শিরোনাম

সারাদেশ

ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অগ্নিকাণ্ড

ফরিদপুর প্রতিনিধি: ফরিদপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের দ্বিতীয় তলায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে।

আজ বৃহস্পতিবার (১৬ মে) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে হাসপাতালটির দ্বিতীয় তলার স্টোর রুমে এ আগুনের সূত্রপাত হয়। আগুনের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন ফরিদপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক দীপক কুমার।

হাসপাতালে আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার পাশাপাশি ধোঁয়ায় চারপাশে অন্ধকার হয়ে যায়। আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করেছে ফায়ার সার্ভিস।

আরও পড়ুন:

google-news-channel-newsasia24

‘কাচ্চি ভাই’ রেস্টুরেন্টের মালিক সোহেল সিরাজ গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিনিধি: ‘কাচ্চি ভাই’ রেস্টুরেন্টের মালিক সোহেল সিরাজকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। রাজধানীর বেইলি রোডে বহুতল ভবনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার (৭ মে) রাতে তিনি মালয়েশিয়া থেকে ঢাকায় আসেন । হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণের পরপরই ইমিগ্রেশন পুলিশ সোহেল সিরাজকে আটক করে মামলার তদন্ত সংস্থা পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) হাতে তুলে দেয়।

আরও পড়ুন:

বেইলি রোডে অগ্নিকাণ্ডের পর তিনি দেশ থেকে পালিয়ে গিয়েছিলেন। এ ঘটনায় সোহেল সিরাজসহ সাতজনকে গ্রেপ্তার করা হলো।

আজ বুধবার (৮ মে) বিকেলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিআইডির পুলিশ সুপার (মিডিয়া) আজাদ রহমান ।

google-news-channel-newsasia24

বিএসএফের গুলিতে ২ বাংলাদেশি নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক: ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে ২ বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। বুধবার (৮ মে) সকালে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ার খয়খাটপাড়া সীমান্তে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- উপজেলার মাগুরা গ্রামের জুনু মিয়ার ছেলে জলিল (২৪) ও ব্রমতোল গ্রামের কেতাব আলীর ছেলে ইয়াসিন আলী (২৩)।

আরও পড়ুন:

তেঁতুলিয়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সুজয় চন্দ্র রায় বলেন, অবৈধভাবে ভারতে গরু আনতে গিয়ে বিএসএফের গুলিতে ২ বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় পরবর্তী আইনি কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।

google-news-channel-newsasia24

আজ সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে ৮০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ের আভাস

আব্হাওয়া ডেস্ক: আজ দেশের তিনটি অঞ্চলের ওপর দিয়ে ঘণ্টায় ৬০ থেকে ৮০ কিলোমিটার বেগে বজ্রবৃষ্টিসহ ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। ফলে এসব এলাকার নৌবন্দরসমূহকে দুই নম্বর নৌ হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

আজ সোমবার (৬ মে ২০২৪ ) সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত দেশের নদীবন্দর সমূহের জন্য আব্হাওয়ার পূর্বাভাসে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, ময়মনসিংহ, কুমিল্লা এবং সিলেট অঞ্চলের ওপর দিয়ে পশ্চিম অথবা উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ৬০ থেকে ৮০ কিলোমিটার বেগে বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টিসহ অস্থায়ীভাবে ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এসব এলাকার নদীবন্দর সমূহকে দুই নম্বর নৌ হুঁশিয়ারি সংকেত (পুন.) দুই নম্বর নৌ হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

আবহাওয়া দপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, আজ সকাল ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় ময়মনসিংহে ৮৩ মিলিমিটার, নেত্রকোনায় ৬৭, কুমিল্লায় ৩১, নিকলিতে ২৯, সিলেটে ৩৪, শ্রীমঙ্গলে ১১, বগুড়ায় ১০, কক্সবাজারে ৮ মিলিমিটার ও ঢাকায় সামান্য বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।

আরও পড়ুুুুুুুুুুুুন:

google-news-channel-newsasia24

তীব্র তাপদাহে পথচারীদের মাঝে শরবত বিতরণ

শাহীন আলম লিটন: সারাদেশে চলছে তীব্র তাপদাহ, তেমনি বেড়েছে হিট স্ট্রোকের ঝুঁকি। এই তীব্র দাবদাহের মধ্যে রাজশাহীতে সাধারণ মানুষদের স্বস্তি দিতে পথচারীদের মাঝে ঠান্ডা শরবত বিতরণ করা হয়ছে।

