শিরোনাম

স্বাস্থ্য

বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস আজ

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: আজ (০৭ এপ্রিল) বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্ধারিত প্রতিপাদ্যের আলোকে দিবসটি উদযাপন করছে বাংলাদেশও। এবারের প্রতিপাদ্য ‘স্বাস্থ্যের অধিকার নিশ্চিতে: কাজ করি একসাথে’।

দিবসটি উপলক্ষে পৃথক বাণী দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই সঙ্গে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য অধিদফতর এবং স্বাস্থ্য বিষয়ে কাজ করে এমন বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থাগুলো।

দিবসটি উদযাপন উপলক্ষে এ বছর গৃহীত কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে সেমিনার আয়োজন, স্যুভেনির প্রকাশ, স্বাস্থ্য শিক্ষা প্রদর্শনী, জাতীয় পত্রিকায় ক্রোড়পত্র প্রকাশ, সড়কদ্বীপ সজ্জিতকরণ, চলচ্চিত্র প্রদর্শনী, সরকারি ও বেসরকারি সংস্থার উদ্যোগে স্বাস্থ্য সমস্যা নিয়ে আলোচনা অনুষ্ঠানসহ অন্যান্য কার্যক্রম।

আরও পড়ুন:

১৯৪৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে সম্মেলন ডাকার সিদ্ধান্ত নেয় জাতিসংঘ অর্থনীতি ও সমাজ পরিষদ। একই বছরের জুন ও জুলাই মাসে অনুষ্ঠিত হয় আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য সম্মেলন।

সেই সঙ্গে গৃহীত হয় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাংগঠনিক আইন। ১৯৪৮ সালের ৭ এপ্রিল আনুষ্ঠানিকভাবে কার্যকর হয় এই আইন। একইসঙ্গে বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস হিসেবে নির্ধারিত হয় দিনটি।

দিবসটি ঘিরে প্রতিবছর সংস্থাটি এমন একটি স্বাস্থ্য ইস্যু বেছে নেয়, যা বিশেষ করে সারা পৃথিবীর জন্যই গুরুত্বপূর্ণ। এ দিন স্থানীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে পালিত হয় এ দিবসটি।

google-news-channel-newsasia24

সেহরিতে কী খেতে বলেন পুষ্টিবিদরা?

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: আমরা সাধারনত সেহরিতে তেল জাতীয় খাবার খেয়ে থাকি। যেটা শরীরের জন্য খুবই ক্ষতিকর। পুষ্টিবিদরা বলেন, সেহরিতে এমন খবার খেতে হবে যেটা সহজেই হজম হয় এবং স্বাস্থ্যকর। অর্থাৎ যে খাবারগুলোতে গ্লাইসেমিক ইনডেক্স কম ও আশঁযুক্ত।

চলুন, জেনে নেয়া যাক সেই খাবারগুলোর তালিকা।

★ লাল চালের ভাত খেতে পারেন ঘন ডাল দিয়ে, কারণ সাদা চাল তাড়াতাড়ি হজম হয় ও ক্ষুধা লেগে যায়। তাছাড়া হোলগ্রেইন জাতীয় খাবার খেতে পারেন। যেমন- ওটস বা চিড়া।

★ ভালো মানের প্রোটিন এর জন্য সিদ্ধ ডিম খেতে পারেন ।

★ বাদাম খেতে পারেন, কারণ বাদামে থাকে ভালো মানের চর্বি। ডিম উচ্চ ক্যালোরিযুক্ত। এই খাবার হজমে সময় নেয়।

★ খেজুর খেতে পারেন, যাতে আছে ফাইবার ও ভিটামিন-বি। এগুলো শক্তির ভালো উৎস।

★ সেহরিতে ফল জাতীয় খাবারের মধ্যে কলা,আপেল,কমলা, তরমুজ ইত্যাদি মৌসুমী ফল খেতে পারেন।

