শিরোনাম

আন্তর্জাতিক

গুলিবিদ্ধ হয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে লক্ষ্য করে হামলা চালানো হয়েছে। পেনসিলভানিয়া অঙ্গরাজ্যের বাটলারে এক নির্বাচনী জনসভায় বক্তৃতা দেওয়ার সময় হামলার শিকার হন তিনি। একেবারে তার কানে গুলি লেগেছে। তবে এতে অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেছেন এই রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট। খবর বিবিসির।

আকস্মিক ওই হামলার বিষয়ে ট্রাম্প জানিয়েছেন, নির্বাচনী প্রচারণার সময় তার কানে গুলি করা হয়েছে। তিনি জানান, তার মনে হচ্ছিল কান ঘেঁষে একটি বুলেট চলে গেল।

হামলার পরপরই তিনি মাটিতে পড়ে যান। এসময় তার মুখমণ্ডলে রক্ত দেখা গেছে। এই ঘটনার পর পরই সিক্রেট সার্ভিসের সদস্যরা হামলাকারীকে গুলি করলে তিনি নিহত হন। এছাড়া আরও দুজন এই ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন ।

র‌্যালিতে উপস্থিত একজন প্রত্যক্ষদর্শী বিবিসিকে বলেন, গুলির শব্দ শোনার পর তারা একজন রাইফেলধারীকে ছাদে হামাগুড়ি দিতে দেখেছেন।

স্থানীয় সময় শনিবার সন্ধ্যা ৬টা ১৫ মিনিটে ট্রাম্পের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। সামাজিক মাধ্যম ট্রুথ সোশ্যাল অ্যাকাউন্টে এক পোস্টে ট্রাম্প বলেন, গুলিতে ডান কানের ওপরের অংশে ফুটো হয়ে গেছে।

তিনি আরও বলেন, হঠাৎ করেই আমি বুঝতে পারি যে কিছু একটা ঘটে গেছে। আমি গুলির শব্দ শুনতে পাই এবং মনে হচ্ছিল আমার চামড়া ভেদ করে গুলি চলে গেছে। অনেক রক্ত বের হচ্ছিল এবং আমি বুঝতে পারলাম যে আসলে কী ঘটেছে। পোস্টের শেষে ট্রাম্প বলেন, ঈশ্বর আমেরিকার মঙ্গল করুন।

আরও পড়ুন:

হামলার ঘটনার সঙ্গে সঙ্গেই দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ায় সিক্রেট সার্ভিস এবং অন্যান্য আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন ট্রাম্প।

তিনি আরও বলেন, আমাদের দেশে এ ধরনের ঘটনা অবিশ্বাস্য। এই মুহূর্তেই হামলাকারীর বিষয়ে কিছু বলা যাচ্ছে না। তিনি নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে নিহত হয়েছেন।

এদিকে ওয়ারেন ও ডেবিই নামের দুজন প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, তারা অন্তত চার রাউন্ড গুলির শব্দ শুনতে পেয়েছেন। এসময় তারা ডোনাল্ড ট্রাম্পের ডান পাশে ছিলেন।

google-news-channel-newsasia24

ভয়ংকর লেজার অস্ত্র মোতায়েন করছে দক্ষিণ কোরিয়া

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: উত্তরের সঙ্গে করা ৭৭ বছরের চুক্তি ভেঙে প্রথবারের মতো ভয়ংকর ধরনের লেজার অস্ত্র মোতায়েন করতে যাচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়া। উত্তর কোরিয়ার ড্রোন ভূপাতিত করতে এ ধরনের অস্ত্রের ব্যবহার শুরু করতে যাচ্ছে সিউল। এই ধরনের অস্ত্র মোতায়েনে বিশ্বের প্রথম দেশ হতে যাচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়া।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলেছেন দেশটির অস্ত্র সংগ্রহ সংস্থা বৃহস্পতিবার এ তথ্য প্রকাশ করেছে ।

