপাশি অসহযোগ আন্দোলনের যে ডাক দিয়েছেন। দেশবাসীকে সব ধরনের ভ্যাট-ট্যাক্স, ইউটিলিটি বিল প্রদান স্থগিত ও মামলার হাজিরা না দিয়ে সরকারকে অসহযোগিতার যে আহ্বান জানিয়েছেন তা সফল করার জন্য দেশবাসীকে আহ্বান জানাচ্ছি।

google news newsasia24

Follow

নারীদের সুস্থ থাকার ১১টি কৌশল

লিমা পারভীন: যে সকল নারীরা কর্মজীবী,তাদের নিজের সঙ্গে নিজের পরিবার কেও সামলাতে হয়। এতো ব্যস্ততায় মাঝে নিজের দিকে তাকানোর সময় আসলে নারীরা খুব একটা পান না।

তবে নিজে শারীরিক ও মানসিকভাবে ফিট না থাকলে কোনো কাজই দীর্ঘদিন করা যায় না। আর নিজেকে ফিট রাখতে প্রয়োজন সচেতনতা। তাই পরিবারের সদস্যদের প্রতি যত্ন নেওয়ার পাশাপাশি নিজেরও যত্ন নিতে হবে।

healthy-women2-newsasia24

 

আসুন জেনে নেই নারীদের সুস্থ থাকার কৌশল,

১. ঘরে-বাইরে কর্মব্যস্ত জীবনের পরে শরীর ও মনের ওপরে যে চাপ পড়ে তা কাটানোর জন্য নিয়মিত ঘুম খুবই প্রয়োজন।

২. বেশিরভাগ সময়েই কর্মজীবী নারীরা সময়ের অভাবে নিজেদের খাদ্যাভ্যাস ও স্বাস্থ্যের দিকে নজর দিতে পারেন না যা তাদের স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ। অনিয়মিত খাওয়া-দাওয়ার কারণে অনেক নারীই হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েন।

আরও পড়ুুন>> সবজি দিয়ে ‘ভেজিটেবল প্যানকেক’ তৈরির রেসিপি

৩. সুস্থ জীবন-যাপনের জন্য প্রয়োজন সঠিক পুষ্টি উপাদান। নারীদের বিভিন্ন বয়সে পুষ্টি চাহিদা বিভিন্ন রকম হয়। তাই প্রতিটি কর্মজীবী নারীকে প্রয়োজনীয় চাহিদা অনুযায়ী খাবার গ্রহণ করতে হবে। সঠিক পুষ্টি উপাদান গুলো বিভিন্ন রোগকে দূরে ঠেলে দেয় তেমনি সুন্দর চুল, ত্বক ও স্বাস্থ্য উপহার দেয়।

৪. সারাদিন প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে । পানির মাধ্যমেই অক্সিজেন ও বিভিন্ন পুষ্টি উপাদান সম্পূর্ণ শরীরে ছড়িয়ে পড়ে এবং দূষিত বর্জ্য পদার্থ শরীর থেকে বের হয়ে যায়।

আরও পড়ুন>>জলপাইয়ের সুস্বাদু ঝুরি আচারের রেসিপি

৫. সারাদিনে অতিরিক্ত ক্যাফেইন যুক্ত খাবার যেমন চা, কফি, চকোলেট খাওয়া উচিত নয়।

৬. সকালের নাশতা কখনও বাদ দেওয়া যাবে না। সকালের নাশতা খুব বেশি ভারি হবে না, এতে হজমের জন্য শরীরে প্রচুর শক্তির অপচয় হয়। সকালের নাশতায় যেকোনো একটি ফল খাওয়া যেতে পারে। ফল হজমশক্তি বাড়িয়ে মস্তিষ্কে গ্লুকোজ সরবরাহ করে যা সারাদিন মানুষকে কর্মক্ষম রাখে।

৭. খাবারের তালিকায় শর্করা জাতীয় খাবার যেমন ভাত, রুটির পরিমাণ কম রেখে শাকসবজি ও সালাদের পরিমাণ বেশি রাখতে হবে।