★ শরবত হিসেবে চিয়া সিডের শরবত খেতে পারেন। কারন, এটি যা ফাইবার রিচ, এন্টিঅক্সিডেন্ট ও মিনারেল সমৃদ্ধ। এটি হজমে সাহায্য করে।

★ ইফতার থেকে সেহরি পর্যন্ত কমপক্ষে ১০ গ্লাস পানি পান করতে হবে। যেন শরীরে সারাদিনে পানিশূন্যতা তৈরি না হয়।

সুস্থ থাকতে হলে সেহরিতে অতিরিক্ত খাবেন না।

আরও পড়ুন: 

পেঁয়াজের খোসার জাদুকারি ৬ গুণ

গাড়িতে উঠলেই বমি পায়? জেনে নিন সমাধান

প্রেমে এই ৫টি লক্ষণ থাকলে বিয়ে নিশ্চিত

ব্রকলির এই উপকারিতা জানলে চমকে উঠবেন!

google-news-channel-newsasia24

ডায়াবেটিস এ চিন্তা দূর করবে ডায়া-ফিক্স

দেশের বেশীরভাগ মানুষই ডায়াবেটিস এ আক্রান্ত। কোন ধরনের পূর্ব লক্ষন ছাড়াই আক্রান্ত হচ্ছেন ডায়াবেটিস এ। বয়স চল্লিশাদ্ধার্ধ হলেই যেন আক্রামন করে বসে এ রোগটি।

তাই এ রোগের হাত থেকে রেহাই পেতে বাজারে এসেছে ডায়া ফিক্স।
Dia Fix সেবন করা খুবই সহজ। প্রতিবার খাবারের আগে একটি Dia Fix- ক্যাপসুল খান। পণ্যটি সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক, তাই আপনার কোন ব্যবস্থাপত্রের প্রয়োজন হবে না।

diabetes-medicine-dia-fix-newsasia24

Dia Fix প্রাকৃতিক উপাদানের উপর ভিত্তি করে একটি সর্ব-প্রাকৃতিক প্রতিকার – গ্লুকোজ স্ট্যাবিলাইজার। । তাই কোন ব্যবস্থাপত্রের প্রয়োজন নেই। এটি আপনার ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

Dia Fix এর রয়েছে 100% সন্তুষ্টির নিশ্চয়তা। যার অর্থ আপনার কিছুই হারানোর নেই।

এটি কোথা থেকে কিনবেন?

সস্তায় ও নকল পন্য কেনার জন্য অনলাইনে ঝাঁপিয়ে পরেন না। আসল Dia Fix কেনার জন্য তাদের ওয়েবসাইটে যান এখনই।

Dia-Fix কিনতে এখানে ক্লিক করুন

খালিপেটে দুধ চা খেলে কী কী সমস্যা হতে পারে, জেনে নিন?

লিমা পারভীন: বর্তমান সময়ে অনেকেই সকালে উঠে খালিপেটে এক কাপ গরম গরম দুধ চায়ে চুমুক দেন। এতে করে সকাল সকাল এনার্জি পাওয়া যায় বলে মনে করেন অনেকেই। কিন্তু বিশেষজ্ঞদের মতে দুধ চা খাওয়া এমনিতেই ভালো না তারউপর নিয়মিত সকালে খালি পেটে দুধ চা খেলে একাধিক জটিল অসুখের সম্ভাবনা বেড়ে যায়।এনার্জি বেড়ে যায়।

প্রতিদিন খালি পেটে দুধ চা খেলে হজমের সমস্যা, পেট ফাঁপার মত সমস্যা দেখা দেয়। এমনকি অনিদ্রার সমস্যাও হয়। খাবার খাওয়ার অন্ততপক্ষে ৩০ মিনিট পরে দুধ চা খাওয়া উচিত। এতে করে গ্যাস-অ্যাসিডিটি সমস্যার শঙ্কা কমবে।