প্রতিরক্ষাবিষয়ক প্রশাসন (ডিএপিএ) এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, সামরিক বাহিনী হেনহুয়া এরোস্পেস সংস্থায় সহায়তার ড্রোন বিধ্বংসী লেজার অস্ত্র তৈরি করেছে। অত্যাধুনিক প্রযুক্তিনির্ভর এই অস্ত্রটি কার্যকর এবং তুলনামূলক সাশ্রয়ী। প্রতিবার লেজার আক্রমণে খরচ হবে মাত্র দেড় ডলার। এই লেজারটি নীরব এবং অদৃশ্য।’

আরও পড়ুন:

সংস্থাটি আরও জানিয়েছে, ‘আমাদের দেশ লেজার অস্ত্র মোতায়েন ও পরিচালনার জন্য বিশ্বে প্রথম দেশ হয়ে উঠছে। উত্তর কোরিয়ার ড্রোন উসকানি যথাযথ ও কড়া জবাব দিতে এমনটি করা হচ্ছে।

লেজার অস্ত্রগুলো ১০ থেকে ২০ সেকেন্ডের মধ্যে আলোর রশ্মির মাধ্যমে ড্রোনের ইঞ্জিন বা অন্যান্য বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম পুড়িয়ে উড়ন্ত ড্রোনকে ধ্বংস করবে।’ দক্ষিণ কোরিয়া তাদের লেজার প্রোগ্রামকে ‘স্টার ওয়ার্স প্রজেক্ট’ বলে অভিহিত করেছে।

১৯৫০-৫৩ সালে শান্তি চুক্তির মধ্যে দিয়ে শেষ হয় কোরীয় যুদ্ধ। চুক্তিতে নিরস্ত্রীকরণসহ ভয়াবহ ও প্রাণঘাতী অস্ত্র ব্যবহার থেকে বিরত থাকতে সম্মত হয় উত্তর কোরিয়া এবং দক্ষিণ কোরিয়া।

google-news-channel-newsasia24

ফিলিপাইনে ৬.৭ মাত্রার ভূমিকম্প

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: দক্ষিণ ফিলিপাইনের মিন্দানাও অঞ্চলে আজ বৃহস্পতিবার আঘাত হেনেছে ৬ দশমিক ৭ মাত্রার ভূমিকম্প। এ ঘটনায় তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। জার্মান রিসার্চ সেন্টার ফর জিওসায়েন্সেস (জিএফজেড) এ তথ্য জানিয়েছে। খবর রয়টার্সের।

জিএফজেড জানিয়েছে, ভূমিকম্পের গভীরতা ছিল ৬৩০ কিলোমিটার।

ফিলিপাইনের সিসমোলজি এজেন্সি জানিয়েছে, গভীর অফশোর এই ভূমিকম্পে ক্ষয়ক্ষতির সম্ভাবনা কম, তবে আফটারশক হতে পারে।

ভৌগলিকভাবে প্রশান্ত মহাসাগরের ‘রিং অব ফায়ারে’ অবস্থান করছে ফিলিপাইন। আর এই রিং অফ ফায়ারে টেকটোনিক প্লেটগুলোর সংঘর্ষ হয় মাঝে মাঝে। সে কারণে ফিলিপাইনে প্রায়ই ভূমিকম্প ও আগ্নেয়গিরির অগ্নুৎপাত কিংবা সক্রিয়তা দেখা দেয়।

google-news-channel-newsasia24

ইংল্যান্ডে বিবিসির সাংবাদিকের স্ত্রীসহ দুই কন্যাকে হত্যা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: যুক্তরাজ্যের পূর্ব ইংল্যান্ডের হার্ডফোর্ডশায়ারের বুশে শহরে বিবিসির এক সাংবাদিকের স্ত্রী এবং তার দুই মেয়েকে ক্রসবো দিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এই ঘটনায় সন্দেহভাজন এক ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ। বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

উত্তর লন্ডনের একটি কবরস্থানের কাছে ২৬ বছর বয়সী কাইল ক্লিফোর্ডকে আহত অবস্থায় আটক করা হয়। তাকে ধরতে বড় ধরনের অভিযান চালিয়েছে পুলিশ।

বিবিসি ফাইভ লাইভের রেসিং বিভাগের ধারাভাষ্যকার জন হান্টের স্ত্রী এবং দুই মেয়ে হার্টফোর্ডশায়ারের বুশেতে অবস্থিত নিজ বাড়িতে অবস্থানকালেই হামলার শিকার হন।