আজ শনিবার (৪ মে ) দুপুরে হেলথ্ এইড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের উদ্যোগে এ কার্যক্রম পরিচালিত হয়। এ সময় শহরে চলাচলরত শতাধিক পথচারী ও শ্রমজীবী মানুষের মাঝে এই শরবত বিতরণ করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন হেলথ্ এইড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের চেয়ারম্যান শাহীন আলম লিটন, ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাকিবুল ইসলাম সুমন, উপদেষ্টা শামসুদ্দিন হায়দার রুবেল।

আরও পড়ুন:

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, হেলথ্ এইড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের পরিচালক, মামুন, শাওন, আনোয়ার হোসেন, নজরুল ইসলাম, রাশেদ, মিতা খাতুন, সাবিনাসহ প্রতিষ্ঠানের সকল সদস্যবৃন্দ।

google-news-channel-newsasia24

খোকসায় ভয়াবহ অগ্নিকান্ড, আগুনে পুড়লো ৭টি বাড়ি

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি:  কুষ্টিয়ার খোকসায় ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ৭টি বাড়ি পুড়ে গেছে। জানা গেছে, রান্নায় ব্যবহার করা লাকড়ি (খড়ি) থেকে জ্বলে ওঠা আগুনে বয়বৃদ্ধ হতদরিদ্র মুজাম আলীর দু’টি ঘরই পুড়ে যায়। তার বাড়ির আগুনে পাশে বসতকারী ৭ ভূমিহীন পরিবারের সব ভস্মে পরিণত হয়ে গেছে।

আজ বুধবার সকাল ১১টার দিকে কুষ্টিয়ার খোকসা পৌর এলাকার ২ নম্বর ওয়ার্ডের বাঁধপাড়ায় হালিমা মসজিদ সংলগ্ন পানি উন্নয়ন বোর্ডের জমিতে বসবাসকারী ভূমিহীনদের বসত বাড়িতে আগুন লাগে।

মুহুত্যের মধ্যে আগুন ছড়িয়ে পরে ভূমিহীন মিলন, রাসেল, আরিফ, আব্দুল হক, সিরাজল ইসলাম, আজব আলীর বাড়িতে। এসময় একাধিক বাড়ির রান্না ঘরে গ্যাস সিলেন্ডার বিস্ফোরিত হয়। তাপপ্রবাহ ও গ্যাসের কারণে আগুনের তেজস্বক্রীয়া বেড়ে যায়।

গড়াই নদী থেকে ১০০ মিটার দূরের এ ভূমিহীনদের বাড়িসহ আসে পাশে পানি না থাকায় স্থানীয় নারী পুরুষরা মাটি ও বালি দিয়ে আগুন নেভাতে চেষ্টা করে। তাদের সাথে যোগ দেয় খোকসা ও কুমারখালীর ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট।

khoksa fire 7 house newsasia24 2

প্রত্যক্ষদর্শী ও ভুক্ত ভোগীদের সূত্রে জানা যায়, ভূমিহীন হতদরিদ্র মুজাম আলীর রান্না ঘর থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। স্থানীয়রা আগুন নেভানোর চেষ্টা করে। ইতোমধ্যে খোকসা ফায়ার সাভির্সের একটি ইউনিটের কর্মীরা ঘটনা স্থলে পৌছে আগুন নেভানোর কাজ শুরু করে।

প্রায় আধাঘন্টা পর কুমারখালী ফায়ার ষ্টেশনের আর একটি ইউনিট আগুন নেভাতে যোগ দেয়। স্থানীয় জনতা ও ফায়র সার্ভিসের কর্র্মীরা প্রায় দেড় ঘন্টা চেষ্টা করে আগুন নিয়ন্ত্রণ আনে। ততক্ষনে ভুমিহীনদের প্রায় অর্ধকোটি টাকার ঘরবাড়ি, আসবারপত্র, টিভি ও ফ্রিজ ভস্ম হয়ে যায়।

অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থ মুজাম জানান, সকালে তার স্ত্রী একমুঠো ভত্তা ভাত রান্না করে রেখে অন্য বাড়িতে কাজে যায়। তিনি ঘুমিয়ে ছিলে। তার বাড়ির রান্নার লাকড়ি থেকে মিনমিন করে লাগা আগুনে তার সব পুড়ে গেছে। এখন মাথা গোজার জায়গাও রইল না। তিনি কোথায় রাত কাটাবেন এই নিয়ে তার চিন্তার অন্ত নাই।

আরও পড়ুন:

ঘটনা স্থলে দাঁড়িয়ে বিলাপ করছিল রাফিজা আক্তার। তার বাবা কাকা ও দাদার সব পুড়ে গেছে। কিছুই বাঁচাতে পারেনি। তার বাবা – কাকারা ঢাকায় কাজ করেন। সেখানেই পরিবার পরিজন নিয়ে বাস করেন। কিন্তু বাড়িতে সবই রেখে গিয়েছিল।

থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আননুর যায়েদ জানান, আগ্নিকান্ডের সূত্রপাত হওয়ার পরপর পুলিশ উপস্থিত হয়। ৭ পরিবারের সব পুড়ে গেছে। অল্পের জন্য আরো ৫টি বাড়ি রক্ষা পেয়েছে। ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নিরুপণের জন্য পুলিশের একটি কমিটি কাজ করছে।

খোকসা ফায়ার সাভির্সের স্টেশন অফিসার নজরুল ইসলাম জানান, অগ্নিকান্ডের সূত্রপাতের খবর পেয়ে তারা ঘটনা স্থলে পৌচ্ছায়। পরে কুমারখালী ফায়ার সাভিসের আরও একটি ইউনিটকে ডাকা হয়। দীর্ঘ সময় চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রনে আনা গেছে। অগ্নিকান্ডে ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নিরুপণ করা সম্ভব হয়নি।

google-news-channel-newsasia24

খোকসাতে সয়লাব মাদক ব্যবসা; পর্ব-১

ফাহিম শাওন:  কুষ্টিয়ার খোকসা ক্রমেই ছেয়ে যাচ্ছে মাদক ব্যবসায়। ব্যাঙের ছাতার মত গড়ে উঠেছে মাদক ব্যবসা। ভালো মানুষ সেজে লোক চক্ষুর আড়ালে চালিয়ে যাচ্ছে মাদকের রমরমা ব্যবসা। হাতের নাগালে সহজে মাদক পেয়ে এলাকায় দিনদিন মাদক সেবীদের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। অন্যদিকে, মাদক সেবীরা নেশার টাকা জোগাড় করতে নানা ধরনের অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে।

সূত্রে জানা গেছে, খোকসার বাসষ্ট্যান্ড এলাকা, বিলজানি, শোমসপুর, একতারপুরসহ আরও বেশ কয়েকটি স্পটে গড়ে উঠেছে মাদকের ব্যবসা। প্রশাসনের চোঁখ ফাকি দিয়ে দিদারসে চালিয়ে যাচ্ছেন মাদকের ব্যবসা।

গোপন সূত্রে জানা গেছে, মাদক ব্যবসায়ীরা উঠতি বয়সের ছেলেমেয়েদের টার্গেট করে কৌশলে চালাচ্ছেন মাদকের ব্যবসা। প্রথমাবস্থায়, এলাকার কয়েকজন যুবকদের কাছে বিনামূল্যে বা অল্পদামে বিক্রি করা হয় গাজা, ফেনসিডিল, ইয়াবাসহ দেশীবিদেশী মদ। একবার আসক্ত হয়ে গেলে তাদেরকে টাকার লোভ দেখিয়ে বিক্রি করিয়ে নেয়া হচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকার মাদক। পরবর্তীতে এই সমস্ত যুবকেরা ক্রমে মাদক ব্যবসার সাথে জড়িয়ে পড়ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক মাদক ব্যবসায়ী বলেন, আমি এক সময় গাজা বিক্রি করতাম। এখন বয়স হয়ে গেছে এবং মান সম্মানের ভয়ে এই অবৈধ ব্যবসা ছেড়ে দিয়েছি। কিন্তু এলাকার নতুন করে অনেকেই এই ব্যবসার সাথে জড়িয়ে পড়ছে। তাদের বেশিরভার বয়স ২০ বছর থেকে ২৫ বছরের মধ্যে। অল্প সময়ে প্রচুর টাকা ইনকামের লোভে জড়িয়ে পড়ছে মাদক ব্যবসায়।

আরও পড়ুন: 