দুধ-চিনি মেশানো চায়ের স্বাদ বেশি ভালো হলেও চায়ের মধ্যে লাল চা বেশি উপকারী। এজন্য গবেষকরা হালকা লাল চা পানের কথাই বেশি বলেন। ​চায়ে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের ভাণ্ডার। আর এই উপাদান শরীরে প্রদাহ কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

আরও পড়ুন:

বিশেষজ্ঞদের মতে সুস্থ থাকতে চাইলে দুধ চা এড়িয়ে চলাই শ্রেয়। এ ছাড়া সকালে খালিপেটে দুধ চা খেলে গ্যাস-অ্যাসিডিটির সমস্যা বেড়ে যাওয়ার শঙ্কা রয়েছে। এমনকী খালিপেটে দুধ চা খেলে ক্রনিক গ্যাসট্রাইটিসের সমস্যা ও হতে পারে।

তাই এসব সমস্যা থেকে বাঁচতে চাইলে রোজ সকালে খালিপেটে দুধ চা খাওয়ার অভ্যাস পরিবর্তন করা উচিত। তবে রং চায়ে চিনি না মিশিয়ে খাওয়া ভালো। এতে করে ওজন নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি ডায়াবেটিসও বশে থাকবে।

google-news-channel-newsasia24

Follow

কুষ্টিয়ায় বিশ্ব কুষ্ঠ দিবস ২০২৪ পালিত (ভিডিও)

নাজমুল হাসান, কুষ্টিয়া প্রতিনিধি: কুষ্টিয়ায় নানা কর্মসূচীর মাধ্যমে পালিত হলো বিশ্ব কুষ্ঠ দিবস-২০২৪ ।

“আত্মমর্যাদার পরিবেশ, কুষ্ঠ-কলঙ্কের হবে শেষ” এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে আজ শনিবার(২৮ জানুয়ারি) সকাল ১১টায় জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে র‌্যালি বের হয়ে শহরস্থ এনএস রোড প্রদক্ষিন করে।

পরে র‌্যালি শেষে কুষ্টিয়া সিভিল সার্জন কার্যলয়ের হল রুমে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এইপি প্রকল্পের প্রকল্প সমন্বয়কারী আহসান হাবীব রিপন কুষ্টিয়া জেলার ছয়টি উপজেলাতে কুষ্ঠ রোগীদের বর্তমান অবস্থা তুলে ধরেন।

World-Leprosy-Day-2024-is-celebrated-in-Kushtia-newsasia24 2

আরও পড়ুন: 

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ডাঃ এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম, সিভিল সার্জন,কুষ্টিয়া। বিশেষ অতিথি হিসাবে আরো উপস্থিত ছিলেন ডাঃ আব্দুল্লাহ আল রশিদ, ডাঃ নোওরিন আলম সিজা (ডিষ্টিক সার্ভিলেন্স মেডিকেল অফিসার), দি ল্যাপ্ররী মিশন বাংলাদেশের এর রিসার্স অফিসার মোঃ মুশফিক রহমান।

আলোচনা শেষে কুষ্ঠ রোগীদের জন্য দিন ব্যাপি স্কীন ক্যাম্প অনুষ্টিত হয়। এ ছাড়া ও বিভিন্ন বিদ্যালয়ে নবম ও দশম শ্রেনীর শিক্ষার্থীদের মাঝে কুষ্ঠ রোগ ও তার প্রতিকার সম্পর্কে রচনা প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হয়।

google-news-channel-newsasia24

করোনার নতুন ধরন, টিকা নেওয়ার নির্দেশ

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) জানান, বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের ওমিক্রন ধরনের উপধরন জেএন.১ শনাক্ত হয়েছে। এখন পর্যন্ত পাঁচজনের নমুনা পরীক্ষায় জেএন.১ উপধরন শনাক্ত হয়েছে।