জন হান্টের পরিবারকে ভালো ভাবে চেনেন এমন এক নারী ওই পরিবারটি সম্পর্কে বলেন, তারা খুবই আন্তরিক, বন্ধুত্বপূর্ণ এবং কোমল মনের মানুষ। তারা সব সময় অন্যদের সাহায্যে এগিয়ে এসেছেন।

পুলিশ জানিয়েছে, এই হত্যাকাণ্ডে সন্দেহভাজন যে ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে তিনি দুই বছর আগে সেনাবাহিনীর চাকরি ছেড়ে দেন।

আরও পড়ুন>>ভাতিজার হাঁসুয়ার আঘাতে চাচা নিহত, আহত ২

হামলার ঘটনায় জন হান্টের স্ত্রী ক্যারল হান্ট (৬১) তার দুই মেয়ে হান্না হান্ট (২৮) এবং লুইস হান্ট (২৫) ঘটনাস্থলেই মারা গেছেন।

এদিকে এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা সামনে আসতেই বিবিসিসহ যুক্তরাজ্যের সংবাদমাধ্যমের কর্মীদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। বিবিসিতে ৩০ বছরের বেশি সময় ধরে চাকরি করছেন হান্ট। সংবাদমাধ্যম এবং রেসিং সমর্থকদের মধ্যেও তিনি বেশ জনপ্রিয়।

কী কারণে একসঙ্গে তিনজনকে হত্যা করা হলো সে বিষয়টি এখনো নিশ্চিত নয়। হত্যার শিকার নারীদের সঙ্গে সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের পূর্ব পরিচয় ছিল কি না তা যাচাই করা সম্ভব হয়নি।

google-news-channel-newsasia24

যুক্তরাজ্যে নির্বাচন আজ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: আজ বৃহস্পতিবার যুক্তরাজ্য জুড়ে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে পার্লামেন্ট নির্বাচন। এবারের নির্বাচনে তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতার মুখোমুখি হচ্ছে ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টি এবং বিরোধী লেবার পার্টি।

তবে জনমত জরিপের পূর্বাভাসে ইতিমধ্যেই এগিয়ে রয়েছে লেবার পার্টি এবং পিছিয়ে পরেছে সুনাকের রক্ষণশীল দল। ধারনা করা হচ্ছে ১৪ বছর পর পরিবর্তনের হাওয়া লাগতে যাচ্ছে যুক্তরাজ্যের রাজনীতিতে। খবর রয়টার্স ও বিবিসি।

নির্বাচনী প্রচারণার শেষ দিনে কনজারভেটিভ পার্টির প্রধান ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক এবং লেবার প্রধান স্টারমার প্রচারণা চালান। শেষ দিনের প্রচারণায় তারা দেশের অর্থনৈতিক বিষয়গুলো নিয়ে কথা বলেন। দুজনই দাবি করেন যদি তাদের প্রতিপক্ষ জয় পায় তাহলে অর্থনীতিতে বিরূপ প্রভাব পড়বে।

জনমত জরিপের ভিত্তিতে রয়টার্স বলছে, ২০ পয়েন্ট নিয়ে এগিয়ে রয়েছে কেয়ার স্টারমারের লেবার পার্টি। জরিপের মাধ্যমে বুঝাই যাচ্ছে রক্ষণশীলদের দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন ভোটাররা। অনেক ভোটার আবার কাউকেই সমর্থন না জানিয়ে পরিবর্তনের কথা বলছেন।

google-news-channel-newsasia24

এবার রেকর্ড সংখ্যাক ৪ কোটি ৬০ লাখ ভোটার ভোট দেবেন বলে আশা করা হচ্ছে। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার যুক্তরাজ্যের ভোটাররা সকাল সাতটা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত ভোটের মাধ্যমে তাদের মত জানাবেন।

এই নির্বাচনে কনজারভেটিভ পার্টি, লেবার পার্টি, লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি, গ্রিন পার্টি, রিফর্ম পার্টি, স্কটিশ ন্যাশনালিস্ট পার্টিসহ ছোট–বড় অন্তত ৯৮টি রাজনৈতিক দল অংশগ্রহণ করছে।