খোকসাতে গোপন অভিযান চালিয়ে বেশ কয়েকটি মাদক ব্যবসায়ীদের নাম পাওয়া গেছে। যারা প্রশাসনের চোঁখকে ফাকি দিয়ে চালিয়ে যাচ্ছে মাদক ব্যবসা। গড়ে তুলেছেন মাদকের সম্রাজ্য। ……চলবে…..

google-news-channel-newsasia24

খোকসায় ভাগ্নের ইটের আঘাতে নিহত মামা

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি: ভাগের পুকুরের মাছের টাকা চাওয়া কেন্দ্র করে ভাগ্নের ইটের আঘাতে আহত মামা জহুরুল হক ডাবলু (৬০) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে। এ ঘটনায় অপর আহত ভাগ্নে পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। নিহতের ভাই ভাবিসহ ৩ জনকে পুলিশ হেফাজতে নিয়েছে।

খোকসা উপজেলার বেতবাড়িয়া ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের ওপার বেতবাড়িয়া গ্রামে শুক্রবার রাতে হামলার ঘটনা ঘটে। শনিবার বিকাল ৫টার পর আহত জহুরুল হক ডাবলু চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। নিহত ডাবলু এ গ্রামের পচু বিশ্বাসের ছেলে। এক পুত্র সন্তানের পিতা। এ ঘটনায় শনিবার রাতে থানা পুলিশ নিহতের বড় ভাই ফজলুল হক টুকু, ভাবি রুকসানা ও অপর এক নারীকে হেফাজতে নিয়েছে।

শনিবার রাতে পুত্রবধূ মিতা হক তার শ্বশুর জহুরুল হকের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, আগের দিন শুক্রবার সন্ধ্যার পর তার শ্বশুরের সাথে চাচা শ্বশুর ফজলুল হক টুকুর বিরোধ হয়। দুই পক্ষের হামলায় তার শ্বশুর জহুরুল হক ডাবলু ও লিংকন নামে তার এক ফুপু শ্বাশুরীর ছেলে আহত হয়। ইটের আঘাতে আহত জহুরুলকে রাতেই ঢাকায় মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। শনিবার সকাল ১০টার তার মাথায় অপারেশন করা হয়। বিকাল ৫টার দিকে সেখানেই তার মৃত্যু হয়। তার স্বামী নিহতের ছেলে সোহেল হক শ্বশুরের লাশের পাশেই রয়েছে।

নিহতের নিকট বড় ভাই তোফাজ্জেল হক জানান, সবার বড় ভাই ফজলুল হক কুটুর কাছে পুকুরের মাছ বিক্রি টাকা দাবি করে জহুরুল হক ডাবলু। টাকা না পেয়ে বড় ভাইয়ের উপর দুই দফা হামলা করে। সন্ধার পর দ্বিতীয় দফা হামলার সময় ভাগিনা লিংকন পিতা মুরাদ বিশ্বাস আহত হয়। এ সময় ইটের গাদার উপর পরে জহুরুল আহত হয়। রাতেই আহত জহুরুল ও ভাগ্নে লিংকনকে ঢাকায় নেওয়া হয়।

তিনি আরও দাবি করেন, নিহত ছোটভাই জহুরুলের কাছে পরিবারের সবাই প্রতিনিয়ত নিগৃহীত হয়ে আসছে। এ দিনও সেই বড় ভাইয়ের উপর দুই দফা হামলা করে। ঠেকাতে গিয়ে ভাগ্নে হামলার শিকার হয়। এক পর্যায়ে জহুরুলও আহত হয়। এ মৃত্যু নিছক দুর্ঘটনা। নিহত লাশ নিয়ে ছেলে ফেরার পর মামলার বিষয়ে ভাবা যাবে।

থানা পুলিশের এক এএসআই নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, নিহতের বড়ভাই এক ভাবিসহ দুইজনকে জিজ্ঞাসার জন্য থানা নেওয়া হচ্ছে।

