Deprecated: Function Automattic\Jetpack\Assets::add_async_script is deprecated since version 2.1.0 with no alternative available. in /home/newsasia24/public_html/wp-includes/functions.php on line 6031
আইন-আদালত Archives - newsasia24.com
শিরোনাম

আইন-আদালত

অবৈধ কাজের দায়ে কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের প্রধান কম্পিউটার বিশেষজ্ঞ গ্রেপ্তার

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: বিপুল পরিমাণ জাল সনদ তৈরির অভিযোগে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের প্রধান কম্পিউটার বিশেষজ্ঞ শামসুজ্জামানকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

রবিবার রাজধানীর আগারগাঁও নিজ বাসা থেকে শামসুজ্জামানকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সোমবার (১ এপ্রিল) বেলা ১১টার দিকে ঢাকা মহানগর পুলিশের গণমাধ্যম বিভাগ থেকে পাঠানো খুদে বার্তায় এই তথ্য জানানো হয়।

আরও পড়ুন: 

বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি করার অনুমোদন দিল হাইকোর্ট

দক্ষিণ আফ্রিকায় খাদে পড়ে বাসে আগুন, নিহত ৪৫

কক্সবাজারে গৃহবধূকে গলা কেটে হত্যা

সূত্র জানায়, আজ সকালে রাজধানীর আগারগাঁও এবং পীরেরবাগে যৌথ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

ডিবি সূত্রে জানা গেছে, অভিযানে বিপুল পরিমাণ অবৈধ জাল সনদ, সনদ তৈরির সরঞ্জাম পাওয়া গেছে।

google-news-channel-newsasia24

বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি করার অনুমোদন দিল হাইকোর্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক: বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি করার অনুমোদন দিয়েছে হাইকোর্ট।

সোমবার (১ এপ্রিল) বিচারপতি মো. খসরুজ্জামান ও বিচারপতি কে এম জাহিদ সারওয়ার কাজলের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। একইসঙ্গে, বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ করে জারি করা প্রজ্ঞাপন কেন অবৈধ ও বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন আদালত।

আদালতে এদিন রিটের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী শাহ মঞ্জুরুল হক। তার সঙ্গে ছিলেন ব্যারিস্টার হারুনুর রশিদ।

এর আগে আজ সোমবার বুয়েট শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ নেতা ইমতিয়াজ রাব্বি ক্যাম্পাসে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করেন।

আরও পড়ুন:

হালাল উপার্জন করে জীবিকা নির্বাহ করা অসম্ভব হয়ে পড়েছে : নজরুল ইসলাম খান

মাতৃগর্ভে থাকা অবস্থায় শিশুর লিঙ্গ প্রকাশ করা যাবে না: হাইকোর্ট

শাশুড়ি-স্ত্রী হত্যার জন্য যুবকের মৃত্যুদণ্ড

বুয়েটে উপাচার্য সত্য প্রসাদ মজুমদার হাইকোর্টের এই নির্দেশনার পর সাংবাদিকদের বলেন, বুয়েটে ছাত্ররাজনীতির বিষয়ে হাইকোর্টের সিদ্ধান্ত মানতে হবে। আইনজীবীর সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

২০১৯ সালে তৎকালীন উপাচার্য (ভিসি) অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি বন্ধ ঘোষণা করেন। তখন তিনি জানান, নীতিমালা অনুযায়ী বুয়েটে শিক্ষক রাজনীতিরও সুযোগ নেই।

google-news-channel-newsasia24

মাতৃগর্ভে থাকা অবস্থায় শিশুর লিঙ্গ প্রকাশ করা যাবে না: হাইকোর্ট

নিজস্ব প্রতিনিধি: মাতৃগর্ভে থাকা শিশুর লিঙ্গ পরিচয় প্রকাশ করা যাবেনা বলে রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট। সেই সঙ্গে হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোকে কঠোরভাবে এ নির্দেশ মানার কথা বলা হয়েছে।