রাজনৈতিক দলগুলোকে সংখ্যাগরিষ্ঠ সরকার গঠনের জন্য ৩২৬টি আসন নিশ্চিত করতে হবে।

আরও পড়ুন:

হাউস অব কমন্সের ৬৫০টি আসনের বিপরীতে রাজনৈতিক দলগুলোর মনোনীত, স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ এই নির্বাচনে রেকর্ডসংখ্যক ৪ হাজার ৫১৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। বর্তমান সরকারের মেয়াদ শেষ হবার ছয় মাস আগেেই গত ২২ মে হঠাৎ করেই আগাম নির্বাচনের ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক।

ভোট গ্রহণ শেষ হওয়ার পরপরই গণনা শুরু হবে। নিয়ম অনুযায়ী, সংখ্যাগরিষ্ঠ আসন পাওয়া দলকে সরকার গঠন ও দলের নেতাকে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার আহ্বান জানাবেন যুক্তরাজ্যের রাজা তৃতীয় চার্লস।

ইসরায়েলে শতাধিক রকেট হামলা চালিয়েছে হিজবুল্লাহ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ইসরায়েলের বিভিন্ন লক্ষ্যে শতাধিক রকেট ছুড়েছে হিজবুল্লাহ। সম্প্রতি লেবাননে হামলা চালিয়ে সংগঠনটির একজন শীর্ষ কমান্ডারকে হত্যা করেছে ইসরায়েল।

এর প্রতিশোধ নিতেই বুধবার দফায় দফায় ইসরায়েলের দিকে রকেট ছুড়েছে হিজবুল্লাহ। গত কয়েক সপ্তাহে হিজবুল্লাহর কয়েকজন শীর্ষ নেতাকে হত্যা করেছে ইসরায়েল। খবর এএফপির।

গত ৭ অক্টোবর ইসরায়েলের সীমান্তে প্রবেশ করে আকস্মিক হামলা চালায় ফিলিস্তিনি স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাস। এরপরেই গাজায় পাল্টা আক্রমণ চালায় ইসরায়েল। সেখানে অভিযানের নামে প্রতিদিনই নিরীহ ফিলিস্তিনিদের ওপর হামলা চালানো হচ্ছে।

এখন পর্যন্ত গাজায় প্রায় ৩৮ হাজার ফিলিস্তিনিকে হত্যা করা হয়েছে। এদিকে গাজায় সংঘাত শুরুর পর থেকেই হিজবুল্লাহ এবং ইসরায়েলের মধ্যেও হামলা পাল্টা হামলার ঘটনা বেড়ে গেছে।

google-news-channel-newsasia24

টাইরে একটি গাড়িতে ইসরায়েলি হামলায় দক্ষিণ লেবাননের এক শীর্ষ হিজবুল্লাহ কমান্ডার নিহত হয়েছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে হিজবুল্লাহর ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র এএফপিকে এ তথ্য জানিয়েছেন।

ইরান-সমর্থিত সংগঠনটি জানিয়েছে, ইসরায়েলের হামলায় তাদের শীর্ষ কমান্ডার মোহাম্মদ নামেহ নাসের নিহত হয়েছেন। তিনি হজ আবু নামেহ নামেও পরিচিত। এছাড়া আরও এক যোদ্ধা নিহত হয়েছেন বলেও জানানো হয়েছে।

এদিকে নাসেরকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে ইসরায়েলি বাহিনী। এক বিবৃতিতে ইসরায়েলি বাহিনী জানিয়েছে, তিনি হিজবুল্লাহর আজিজ ইউনিটের কমান্ডার ছিলেন। তাদের দাবি, ইসরায়েলি ভূখণ্ডে দক্ষিণ-পশ্চিম লেবানন থেকে হামলা চালানোর পেছনে এই ইউনিটই দায়ী।

হিজবুল্লাহ জানিয়েছে, নাসের হত্যার প্রতিশোধের অংশ হিসাবে তাদের যোদ্ধারা ইসরায়েল-অধিকৃত গোলান মালভূমির দুটি অবস্থানে শতাধিক কাতিউশা রকেট দিয়ে আক্রমণ করেছে।