আইইডিসিআর-এর পরিচালক অধ্যাপক তাহমিনা শিরীন আজ(১৮ জানুয়ারি) বৃহস্পতিবার এ তথ্য জানান। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে আতঙ্ক ছড়ায় করোনা ভাইরাসের ওমিক্রন ধরনের উপধরন জেএন.১।

jn.1-virus-like-corona-newsasia24 2

ডা. তাহমিনা শিরীন জানিয়েছেন, ঢাকা ও ঢাকার বাইরের করোনা রোগীদের নমুনা পরীক্ষার পর এই উপধরন শনাক্ত হয়েছে। তবে তাদের মধ্যে কারও দেশের বাইরে থেকে আসার কোনো খবর নেই। তারা দেশেই ছিলেন।

ওমিক্রন ধরনের উপধরন জেএন.১ শনাক্ত প্রত্যেকেই ভালো আছেন। এ নিয়ে উদ্বেগের কিছুই নেই বলে জানিয়ছেন আইইডিসিআর-এর পরিচালক।

আরও পড়ুন:

এদিকে দেশে আবারও করোনার সংক্রমণ বাড়তে থাকায় দ্রুত টিকা দিতে নির্দেশনা দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

ডা. মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন বলেছেন, দেশব্যাপী করোনা সংক্রমণ বাড়ছে। এ জন্য ফাইজার কভিড-১৯ ভ্যাকসিন কার্যক্রমের প্রথম, দ্বিতীয় ও বুস্টার ডোজ (তৃতীয়, চতুর্থ ডোজ) বিতরণ এবং টিকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। শিগগিরই টিকাদান কার্যক্রম শুরু করতে হবে।

google-news-channel-newsasia24

Follow

দ্রুত গতিতে ছড়িয়ে পড়ছে ‘জেএন.১ ভাইরাস; স্বাস্থ্য সংস্থার উদ্বেগ

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: দ্রুত গতিতে ছড়িয়ে পড়ছে ‘জেএন.১ ভাইরাস। বিষেজ্ঞরা জানিয়েছেন, জেএন.১ করোনার একটি নতুন সাবভ্যারিয়েন্ট। এই বিষয়ে উদ্বেগ জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

ইতমধ্যে ভারত, চীন, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের বহু দেশে এই ভাইরাস টি ছড়িয়ে পড়ছে। তবে এতে করোনার মত ঝুঁকি নেই বলে জানান স্বাস্থ্য সংস্থা।

jn.1-virus-like-corona-newsasia24 2বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই সংক্রমণ রোধ কিছু পরামর্শ দিয়েছেন, কোভিড ও ফ্লু টীকা সম্পর্কে নিয়মিত আপডেট খবর রাখতে হবে, অসুস্থ হলে বাসায় থাকতে হবে এবং লক্ষণ দেখা দিলে পরীক্ষা করাতে হবে।

অন্যদিকে, জনবহুল এলাকাগুলোতে মাস্ক পরতে হবে, হাঁচি-কাশির সময় মুখ বন্ধ রাখতে হবে, যাতে সংক্রমণ ছড়িয়ে না পড়ে, নিয়মিত হাত পরিষ্কার করতে হবে।

আরও পড়ুন:

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলেছেন, নতুন শনাক্ত করা জেএন.১ হলো ওমিক্রনেরই সাব-ভ্যারিয়েন্ট। এতে ভারতে কোভিড ১৯-এর একটি ঝুঁকি সৃষ্টি হতে পারে।

২৪ ঘণ্টার মধ্যে ইনফ্লুয়েঞ্জার মতো অসুস্থতায় আক্রান্ত সব রোগীকে পরীক্ষা করে দেখা গেছে তার মধ্যে শতকরা ৩০ ভাগই কোভিড পজিটিভ। আশপাশের অনেকের দেহে কোভিড পজিটিভ পাওয়া যাচ্ছে।

google news newsasia24

Follow

অ্যান্টিবায়োটিক প্রায় ৮০-৯০ শতাংশ ক্ষেত্রে অকার্যকর হয়ে গেছে

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: মানুষের শরীরে প্রধান রোগ সৃষ্টিকারি জীবাণুগুলোর বিরুদ্ধে প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপের বেশিরভাগ অ্যান্টিবায়োটিক প্রায় ৮০-৯০ শতাংশ ক্ষেত্রে অকার্যকর হয়ে গেছে— বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) গবেষণায় উঠে এসেছে এমন একটি তথ্য।

antibiotic-medicine3-newsasia24

গবেষণায় বলা হয়েছে, এর প্রধান কারণ অ্যান্টিবায়োটিকের অযাচিত ব্যবহার। এ অবস্থা চলতে থাকলে ভবিষ্যতে তা ভয়াবহ রূপ নিতে পারে।