আজ রবিবার( ২৫ ফেব্রুয়ারি) বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি কাজী জিনাত হকের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় দেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী তীর্থ সলিল রায়। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত দাশগুপ্ত।

গত ২৯ জানুয়ারি মাতৃগর্ভে থাকা অবস্থায় শিশুর লিঙ্গ প্রকাশ করা যাবে না মর্মে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের গঠিত কমিটির প্রতিবেদন হাইকোর্টে দাখিল করা হয়।

এই নীতিমালা অনুযায়ী কোনো ব্যক্তি, হাসপাতাল, ডায়াগনস্টিক সেন্টার বা ল্যাবরেটরি কোনো লেখা বা চিহ্ন বা অন্য কোনো উপায়ে শিশুর লিঙ্গ প্রকাশ করতে পারবে না।

পরে ১৯ ফেব্রুয়ারি বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি কাজী জিনাত হকের হাইকোর্ট বেঞ্চে এ নীতিমালা দাখিল করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ বিষয়ে আজ রায় দেন হাইকোর্ট্।

আরও পড়ুন:

রুল জারির পর রিটকারী আইনজীবী ইশরাত হাসান বলেছিলেন, ভারতে আইন করে গর্ভজাত সন্তানের লিঙ্গ নির্ধারণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। গর্ভের শিশুর লিঙ্গ নির্ধারণ করা হলে প্রসূতি মায়ের মানসিক চাপ তৈরি হয়। অনেক ক্ষেত্রে পারিবারিক চাপে গর্ভপাত করার ঘটনাও ঘটে।

২০২০ সালের ২৬ জানুয়ারি গর্ভের শিশুদের লিঙ্গ পরিচয় জানার উদ্দেশে পরীক্ষা ও লিঙ্গ পরিচয় প্রকাশ বন্ধের নির্দেশনা চেয়ে জনস্বার্থে রিট করেন অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান।

google-news-channel-newsasia24

Follow

এমপিওভুক্ত ৫ লাখ শিক্ষক-কর্মচারীকে অবসর সুবিধা দেওয়ার নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিনিধি: এমপিওভুক্ত অবসরপ্রাপ্ত বেসরকারি ৫ লাখ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও কর্মচারীদের ছয় মাসের মধ্যে অবসর সুবিধা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

আজ বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) বিচারপতি নাইমা হায়দার এবং বিচারপতি কাজি জিনাত হকের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ৫ লাখ শিক্ষক ও কর্মচারীর বেতনের ১০ শতাংশ কাটার বিপরীতে নির্দিষ্ট সময়ে অবসর সুবিধা দিতে আদেশ দেন।

হাইকোর্ট বলেছেন, এটা চিরন্তন সত্য যে শিক্ষকদের রিটায়ারমেন্ট বেনিফিট পেতে বছরের পর বছর ঘুরতে হয়। এই হয়রানি থেকে তারা কোনোভাবেই পার পান না। একজন প্রাথমিকের শিক্ষক কত টাকা বেতন পান, সেটাও বিবেচনায় নিতে হবে।

এজন্য তাদের অবসর ভাতা ৬ মাসের মধ্যে দিতে হবে। এই অবসর ভাতা পাওয়ার জন্য শিক্ষকরা বছরের পর বছর দ্বারে দ্বারে ঘুরতে পারে না।

আইনজীবী মোহাম্মদ ছিদ্দিক উল্লাহ মিয়া আদালতে রিটকারী শিক্ষক ও কর্মচারীদের পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করবেন।

১৯ ফেব্রুয়ারি এ বিষয়ে রুলের শুনানি শেষ হয়। পরদিন রায়ের জন্য আজকের দিন ধার্য করা হয়।

শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতনের ৬ শতাংশের বীপরিতে ১০ শতাংশ কর্তনের বাড়তি আর্থিক সুবিধা দেওয়া হবে না কেন, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছিলেন হাইকোর্ট।

আরও পড়ুুন:

একই সঙ্গে, শিক্ষক ও কর্মচারীদের অবসরের আর্থিক সুযোগ-সুবিধা কেন এক বছর অথবা একটি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে দেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হবে না, রুলে তাও জানতে চাওয়া হয়।