আরও পড়ুন>>সাগরে ভাসা বোতলের পানিকে মদ ভেবে পান, ৪ জেলের মৃত্যু

এছাড়াও ইসরায়েলের একটি অবস্থানে কাতিউশা রকেট, উত্তর ইসরায়েলের দুটি সামরিক স্থানে ফালাক রকেট এবং ভারী বুরকান ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে হামলা চালানো হয়েছে।

ইসরায়েলি বাহিনীর এক মুখপাত্র বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, লেবানন থেকে ইসরায়েলের দিকে প্রায় ১০০ রকেট ছোড়া হয়েছে।

সাগরে ভাসা বোতলের পানিকে মদ ভেবে পান, ৪ জেলের মৃত্যু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সাগরে কিছু বোতল ভাসতে দেখে জেলেরা। তারা সেই বোতল নৌকায় তুলে নেয়। জেলেরা ভেবেছিল সেগুলোতে মদ রয়েছে। পরে সেই বোতলগুলো থেকে অজানা তরল পান করে চার জেলের মৃত্যু হয়েছে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে এমন তথ্য জানা যায়। শ্রীলঙ্কার দক্ষিণ উপকূলীয় শহর টাঙ্গালে থেকে ৩২০ নটিক্যাল মাইল দূরে জেলেরা মাছ ধরার সময় এ ঘটনা ঘটে।

শ্রীলঙ্কার নৌবাহিনী জানায়, জেলেরা মদ ভেবে বোতলে থাকা তরল পান করে। এর পর চার জেলের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া আরও দুজন গুরুতর আহত হন।

google-news-channel-newsasia24

শ্রীলঙ্কার মৎস্য ও জলজ সম্পদ বিভাগের মহাপরিচালক সুসান্থ কাহাওয়াত্তে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, নৌ বাহিনী জেলেদের তীরে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছে। অসুস্থ জেলেদের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, মৃত জেলেরা গত ৪ জুন টাঙ্গালে শহর থেকে ডেভন নামের একটি নৌযানে করে মাছ ধরতে যান। তারা কিছু বোতল সমুদ্রে থাকা অন্যান্য জেলেদেরও দিয়েছিল।

ওই সব জেলেদের এরইমধ্যে এ বিষয়টি জানানো হয়েছে। সমুদ্রে পাওয়া বোতলগুলোতে কি ধরনের তরল ছিল, তা নিশ্চিত হতে তদন্ত শুরু করেছে শ্রীলঙ্কান কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুন:

রাশিয়ায় গির্জা, পুলিশ পোস্টে সন্ত্রাসী হামলা, নিহত ১৫ পুলিশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: রাশিয়ার উত্তর ককেশাস অঞ্চলের দাগেস্তানের দুটি শহরে একাধিক স্থানে ভয়াবহ হামলা চালিয়েছে বন্দুকধারীরা। একাধিক ‘সন্ত্রাসী হামলার’ ঘটনায় অন্তত ১৫ জন পুলিশ, একজন অর্থোডক্স ধর্মযাজকসহ অনেকে নিহত হয়েছেন।

এছাড়া পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছেন ছয়জন সন্দেহভাজন বন্দুকধারীও। আহত হয়েছেন আরও অনেকে। রবিবার ম্যাসেজিং অ্যাপ টেলিগ্রামে এ তথ্য জানান দাগেস্তানের গভর্নর সের্গেই মেলিকভ।

বার্তাসংস্থা রয়টার্স আজ এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

স্থানীয় সময় গতকাল রবিবার সন্ধ্যায় দাগেস্তান অঞ্চলের দেরবেন্ত ও মাখাচকালা শহরে দুটি অর্থোডক্স গির্জা, একটি সিনাগগ এবং পুলিশের একটি তল্লাশিচৌকিতে হামলা চালায় বন্দুকধারীরা।

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম আইন প্রয়োগকারী সংস্থার বরাতে জানিয়েছে যে হামলাকারীদের মধ্যে মধ্য দাগেস্তানের সেরগোকালা জেলা প্রধানের দুই ছেলে ছিল। তারা তদন্তকারীদের হাতে আটক হয়েছে।