সোমবার (১৮ ডিসেম্বর) ‘সংক্রামক ব্যাধি চিকিৎসায় অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার ও কার্যকারিতার চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক এই গবেষণার ফল প্রকাশ করা হয় বিএসএমএমইউর শহীদ ডা. মিল্টন হলে।

আরও পড়ুন>>খুলনায় তথ্য মিলবে ভারতের আমরি হাসপাতালের

গত জানুয়ারি ২০২২-জুন ২০২৩ পর্যন্ত রাজধানীসহ পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন এলাকা থেকে বিএসএমএমইউতে চিকিৎসা নিতে আসা ৭২ হাজার ৬৭০ জন রোগীর নমুনা পরীক্ষা করে এই গবেষণা করে মাইক্রোবায়োলজি ও ইমিউনোলজি বিভাগ।

অনুষ্ঠানে বিএসএমএমইউ উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা না করে রোগীদের অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া যাবে না। অযাচিত অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারে মানুষ এখন প্রতিরোধী হয়ে উঠেছে।

আরও পড়ুুন>>কিভাবে বাসন মাজলে মানসিক চাপ কমে!

দেশে প্রতিবছর এক লাখ ৭০ হাজার মানুষ মারা যায় অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্সের কারণে। এই অবস্থা চলতে থাকলে আগামী ২০৫০ সালে গিয়ে দেখা যাবে করোনার থেকেও বেশি রোগী মারা যাবে অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্সের কারণে।

antibiotic-medicine2-newsasia24

হাসপাতালে দর্শনার্থীরা রোগীদের দ্বারা সংক্রমিত হয় জানিয়ে উপাচার্য বলেন, অনেক সময় দেখা যায় রোগীকে দেখতে হাসপাতালে গিয়ে সাধারণ মানুষও রোগী হয়ে যায়। এটি ক্রস ইনফেকশন। এজন্য হাসপাতালে রোগী দেখতে গেলে একটু দূরে থেকে দেখতে হবে ও দ্রুত হাসপাতাল থেকে চলে যেতে হবে।

আরও পড়ুন>>শীতে সুস্থ থাকতে এই ৮ টি খাবার অব্যশই খাবেন! জেনে নিন বিস্তারিত..

গবেষণায় আরও বলা হয়, দেশে অন্তত ৭৫ শতাংশ সংক্রমণ হয় টাইফয়েড, ই-কোলাই, স্ট্যাফাউরিয়াস, ক্লিবসিয়েলা ও সিউডোমোনাস ব্যাকটেরিয়ার মাধ্যমে। এসব ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে অ্যাকসেস ও ওয়াচ গ্রুপের অ্যান্টিবায়োটিক প্রায় ৯০ শতাংশ ক্ষেত্রে অকেজো হয়ে গেছে।

এ ছাড়া নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের (আইসিইউ) রোগীদের যে অ্যান্টিবায়োটিকে চিকিৎসা চলত— তা এখন ওয়ার্ডের রোগীদেরও দিতে হচ্ছে। এতেই বোঝা যায় পরিস্থিতি কত খারাপের দিকে যাচ্ছে।

আরও পড়ুন>>একসঙ্গে জন্ম নেওয়া ৫ নবজাতকই মারা গেছে

গবেষণায় বাংলাদেশ ও দক্ষিণ এশিয়ার জন্য কয়েকটি ব্যাকটেরিয়াকে ভবিষ্যতে আশঙ্কা কারণ হিসাবে দেখানো হয়। এগুলো হলো— এমডিআর টিবি, কুইনোলোন এন্টিবায়োটিক প্রতিরোধী টাইফয়েড, ইএসবিএল, ই-কোলাই ও ক্লেবসিয়েলা সংক্রমণ এবং কার্বাপেনাম প্রতিরোধী এন্টিরোকোসি সংক্রমণ।

google news newsasia24

Follow

কিভাবে বাসন মাজলে মানসিক চাপ কমে!