হাইকোর্টের বিচারপতি জাফর আহমেদ ও বিচারপতি মো. আক্তারুজ্জামানের সমন্বয়ে রিটকারীদের সম্পূরক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এ রুল জারি করেন।

google-news-channel-newsasia24

Follow

কুষ্টিয়ায় স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামীর যাবজ্জীবন

শাহীন আলম লিটন, কুষ্টিয়া প্রতিনিধি: কুষ্টিয়ার মিরপুরের শাকদহ এলাকার আলামিন(৪২) নামে এক ব্যক্তিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। আলামিনের স্ত্রী শিউলী খাতুনকে (২৮) হত্যার দায়ে তার স্বামী আলামিনকে এ সাজা দেয়া হয়।

আজ সোমবার (১৫ জানুয়ারী) কুষ্টিয়ার বিশেষ জজ (জেলা ও দায়রা জজ) আদালতের বিচারক মো. আশরাফুল ইসলাম এ রায় ঘোষণা করেন।

যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি আলামিন কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার শাকদহচর গ্রামের আহাদ আলীর ছেলে।

রায় ঘোষণার সময় আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন। রায় ঘোষণার পর পরই দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদেরকে পুলিশ পাহারায় জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

এ মামলার অপর আসামি ও আলামিনের প্রথম স্ত্রী জানেরা খাতুনের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, প্রায় ১০ বছর পূর্বে শিউলি খাতুনকে বিয়ে করেন আসামি আলামিন। তাদের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর থেকে স্ত্রীকে নিয়ে মিরপুর উপজেলার হালসা গ্রামের হালসা ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনিস্টিক সেন্টারের (বর্তমান হালসা বাজার জয় চিকিৎসালয়) দ্বিতীয় তলায় বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করতেন।

পারিবারিক কলহের জেরে ২০২২ সালের ২৯ অক্টোবর রাতে স্ত্রী শিউলি খাতুনকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে আলামিন। পরে আশপাশের লোকজন টের পায়।

খোঁজ পেয়ে মিরপুর থানা পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়। নিহতের বাবা আসাদুল বাদী হয়ে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে মামলার তদন্ত শেষে আসামি আলামিনের বিরুদ্ধে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। এরপর আদালত এ মামলায় সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে রায় ঘোষণার দিন ধার্য করেন।

সাক্ষীদের সাক্ষ্য-প্রমাণ শেষে আদালত এ রায় দেন। আদালতের পিপি অনুপ কুমার নন্দী বলেন, স্ত্রীকে হত্যা মামলায় দোষী প্রমাণিত হওয়ায় স্বামী আলামিনকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে তাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ৬ মাসের সশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।

সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে নির্বাচন চেয়ে রিট খারিজ

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: সংসদ ভেঙে দিয়ে সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে পুনরায় তফসিল চেয়ে দায়ের করা রিট খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট।

আজ বুধবার (২০ ডিসেম্বর) বিচারপতি ইকবাল কবীর ও বিচারপতি বিশ্বজিত দেবনাথের হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট সাইদুর রহমান।

অপরদিকে, রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন। সঙ্গে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সাইফুল আলম, এম এম জি সারোয়ার পায়েল ও তাহমিনা পলি।

আরও পড়ুন:

আইনজীবীরা বলেন, নির্বাচন কমিশনকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হয়নি। সরাসরি রিট দায়ের করার জন্য হাইকোর্ট রিট আবেদনটি খারিজ করে দিয়েছেন।

উল্রেখ্য, ১০ ডিসেম্বর সংসদ ভেঙে দিয়ে এবং সেনাবাহিনীর প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে পুনরায় তফসিল চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করে ইনসানিয়াত বিপ্লব বাংলাদেশ নামে একটি রাজনৈতিক দল।

google-news-channel-newsasia24

শাশুড়ি-স্ত্রী হত্যার জন্য যুবকের মৃত্যুদণ্ড

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: শাশুড়ি ও স্ত্রী হত্যার জন্য মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