আরও পড়ুন:মাটি ও মানুষ স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের উদ্যোগে বৃক্ষরোপন কর্মসূচি পালিত

তবে এই হামলার পেছনে কোন সন্ত্রাসী সংগঠন জড়িত রয়েছে বলে সন্দেহ করছে রুশ কর্তৃপক্ষ। দাগেস্তানের গভর্নর জানান, “আমরা বুঝতে পারি যে এই সন্ত্রাসী হামলার পিছনে কারা রয়েছে এবং তারা কী লক্ষ্য নিয়ে হামলা করেছে।”

তবে যদিও দায়ী হিসেবে কারও নাম উল্লেখ করেননি সের্গেই মেলিকভ। এমনকি এ বিষয়ে বিস্তারিত আর কিছুই জানাননি তিনি। এছাড়া ভয়াবহ এই হামলার জন্য তাৎক্ষণিকভাবে কোন সংগঠনই দায় স্বীকার করেনি।

মেলিকভ জানান, হামলার সময় ছয়জন বন্দুকধারীকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। তবে রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম পাঁচজন বন্দুকধারীর নিহত হওয়ার খবর জানিয়েছে। দেশটির জাতীয় সন্ত্রাসবিরোধী কমিটির বরাতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

মেলিকভ জানান, নিহতদের মধ্যে পুলিশ অফিসার ছাড়াও বেশ কয়েকজন বেসামরিক নাগরিকও রয়েছেন। যার মধ্যে একজন অর্থোডক্স ধর্মযাজক রয়েছেন যিনি ৪০ বছরেরও বেশি সময় ধরে দেরবেন্তে কাজ করেছিলেন।

রাশিয়ান অর্থোডক্স চার্চের একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন, পুরোহিত নিকোলাই কোটেলনিকভকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:সাংবাদিক রিজুর উপর হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন (ভিডিওসহ)

হামলায় ঠিক কতজন নিহত হয়েছেন তা এখনও বিস্তারিত জানা যায়নি। এছাড়া ভয়াবহ এই হামলায় নিহতদের স্মরণে ২৪-২৬ জুন রাশিয়ায় শোক ঘোষণা করা হয়েছে।

রাশিয়ার রাজধানী মস্কোর পাশে একটি কনসার্ট হলে হামলায় ১৪৫ জন নিহত হওয়ার ঘটনার মাস তিনেক পর দাগেস্তানে এসব হামলার ঘটনা ঘটল। ইসলামিক স্টেটস (আইএস) ওই হামলা চালিয়েছিল। সাম্প্রতিক বছরগুলোর মধ্যে সেটা ছিল রাশিয়ার ভূখণ্ডে সবচেয়ে রক্তক্ষয়ী হামলার ঘটনা।

google-news-channel-newsasia24

লোকসভার চূড়ান্ত ফল: বিজেপি ২৪০, কংগ্রেস ৯৯

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতের লোকসভা নির্বাচনের চূড়ান্ত ফল ঘোষণা করা হয়েছে। মঙ্গলবার (৪ জুন) মধ্যরাতে দেশটির নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত ফলাফলে দেখা গেছে, ৫৪৩টি আসনের মধ্যে ২৪০টিতে জয় পেয়েছে নরেন্দ্র মোদীর ক্ষমতাসীন ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)। আর ৯৯টি আসনে জয় পেয়েছে প্রধান বিরোধীদল ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল কংগ্রেস।

এছাড়া অন্য দলগুলোর মধ্যে সমাজবাদী পার্টি (এসপি) ৩৭টি, তৃণমূল কংগ্রেস ২৯টি, ডিএমকে ২২টি, তেলেগু দেশম পার্টি (টিডিপি) ১৬টি, জনতা দল (জেডি-ইউ) ১২টি, শিবসেনা (উদ্ভব) ৯টি, ন্যাশনালিস্ট কংগ্রেস পার্টি (এনসিপিএসপি) ৮টি ও শিবসেনা (এসএইচএস) ৭টি আসনে জয় পেয়েছে।