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: আমাদের সবারই কম বেশী মানসিক চাপ থাকে। চাকুরী থেকে শুরু করে গৃহিনীদেরও থাকে নানা মানসিক চাপ। এই মানসিক চাপ আমাদের মাথা ব্যাথারও মূল কারণ।

মানসিক চাপ কমানোর জন্য আমরা নানা ধরনের কাজ করে থাকি। ঘুরতে চাওয়া, টিভি দেখাসহ নানা ধরনের কাজের প্লান করা হয়।

এই বিষয়ে দারুন একটা সমাধান দিয়েছেন গবেষকরা। জানতে চান ?

বাসন মাজুন। মনোযোগ দিয়ে বাসন মাজতে শুরু করেন। এতে মন ভালো হয়ে যাবে।

যারা রান্নাঘরে বাসন মাজতে ভয় পান, তারা এবার লম্বা একটা শ্বাস নিয়ে কাজে নেমে যেতে পারেন।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গবেষকেরাবলেছেন, বাসন মাজলে মানসিক চাপ কমে যায়।

বাসন মাজার বিষয়টি খুঁজে দেখতে এ গবেষণা চালান গবেষকরা। মাইন্ডফুলনেস সাময়িকীতে প্রকাশিত হয়েছে গবেষণাসংক্রান্ত নিবন্ধ।

নিবন্ধের অন্যতম লেখক হ্যানলি বলেন, ‘আমার আগ্রহের জায়গায় ছিল কীভাবে আমাদের সাংসারিক কাজকর্মকে মন প্রশান্তির জায়গা হিসেবে তুলে ধরা যায়, তা নিয়ে কাজ করা। বিশেষ পরিস্থিতিতে আমাদের গবেষণায় অংশ নেওয়া স্বেচ্ছাসেবকদের ক্ষেত্রে আমরা ইতিবাচক ফল পেয়েছি।

আরও পড়ুন: 

৫১ জন শিক্ষার্থীকে নিয়ে এ গবেষণা চালানো হয়। এতে দেখা যায়, যারা বাসন মাজার সময় সাবানের গন্ধ, পানির উষ্ণতা কিংবা বাসনের স্পর্শে মনোযোগ দিয়েছিলেন, তাদের ক্ষেত্রে ২৭ শতাংশ পর্যন্ত স্নায়ুচাপ কমে গিয়েছে। অন্যদিকে ২৫ শতাংশ পর্যন্ত উৎসাহ ফিরে পেয়েছে।

এভাবে, আপনার এভাবে আপনাদের মানসিক চাপটি কমেয়ে ফেলতে পারবেন।

google news newsasia24

ফলো করুন

শীতে সুস্থ থাকতে এই ৮ টি খাবার অব্যশই খাবেন! জেনে নিন বিস্তারিত..

লিমা পারভীন: শীতকালে সুস্থ থাকতে হলে বাড়তি কিছু নিয়ম মেনে চলতে হবে।

শীতকাল যেন সর্দি, কাশি আর গলাব্যথায় না কেটে যায়, তার জন্য নিয়ম করে খেতে হবে কয়েকটি খাবার।

১. পাতিলেবু, মোসম্বি ও কমলা যেমন জোগান দিতে পারে শরীরের প্রয়োজনীয় ভিটামিন সি-এর, তেমনই মেটাতে পারে ফাইবারের ঘাটতি। শরীরে ভিটামিন ‘সি’ এর চাহিদা পূরণ করতে ‘সাইট্রাস’ জাতীয় ফলের জুড়ি মেলা ভার।