আদালত চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জের গৃদকালিন্দিয়া এলাকার স্ত্রী তানজিনা আক্তার রিতু (২০) ও শাশুড়ি পারভীন বেগমকে (৪৫) হত্যার দায়ে মো. আল মামুন মোহনকে (৩২) মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত এবং তাকে ১ লাখ টাকা জরিমানা এবং অনাদায়ে ৩ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়।

WIFE-MOTHER-IN-LAW-KILLED-DAGHTER-IN-LAW-NEWSASIA24

আজ রবিবার (২৬নভেম্বর) দুপুরে চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ (২) শাহেদুল করিম এ রায় দেন। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত মামুন লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর উপজেলার শায়েস্তানগর গ্রামের বাসিন্দা।

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার গৃদকালিন্দিয়া এলাকার প্রবাসী মো. সেলিম খানের মেয়ে ও স্ত্রী হত্যার শিকার ।মেয়ে তানজিনা আক্তার রিতু ও স্ত্রী পারভীন বেগম।

আরও পড়ুন:

২০২০ সালের ১৩ মে সন্ধ্যায় ফরিদগঞ্জ উপজেলার গৃদকালিন্দিয়ায় এলাকায় সেলিম খানের তিনতলা ভবনের নিচতলায় ইফতারের সময় স্ত্রী ও শাশুড়িকে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করেন মামুন। ঘটনার পর পালিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয় লোকজন তাকে ধরে পুলিশে সোপর্দ করেন।

ছুরিকাঘাত করার পর ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তারা মৃত্যু বরণ করেন।

google news newsasia24

প্রশান্ত কুমার হালদারে ২২ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: প্রশান্ত কুমার হালদারে বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের রায় ঘোষনা করা হয়েছে। আজ রোববার (৮ অক্টোবর) তাকে ২২ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। তিনি এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

অবৈধ সম্পদ অর্জন ও অর্থপাচারের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় তাকে এ শাস্তি দেয়া হয়।

২০০৪ এর ২৭(১) ধারায় ১০ বছর এবং অর্থপাচারের দায়ে মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন, অবৈধ সম্পদ অর্জনের দায়ে দুর্নীতি দমন কমিশন আইন এবং ২০১২এর ৪(২) ও ৪(৩) ধারায় ১২ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। তিন ধারার সাজা একটার পর একটা চলবে। ফলে পিকে হালদারকে ২২ বছর কারাভোগ করতে হবে।

এর আগে গত বুধবার (৪ অক্টোবর) একই আদালত উভয় পক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে রায়ের জন্য আজ দিন ধার্য করেন।

আরও পড়ুন:

শিশু ধর্ষণ ও হত্যা: দুজনের আমৃত্যু কারাদণ্ড

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: শিশু ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় দুজনকে আমৃত্যু কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। চট্টগ্রাম নগরের পাঁচলাইশ থানায় দায়ের হওয়া একটি শিশু ধর্ষণ মামলায় দুজনকে শাস্তি দেয়া হয়। একই সাথে দুজনকে ৩ লাখ করে অর্থদণ্ড দেওয়া হয়।

আজ বুধবার (৪ অক্টোবর) চট্টগ্রামের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭-এর বিচারক ফেরদৌস আরা এ রায় দেন।

দণ্ডিতরা হলেন মো. জীবন (২৫) ও ইমন হাসান (২৬)। এসময় দুজনেই আদালতে উপস্থিত ছিলেন। রায় ঘোষণা শেষে তাদেরকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, পাঁচলাইশ থানার বাদুরতলা শাহ আমানত হাউজিং সোসাইটির বাসিন্দা মো. সোলায়মানের মেয়ে সালমা আক্তার (৯) ।

সালমা ওই এলাকার একটি মাদ্রাসায় দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়াশোনা অধ্যয়নরত ছিল। ২০১৭ সালের ১৩ জুন ভুক্তভোগী শিশু সালমা নিখোঁজ হয়।

সালমা নিখোঁজ হলে তার বাবা পাঁচলাইশ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। কয়েকদিন পর ভুক্তভোগী শিশুর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