লোক জনশক্তি পার্টি ৫টি, যুবজন শ্রমিক রাইথু কংগ্রেস পার্টি ৪টি, রাষ্ট্রীয় জনতা দল ৪টি, কমিউনিস্ট পার্টি অব ইন্ডিয়া (মার্কসবাদী) ৪টি, ইন্ডিয়ান ইউনিয়ন মুসলিম লীগ ৩টি, আম আদমি পার্টি ৩টি, ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চা ৩টি আসনে জয় পেয়েছে। পাশাপাশি অনেকগুলো দল দুটি করে এবং অনেকগুলো একটি করে আসন পেয়েছে।

এবার একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারিয়েছে নরেন্দ্র মোদির দল বিজেপি। দলটির নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট মোট আসন পেয়েছে ২৯৫টি। অন্যদিকে প্রধান বিরোধীদল ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল কংগ্রেসের ইনডিয়া জোট পেয়েছে ২৩১টি আসন।

আরও পড়ুন:

দেশটির গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, ২০১৯ সালের নির্বাচনে মাত্র ৯৪টি আসনে জিতেছিল কংগ্রেসের নেতৃত্বাধীন জোট। আর কংগ্রেস এককভাবে পেয়েছিল ৫২টি আসন। অর্থাৎ এবারের নির্বাচনে বিস্ময়কর উন্নতি হয়েছে ভারতের প্রাচীনতম রাজনৈতিক দলটির।

ওই নির্বাচনে বিজেপি এককভাবে ৩০৩ আসনে জয় পেয়েছিল। আর বিজেপির নেতৃত্বাধীন জোট এনডিএ ৩৫২ আসনে জয় পায়। তবে এবারের নির্বাচনে বিজেপি সবচেয়ে বেশি আসন পেলেও সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় আসন পায়নি। সেক্ষেত্রে এনডিএ জোট শরিকদের ওপর নির্ভর করতে হবে বিজেপিকে।

google-news-channel-newsasia24

২৪ ঘণ্টায় ইসরায়েলি হামলায় প্রায় ১০০ ফিলিস্তিনি নিহত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ইসরায়েলি হামলা থেকে বাঁচতে গাজার দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর রাফায় আশ্রয় নিয়েছিলেন বাস্তুচ্যুত ফিলিস্তিনিরা। এই শহরটিই ছিল তাদের জন্য একমাত্র নিরাপদ স্থান।

কিন্তু সম্প্রতি আন্তর্জাতিক সব ধরনের চাপ উপেক্ষা করে রাফায়ও অভিযান শুরু করে ইসরায়েলি বাহিনী। ফলে সেখান থেকেও পালাতে শুরু করেন লাখ লাখ ফিলিস্তিনি।

এরই মধ্যে রাফা থেকে অন্যত্র সরে গেছেন ১০ লাখের বেশি ফিলিস্তিনি। এমন পরিস্থিতিতে সেখানে স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রম বন্ধের কথা জানিয়েছে জতিসংঘের ফিলিস্তিনবিষয়ক শরণার্থী সংস্থা।

তাছাড়া অবরুদ্ধ গাজায় গত ২৪ ঘণ্টায় ইসরায়েলি হামলায় প্রায় ১০০ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন।

গত ৭ অক্টোবরের পর ইসরায়েলি হামলায় ৩৬ হাজার ৩৭৯ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ৮২ হাজার ৪০৭ জন। নিহতদের মধ্যে অধিকাংশই নারী ও শিশু।

আরও পড়ুন:

এদিকে বিরাট এলাকাজুড়ে ফিলিস্তিনি শরণার্থীদের তাঁবু, আর সেগুলো দিয়ে লেখা একটি স্লোগান ‘অল আয়েস অন রাফা’ বা ‘সব চোখ রাফার দিকে’। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সাহায্যে তৈরি এই ছবিটি কয়েকদিন ধরে ব্যাপকভাবে শেয়ার হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

ছবিটি প্রথমবার শেয়ার হয়েছিল মালয়েশিয়া থেকে। এরপর দ্রুতই প্রায় সাড়ে চার কোটি ইনস্টাগ্রাম ব্যবহারকারী তা শেয়ার করেন, যাদের মধ্যে ভারত, পাকিস্তান, মধ্যপ্রাচ্যের বহু তারকাও রয়েছেন।

google-news-channel-newsasia24