২. পেয়ারাতেও থাকে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি, পটাশিয়াম ও ম্যাগনেশিয়াম।

WINTER-SAFE-HEALTH-8-TIPS-NEWSASIA24

৩. অ্যান্টি-অক্সিড্যান্টে ভরপুর ও ক্যানসার প্রতিরোধী গুণে সমৃদ্ধ পালং শাক কিন্তু শীতকালে সত্যিই হয়ে উঠতে পারে ‘সুপার ফুড’। ভিটামিন ও মিনারেলস তো রয়েছেই, তার সঙ্গে বাড়তি ওজন কমাতেও অত্যন্ত কার্যকর সবুজ পালং শাক।

৪. শীতে শরীরের শক্তি বৃদ্ধি করতে ও তাজা রাখতে সিদ্ধ ডিমের ভূমিকা অনন্য। ডিম পুরো বিশ্বে সবচেয়ে পরিচিত ও জনপ্রিয় একটি খাবার। এটিতে রয়েছে অনেক বিস্ময়কর উপাদান, যা শরীরের জন্য অনেক উপকারি এইজন্যই এটি খুব জনপ্রিয়। ডিমের মধ্যে রয়েছে ৯টি প্রয়োজনীয় অ্যামাইনো এসিড। ডিমে রয়েছে বিভিন্ন ভিটামিন, যেমন—বি২, বি১২, এ ও ই; রয়েছে জিংক, ফসফরাস এবং প্রয়োজনীয় মিনারেল।

আরও পড়ুন>>বাবা-মায়ের ‘অসচেতনতায়’ ভয়াবহ রুপ নিচ্ছে মৃগী রোগ

৫. শীতকালে বাজারে প্রচুর পরিমাণে সবজি দেখা যায়। শীতকালীন সবজির মধ্যে গাজর অন্যতম। যদিও এখন সারাবছরই প্রায় গাজর চোখে পড়ে। গাজরকে বলা হয় সুপার ফুড। গাজরে রয়েছে শক্তি, শর্করা, চিনি, খাদ্যে ফাইবার, প্রোটিন। এইজন্যই এটির একটি পুষ্টিগুণ সম্পন্ন খাবারের মধ্যে অন্যতম।

৬. শাক-সবজিকে এককথায় শীতের খাবার বলে থাকে। শীতকালে লালশাক, পালং শাক, পুঁই শাক, বাঁধাকপি, ফুলকপি, টমেটোসহ অনেক ধরনের শাক-সবজি পাওয়া যায়। শীতের সময় এইগুলো বেশি পরিমাণে খাওয়া প্রয়োজন। কারণ এই শাক-সবজিতে রয়েছে অনেক ধরনের ভিটামিন, প্রোটিন, ক্যালসিয়াম ও পটাশিয়াম সহ আরও কার্যকরী উপাদান। যা শরীর সুস্থ রাখতে, শক্তি বৃদ্ধি করতে, শরীরের গঠন বাড়াতে ও মন সতেজ রাখতে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

আরও পড়ুন:

৭. মধুর উপকারিতা সবারই জানা। শীতের সময় দেহ সুস্থ রাখতে মধুর ভূমিকা অনন্য। এটি অনেক ধরনের রোগ প্রতিরোধ করে থাকে। এবং এর প্রয়োজনীয়তা দেখে প্রায় সব ডাক্তাররাই বলেছেন নিয়মিত মধু খাওয়ার জন্য। ঠান্ডা প্রতিরোধে মধু খুবই উপকারি। মধুতে রয়েছে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান। এটি ব্যাকটেরিয়া ও ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করে। ঘুমানোর আগে বা সকালের নাশতার সাথে মধু মিশিয়ে খেতে পারেন।

৮. সবুজ চায়ে রয়েছে শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান। শীতের দিনে দুই থেকে তিন কাপ সবুজ চা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করবে।

google news newsasia24