আরও পড়ুন>>কম বয়সে পাকা চুল থেকে মুক্তির ১৫ টি ঘরোয়া টিপস

৮. প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় আমিষ জাতীয় খাবার থাকতে হবে। আমিষের সবচেয়ে ভালো উৎস হচ্ছে ডাল, ডিম, মাছ, মাংস ও বাদাম। যারা নিরামিষভোজী তারা আমিষের ঘাটতি পূরণের জন্য কয়েক প্রকারের ডাল একসঙ্গে মিশিয়ে রান্না করে খেতে পারেন।

৯. প্রতিদিন আঁশযুক্ত খাবার খেতে হবে। আঁশযুক্ত খাবার রক্তের চর্বি নিয়ন্ত্রণ করে, হৃদরোগ ও ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। আঁশযুক্ত খাবার হচ্ছে তাজা ফলমূল, শাকসবজি, লাল চাল ও লাল আটা।

আরও পড়ুন>>৮টি উপায়ে চিন্তা মুক্ত থাকুন

১০. ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে। ক্যালসিয়ামযুক্ত খাবারের খুব ভালো উৎস হলো দুধ, শাকসবজি ইত্যাদি।

১১. রাতের খাবার হবে খুব হালকা। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার কমপক্ষে দুই ঘণ্টা আগে রাতের খাবার শেষ করতে হবে। এর সঙ্গে সারাদিনে মাত্র ৩০ মিনিট যেকোনো হালকা ব্যায়াম বা হাঁটাচলা করার অভ্যাস করতে পারলেই নারী থাকবে ফিট আর সুস্থ।

google news newsasia24

Follow

কক্সবাজারের পেকুয়ায় পুড়ে ছাই ১৫ বসতঘর

কক্সবাজার প্রতিনিধি: কক্সবাজারের পেকুয়ায় আগুনে পুড়ে গেছে ১৫টি বসতঘর। এতে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে প্রায় ২৫ লাখ টাকার।

গতকাল মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর) দিনগত রাত ৩টার দিকে উপজেলার বারবাকিয়া ইউনিয়নের বুধামাঝিরঘোনা মুজিবকিল্লা এলাকায় এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

coxsbazar-fire-newsasia24

 

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা চাই থোয়াইহ্ণলা চৌধুরী, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান উম্মে কুলসুম মিনু এবং প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আবুতাহের।

আরও পড়ুন>>হান্ড্রেড পার্সেন্ট নিশ্চিত নির্বাচন সুষ্ঠু হবে: মাহি

স্থানীয় ইউপি মেম্বার জাহানারা বেগম বলেন, গভীর রাতে মুজিবকিল্লায় খোরশেদা বেগমের বসতবাড়ি থেকে আগুনের সূত্রপাত ঘটে বলে জেনেছি। এসময় আগুনের লেলিহান শিখা চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। এতে ১৫টি বাড়ি সম্পূর্ণ পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে ১৫ বস্তা চাল দিয়ে সহায়তা করা হয়েছে। সালাহ উদ্দিন নামের এক সৌদি প্রবাসী নগদ অর্থ দিয়ে সহায়তা করেছেন।

আরও পড়ুুুন>>রাজশাহীতে বিদ্যুতের খুঁটি পড়ে কিশোরের মৃত্যু

ক্ষতিগ্রস্ত ভাঙারি ব্যবসায়ী তৌহিদুল ইসলাম বলেন, ‘হঠাৎ ভোরের দিকে পাশের বাড়িতে আগুন লাগে। মুহূর্তের মধ্যে আগুন ছড়িয়ে পড়ে আমাদের শেষ করে দিয়েছে। ফায়ার সার্ভিসের লোকজন তাৎক্ষণিকভাবে না এলে অন্তত আরও ১৫টি বাড়ি আগুনের থাবা থেকে রক্ষা পেতো না। এখন আমরা খোলা আকাশের নিচে বাস করছি।’

ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের পেকুয়া স্টেশন ইনচার্জ শফিউল আলম বলেন, খবর পেয়ে দ্রুত আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। চুলার আগুন থেকে আগুনের সূত্রপাত ঘটে। এতে আনুমানিক ২৫ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন>>পলিথিনে মোড়ানো নবজাতক মেয়ে শিশুর লাশ উদ্ধার

পেকুয়া ইউএনও চাই থোয়াইহ্ণলা চৌধুরী বলেন, ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। উপজেলা প্রশাসন থেকে তাদের সার্বিক সহযোগিতা করা হবে।

google news newsasia24

Follow