ওইসময় তার বাবা বাদী হয়ে পাঁচলাইশ থানায় একটি মামলা দায়ের করেছিলেন। পরে পুলিশের তদন্ত ও ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনে ওঠে আসে ভুক্তভোগী শিশুকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:

আলোচিত মামলাটির তদন্ত শেষে ২০১৮ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি পাঁচলাইশ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) পলাশ চন্দ্র ঘোষ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে।

মামলাটির বিচারিক পর্যায়ে রাষ্ট্রপক্ষে ১৫ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়।

এরপর যুক্তিতর্ক শেষে আজ (বুধবার) আমৃত্যু কারাদণ্ডের ঘোষণা করে আদালত।

হোটেল৭১ কে তিন লাখ টাকা জ‌রিমানা

মারুফ সরকার: হোটেল৭১ কে তিন লাখ টাকা জ‌রিমানা করা হয়েছে। বা‌সি ও পঁচা মাংস ফ্রিজে মজুতসহ মেয়াদ উত্তীর্ণ পণ্য বি‌ক্রি এবং বি‌ভিন্ন পণ‌্য প্রস্তু‌তের তা‌রিখ না থাকায় রাজধানীর বিজয়নগরে হোটেল ৭১কে তিন লাখ টাকা জ‌রিমানা করেছে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ। জরিমানা পরিশোধ না করলে এক মা‌সের কারাদণ্ডের আদেশ দেওয়া হয়েছে।

আজ বুধবার (৪ অক্টোবর) দুপু‌রে রাজধানীর উওরা এলাকায় বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের পরিচালিত মোবাইল কোর্টে এই জ‌রিমানা করা হয়।

বাংলা‌দেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো: আক্তারুজ্জামানের নেতৃ‌ত্বে অভিযান‌টি প‌রিচালনা করা হয়।

অভিযা‌নে রেস্টু‌রেন্ট‌টির রান্না ঘ‌রে অভিযান চা‌লি‌য়ে ফ্রিজে বাসি খাবার, পচা মাংস মজুত, লে‌বেলবিহীন খাদ‌্যদ্রব‌্য রাখা, মেয়াদ উত্তীর্ণ পণ‌্য রাখাসহ নানা অপরা‌ধে রেস্তোরাঁটির অস্বাস্থ‌্যকর সব খাবার জব্দ করা হয়।

পরবর্তিতে রেস্টু‌রেন্টের মা‌লিকের উপ‌স্থি‌তি‌তে নিরাপদ খাদ্য আইন, ২০১৩ অনুসারে তিন লাখ টাকা জ‌রিমানা ও অনাদা‌য়ে এক মা‌সের কারাদণ্ডের আ‌দেশ দেন নির্বাহী ম্যা‌জি‌স্ট্রেট আকতারুজ্জামান ।

আকতারুজ্জামান নিউজ এশিয়া২৪ কে ব‌লেন,” যে‌হেতু তা‌দের এখা‌নে অভিযান তাই এবার তাদের‌কে আমরা আইন অনুযা‌য়ী সর্বনিম্ন তিন লাখ টাকা জ‌রিমানা ক‌রে‌ছি এবং তা‌দের‌কে আমরা সময় দি‌য়ে‌ছি।

আরও পড়ুন:

বাংলাদেশে ৫.২ মাত্রার ভূমিকম্প

পলাতক আসামি রোকনুজ্জামান গ্রেপ্তার

আমিন কলোনিতে আগুন

পরবর্তী‌তে য‌দি তা‌দের এই সমস্ত অপরাধ পুনরায় ধরা পড়ে তাহ‌লে আমরা তা‌দের‌কে বড় ধর‌নের জরিমানার আওতায় আন‌বো। আর কোনো সু‌যোগ দেবো না।”

এছাড়াও জনস্বার্থে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।

সম্পত্তির লোভে বাবাকে খুন করলো পুত্রবধুসহ দুই ছেলে

গাজীপুর সিটি করপোরেশনের গাড়িতে অস্ত্র ও মাদক