শনিবার রাত পৌনে ১১টায় থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনুনর যায়েদ বলেন, এ হ্যাকান্ডের ঘটনায় কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। দুই একজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য আনা হয়েছে। তবে গ্রেফতার বা আটক করা হয়নি। অভিযোগ পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

google-news-channel-newsasia24

নরসিংদীতে ইউপি সদস্যকে প্রথমে গুলি, পরে গলা কেটে হত্যা

নরসিংদী প্রতিনিধি: জজ কোর্ট থেকে মোটরসাইকেলে করে বাড়ি ফেরার পথে গুলি চালিয়ে এবং গলা কেটে নরসিংদী সদর উপজেলার আমদিয়া ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য রুবেল আহমেদকে (৩৪) হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। সোমবার (১৫ এপ্রিল) দুপুরে ইউনিয়নের পাকুরিয়া এলাকার সড়কে তাকে হত্যা করা হয়।

নিহত রুবেল আহমেদ একই এলাকার শাহজাহান মিয়ার ছেলে।

নিহতের পরিবারের সদস্যরা জানান, গত ইউপি নির্বাচনে প্রথমবারের মতো আমদিয়া ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য নির্বাচিত হন রুবেল। প্রতিদিনের মতো দায়িত্ব পালন করতে আজও বাড়ি থেকে বের হন তিনি। দুপুরে মোটরসাইকেলে নরসিংদী জজ কোর্ট থেকে বাড়ি ফিরছিলেন তিনি।

পাকুরিয়া নামক স্থানে সন্ত্রাসী শফিক (ডাকাত), আপন মিয়া, ইমরুল হক, রুহুল আমিন, রাজিব, ইয়াকুবসহ অন্য দুর্বৃত্তরা রুবেলকে লক্ষ্য করে গুলি চালান। এসময় রুবেল এবং তার সহযোগী ইসমাইল মোটরসাইকেল থেকে ছিটকে পড়েন। পরবর্তীতে দুর্বৃত্তরা রুবেলকে কুপিয়ে এবং গলা কেটে হত্যা করে পালিয়ে যায়।

আরও পড়ুন: 

গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরনে একই পরিবারের ৬ জন দগ্ধ; মা মেয়ের মৃত্যু

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ক্রিকেট খেলা নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৩০

নরসিংদীর পুলিশ সুপার মো. মোস্তাফিজুর রহমান জানান, ইউপি মেম্বার নিহতের ঘটনার পরপরই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে পুলিশ। সার্বিক বিষয় বিবেচনা করে হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার করতে কাজ করছে পুলিশ। পরিবারের অভিযোগগুলো আমলে নেওয়া হচ্ছে।

google-news-channel-newsasia24

গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরনে একই পরিবারের ৬ জন দগ্ধ; মা মেয়ের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীর পশ্চিম ভাসানটেকে গ্যাস সিলিন্ডার থেকে আগুন লেগে দগ্ধ ছয়জনের মধ্যে সূর্য বানু (৪০) নামে আরও এক নারী চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। এ নিয়ে এ ঘটনায় দুজনের মৃত্যু হলো।

আজ সোমবার (১৫ এপ্রিল) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে তিনি মারা যান। এর আগে শনিবার সকালে সূর্য বানুর মা দগ্ধ মেহেরুন্নেছার (৬৫) মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় দগ্ধ অন্য চারজন বর্তমানে ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তারা হলেন সূর্য বানুর স্বামী মো. লিটন (৫২) এবং তাদের তিন সন্তান লিজা (১৮), সুজন (৮) ও লামিয়া (৭)।

গত শুক্রবার ভোর ৪টার দিকে ভাসানটেকের একটি বাসায় গ্যাস সিলিন্ডার থেকে আগুন লেগে একই পরিবারের ছয়জন দগ্ধ হন। পরে তাদের উদ্ধার করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়।

আরও পড়ুন: 

এলাকাবাসী জানান, মশার কয়েল জ্বালাতে গেলে ঘরের মধ্যে গ্যাস সিলিন্ডারের পাইপের লিকেজ থেকে জমে থাকা গ্যাসে আগুন ধরে যায়। এতে ওই পরিবারের ছয়জন দগ্ধ হন।

google-news-channel-newsasia24

ঘটনার দিন দুপুরে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক চিকিৎসক তরিকুল ইসলাম জানিয়েছিলেন, দগ্ধদের সবার অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাদের মধ্যে সূর্য বানুর শরীরের ৮২ শতাংশ, লিটনের ৬৭ শতাংশ, লামিয়ায় ৫৫ শতাংশ, মেহরুন্নেচ্ছার ৪৭ শতাংশ, সুজনের ৪৩ শতাংশ ও লিজার ৩০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে।