শিরোনাম

লাইফ স্টাইল

কিশমিশের ৭ টি উপকারিতা

লিমা পারভীন: স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে অন্যতম উপকারী খাবার হচ্ছে কিশমিশ। কিশমিশ খালি মুখে বা পানি দিয়ে ভিজিয়ে খেলে স্বাস্থ্য এর জন্য অনেক উপকার ।

বিভিন্ন খাবারে কিশমিশ যোগ করলে যেন খাবারের স্বাদও কয়েকগুণ বেড়ে যায়। এছাড়া চীনাবাদাম, আলমন্ড বা কাজুবাদামের মতো অন্য ড্রাই ফ্রুটসের স্বাদ ভালো না লাগলে সেগুলোর সঙ্গে কিশমিশ চিবিয়ে খেতে পারেন। তাতে মিলবে বাড়তি স্বাদ।

আমাদের মধ্যে কিশমিশ অনেক পরিচিত হলেও এটির গুণাবলি অনেকেরই অজানা। জেনে নিন কিশমিশের উপকারিতা-

১. গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় উপকারী: কিশমিশে ভালো মাত্রায় পটাশিয়াম ও ম্যাগনেসিয়াম থাকে। আর এ উপাদানগুলো অ্যাসিডিটি কমাতে সাহায্য করে।

২. রক্তস্বল্পতায় উপকারী: কিশমিশে প্রচুর পরিমাণে আয়রন এবং ভিটামিন বি-কমপ্লেক্স থাকে। এ কারণে এটি শরীরে রক্ত বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। বিশেষ করে, কিশমিশে থাকা তামা লোহিত রক্তকণিকা তৈরিতে সাহায্য করে।

7-benefits-of-raisins-newsasia24

৩. হজমে উপকারী: নিয়মিত কিছু পরিমাণে কিশমিশ খেলে তা পেট ভালো রাখদতে সহায়তা করতে পারে। এতে ভালো পরিমানে ফাইবার থাকার কারণে তা পানির উপস্থিতিতে ফুলে উঠতে শুরু করে আর পেটে রেচক প্রভাব দেয় ও কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সাহায্য করে।

৪. ক্যান্সার প্রতিরোধে উপকারী: কিশমিশে ক্যাটেচিং নামের একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে। এটি শরীরকে ফ্রি র‌্যাডিক্যাল কার্যকলাপ থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। আর অনেক সময় এ কার্যকলাপটি টিউমার এবং কোলন ক্যান্সারের কারণও হতে পারে।

৫. সংক্রমণ দূর করতে সাহায্য করে: কিশমিশে পলিফেনলিক ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট নামের একটি উপাদান থাকে। এটি মূলত একটি অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। সেই সঙ্গে এটি অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য প্রদর্শন করায় তা জ্বরের ঝুঁকি কমাতে এবং ব্যাকটেরিয়াকে মেরে ফেলতে সাহায্য করে। তাই নিয়মিত কিশমিশ খেলে তা ঠাণ্ডা এবং অন্যান্য সংক্রমণ থেকে রক্ষা করতে পারে।

আরও পড়ুুন:

৬. ত্বকের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী: ত্বকের কোষকে যে কোনো ক্ষতি থেকে রক্ষা করেতে অনেক উপকারী বূমিকা পালন করে কিশমিশ। এতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ত্বকের কোষ, কোলাজেন এবং ইলাস্টিনের ক্ষতি থেকে ফ্রি র‌্যাডিকেলগুলোকে বাধা দেয়। এর ফলে এটি বলি, সূক্ষ্ম রেখা ও ত্বকে দাগ দেখা দেওয়ার সমস্যাসহ বার্ধক্যের লক্ষণ অনেকটা বিলম্ব করতে সহায়তা করে।

৭. ওজন বৃদ্ধিতে উপকারী: ওজন বাড়াতে চাইলে সেরা একটি উপায় হতে পারে কিশমিশ খাওয়া। এই ড্রাই ফ্রুটে ফ্রুক্টোজ ও গ্লুকোজ থাকার কারণে এটি শরীরে প্রচুর শক্তি দিতে পারে।

google-news-channel-newsasia24

Follow

ভিটামিন ই ক্যাপসুলের পরিবর্তে খান এই ৫ খাবার

লিমা পারভীন: চুল ও ত্বকের যত্নে আমরা ভরসা করি ভিটামিন ই ক্যাপসুলের উপর। তবে কৃত্রিম উৎসের ভিটামিন ই-তে সম্পূর্ণ নির্ভর না করলেও হবে। দীর্ঘদিন ক্যাপসুল ব্যবহার না করাই ভাল। প্রাকৃতিক উৎস থেকেই পেতে পারেন ভিটামিন ই।

এই ৫ টি খাবারেই আপনি পেতে পারেন ভিটামিন ই’র গুণ:

১. বাদাম: ভিটামিন ই ক্যাপসুলের বিকল্প খাবারের মধ্যে অন্যতম জনপ্রিয় একটি খাবার হলো বাদাম। বাদামে ভিটামিন ই-র সঙ্গে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন, ফাইবার, পটাশিয়াম ও ম্যাগনেশিয়াম। তাই ভিটামিন ই ক্যাপসুলের বিকল্প খাবার হিসেবে বেছে নিতে পারেন বাদাম। বিশেষ করে কাজু, আমন্ড, আখরোট ভিটামিন ই সমৃদ্ধ।

Eat-these-5-foods-instead-of-vitamin-E-capsules-2newsasia24

২. ব্রকলি: শীতের এ মৌসুমে বাজারে সাদা ফুলকপির সঙ্গে দেখা মিলছে সবুজ ব্রকলিরও। ফুলকপির মতো দেখতে সবুজ ব্রকলিতেই লুকিয়ে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট আর ভিটামিন ই। এছাড়া ব্রকলিতে থাকা জিঙ্ক আর কপারের মতো উপাদান ত্বকের সংক্রমণ রুখতে সাহায্য করে। তাই ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে প্রিবায়োটিক ফাইবার ও ভিটামিন সি-ও ব্রকলিতে।

৩. অলিভ অয়েল: অলিভ অয়েল ভিটামিন ই-তে ভরপুর। রান্নায়, সালাদে ভাল মানের অলিভ অয়েল হতে পারে আপনার ভিটামিন ই যোগানদাতা।

আরও পড়ুুুুুন:

৪.হুইট জার্ম অয়েল: গমের শাঁস থেকে তৈরি করা হয় এই তেল। এতে রয়েছে ভিটামিন ই ও লিনোলেইক অ্যাসিড। আর এই দুই উপাদানের কারনে অন্যান্য সব তেল কে পিছনে ফেলে চুলের জন্য এত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে এই হুইট জার্ম অয়েল। এই তেলে যথেষ্ট পরিমাণ ভিটামিন থাকায় চুল ও ত্বকের যত্নে ভিটামিন ই ক্যাপসুলের বিকল্প এটি।

৫. অ্যাভোকাডো: ত্বকে বয়সের ছাপ কমাতে সাহায্য করে অ্যাভোকাডো। ভিটামিন ই ক্যাপসুলের বিকল্প এ ফলটিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ই।

google-news-channel-newsasia24

Follow

ভুলেও শীতে মোজা পরে ঘুমাবেন না

লিমা পারভীন: সারা দেশে শীত পড়ছে। কোথাও তীব্র, কোথাও একটু কম। সোয়েটার-জ্যাকেট আলমারি থেকে আগেইনামানো হয়েছে। মোজা পড়তে শুরু করেছেন কেউ কেউ। আবার শীতের রাতে ঠাণ্ডা থেকে বাঁচতে অনেকেই পায়ে মোজা পরে ঘুমান। বেশ আরামও লাগে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, রাতে মোজা পরে শোয়ার অভ্যাস আরামদায়ক হলেও স্বাস্থ্যকর নয়। এতে ঘুমের ওপর প্রভাব পড়তে পারে। তারতম্য হতে পারে হৃদস্পন্দনের। এ অভ্যাসের ফলে আরও কিছু সমস্যা হয়। শরীরে রক্ত চলাচল ব্যাহত হয়। এর ফলে শরীরে রক্ত জমাট বাঁধতে পারে। রক্ত জমাট বাঁধা শরীরের পক্ষে ভালো নয়।

আরও পড়ুন:

ত্বকের জন্য উপযুক্ত নয় এমন কাপড়ে তৈরি মোজা দীর্ঘক্ষণ পরে থাকলে ত্বকে নানা রকম সমস্যা দেখা যায়। সেক্ষেত্রে সুতির মোজা ব্যবহার করা যায়। আবার মোজা খুব আঁটসাঁট হলে শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে যেতে পারে। ঘুমের সময় অস্বস্তি হতে পারে। তাই ঘুমোনোর আগে মোজা খুলে রাখাই ভালো।

google-news-channel-newsasia24

Follow

মরিচ বেশি খেলে আয়ু বাড়ে

লিমা পারভীন: গত কয়েক বছরে স্পাইসি ফুড বা ঝালজাতীয় খাবার নিয়ে বেশ কয়েকটি গবেষণায় দেখা যায়, ঝাল খাবার বা মরিচ যারা বেশি খেয়েছেন তারা বেশি দিন বেঁচেছেন।

প্রায় ৫ লাখ প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের ওপর পরিচালিত এক গবেষণায় প্রমাণ হয়েছে, যারা ঝাল খাবার খান না তাদের তুলনায় যারা ঝাল খাবার খান তাদের মৃত্যুঝুঁকি কমেছে প্রায় সাত বছর পর্যন্ত।

Eating-more-pepper-increases-life-expectancy-newsasia24

এখানে একটি বিষয় গবেষকরা উল্লেখ করেছেন, ঝাল খাবারে উপকারিতা আসে মূলত ক্যাপসেইসিন নামক উপাদান থেকে। এটি একটি সক্রিয় জৈব উপাদান যা মরিচে পাওয়া যায়। এছাড়াও ক্যাপসেইসিন চর্বি কমায়, সংক্রামক ব্যাধির সঙ্গে লড়াই করে। অপরদিকে কিডনি, ফুসফুস ও হৃৎপিণ্ডকে সুস্থ রাখে এ উপাদানটি।

ঝাল খাবারের প্রতিরক্ষামূলক উপাদান কাপসেইসিনের ভূমিকার প্রমাণ সাপেক্ষে ক্লিনিক্যাল ইনভেস্টিগেশন জার্নালে একটি গবেষণা প্রক‍াশিত হয়েছিল। যেখানে গবেষকরা দেখিয়েছেন, মরিচের মধ্যকার রাসায়নিক এ উপাদানটি পাকস্থলীর কোষকে বিভিন্ন উদ্দীপকে সাড়া দিতে সক্রিয় করে তোলে। ফলে টিউমার বেড়ে উঠতে পারে না।

আরও পড়ুন:

লস এঞ্জেলসের ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফল হিউম্যান নিউট্রিশনের এক গবেষণায় বলছে, ঝালজাতীয় খাবার শরীরের বাড়তি ক্যালরি পুড়িয়ে ফেলতে সাহায্য করে। এক চা চামচেরও কম লাল মরিচ ক্ষুধা কমায়।

গবেষণায় আরও বলেছে, যারা সপ্তাহে ছয় দিন কাঁচামরিচ ও ঝালজাতীয় খাবার খান তাদের ক্যানসার ও মৃত্যুঝুঁকি ১১ শতাংশ পর্যন্ত কমে।

google-news-channel-newsasia24

Follow

ভাল ঘুমের জন্য শয়নকক্ষে রাখতে পারেন এই ৪ গাছ

লিমা পারভীন: বর্তমানে রাত জাগার বদঅভ্যাস ধরেছে অনেকের। কারনে অকারণে রাত জেগে জেগে ভয়াবহ পরিণাম ডেকে আনছে এই বদঅভ্যাস।

স্মার্টফোনে রিলস দেখা, স্ক্রল করার অভ্যাসে পালিয়ে গেছে ঘুম। ফলাফল সারাদিন এক আজব অবসাদে ভোগা। তবে নিদ্রা ফেরত আনতে ভুলেও ঘুমের ওষুধ, স্নায়ু শান্ত করার ওষুধ খাবেন না।

প্রাকৃতিক উপায়ে শোবার ঘরকে ঘুমের উপযোগী করতে পারেন। এই পদ্ধতি কাজে আসতে পারে। শোবার ঘরটা ঘুম সহায়কা বানাতে ঘরে রাখতে পারেন ৪টি উপকারি গাছ। এজন্য খুব একটা জায়গাও লাগবে না।

১. অ্যালোভেরা গাছ: টেবিলের কর্নারে ছোট্ট একটা টবে রাখুন অ্যালোভেরা গাছ। এই গাছের উপকারিতা অনেক। ঘরের হাওয়া শুদ্ধ করতে এই গাছ দারুণ কাজ করে। শুধু তাই নয়, এই গাছের হালকা একটা গন্ধ আপনাকে ঘুমাতে সাহায্য করবে।

You-can-keep- these-4-plants-in-the-bedroom-for-good-sleep2-newsasia24

২. কামিনি ফুলের গাছ: বেডরুমে জানালার পাশে যদি ব্যালকনি থাকে সেখানে রাখুন কামিনি ফুলের গাছ। ঘরের ভেতরে রাখতে চাইলে বনসাই কামিনি গাছ ব্যবহার করুন। কামিনি ফুলের গন্ধে ঘুম আসতে কাজে দেয়। তবে অবশ্যই খাট থেকে দূরে রাখুন এই গাছের টব।

 

৩. চামেলি ফুলের গাছ: ছোট্ট একটা টবে রাখুন চামেলি ফুলের গাছ। চামেলি ফুলের গন্ধ স্ট্রেস দূর করতে দারুণ কাজ করবে, স্নায়ু রাখবে শান্ত। আর এর ফলে ঘুম হবে দারুণ।

You-can-keep- these-4-plants-in-the-bedroom-for-good-sleep3-newsasia24

৪. বাঁশগাছ: ঘরের এক কোণায় বড় একটা টবে রাখুন ঘর সাজানোর ছোট আকৃতির বাঁশগাছ। দেখবেন, গোটা ঘরে আবহওয়াই বদলে যাবে। বাঁশগাছ ঘরের হাওয়াকে শুদ্ধ করতে দারুণ কাজ করে। বেশ একটা ঠাণ্ডা প্রশান্তির পরশ এনে দেয় শয়নকক্ষে।

আরও পড়ুন:

তবে শুধু গাছ নয়, বদলে ফেলুন কিছু অভ্যাসও। রাতে শোয়ার আগে চা বা কফি পান করবেন না। ঘুমাতে যাওয়ার ২ ঘণ্টা বা তার আগে একটি কলা খেতে পারেন। আর চেষ্টা করুন কোনও একটি বইয়ের ১০ পাতা পড়তে। দেখবেন মারাত্মক নিদ্রাহীনতায় না ভুগলে ঘুম আসবেই।

google-news-channel-newsasia24

Follow

শীতকালে বিয়ে করার সুবিধা

লিমা পারভীন: শীত হলো বিয়ের মৌসুম। বছরের অন্যান্য সময়ের তুলনায় শীতেই বেশিরভাগ মানুষেরা বিয়ে করেন। বিয়ের মতো এই বিপুল আয়োজন করতে লোকবলও লাগে প্রচুর। ফলে শীতের সময়ে বিয়ে করার অনেক সুবিধা আছে। বছরের এ সময়টাতে সবার ছুটি থাকে।

এ কারণে বিভিন্ন উৎসব ও আয়েজনে পরিবার, বন্ধুবান্ধবসহ সবাইকে একসঙ্গে পাওয়া যায়। বিয়ের মেকআপ থেকে শুরু করে বিরেয় বাড়ির খাওয়া-দাওয়া শীতকালে সবটাই ভীষণ স্বস্তিদায়ক।

Advantages-of-getting-married-in-winter-newsasia24

বিয়েতে কনের সাজগোজ আকর্ষণের মূল কেন্দ্রবিন্দুতে থাকে। কনে কী বেনারসী পরেছেন, কেমন রূপটান করেছেন, সবটাই অত্যন্ত কৌতূহলের একটি বিষয়। অনেক সময় বিয়ের লগ্ন অনেক রাতে থাকে। ফলে কনের সাজগোজ ঠিক থাকা জরুরি। গরমের তুলনা শীতে রূপটান দীর্ঘস্থায়ী হয়।

বিয়ে মানেই জমিয়ে খাওয়া দাওয়া। বিয়ে বাড়ির খাবার হয় তেল-ঝাল ও মসলাযুক্ত। গরমকালে এসব খাবার শরীরে বেশি প্রভাব ফেলে। তাই শীতকালে বিয়ে করলে এ ধরনের খাবার খাওয়া যায় নিশ্চিন্তে।

শীতকালে বিয়ে করলে বিদ্যুতের খরচে খানিকটা হলেও কমানো যায়। কারণ শীতকালে ফ্যান বা এসির ঝামেলা থাকে না। তাছাড়া অতিরিক্ত খাবার নষ্ট হয়ে যাওয়ারও আশঙ্কা কমে। অন্যদিকে শীতে গাঁদা, ডালিয়া ও গোলাপসহ বাহারি ফুলের দেখা মেলে। এ কারণে সহজলভ্যেই মেলে এসব ফুল। তাই বিয়ের ডেকোরেশনে ফুলের খরচও একটু কমে।

আরও পড়ুন:

বিয়েবাড়িতে সাজগোজ মানেই জমকালো হবে। ভেলভেট বা সিল্কের পোশাক পরলে বিয়েবাড়িতে তা বেশ মানানসই হয়। তবে গরমকালে এ ধরনের কাপড় পরা যায় না। তবে শীতকালে ভেলভেটের শাড়ি বা গাউন পরা যায়।

google-news-channel-newsasia24

Follow

সুস্বাদু ফুলকপির পায়েস রেসেপি

লিমা পারভীন: শীতকালে বাজারে ফুলকপি ভরপুর। দামে সস্তা হলেও স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী হলো ফুলকপি। তরকারি থেকে শুরু করে পাকোড়াসহ নানা ধরনের পদ তৈরি করা যায়।

আপনি চাইলে ফুলকপির মিষ্টান্ন পদও খেতে পারবেন। ফুলকপি দিয়ে সহজেই তৈরি করে নিতে পারেন পায়েস।

Delicious-Cauliflower-Pies-Recipe2-newsasia24

জেনে নিন ফুলকপির পায়েস তৈরির সহজ রেসিপি-

উপকরণ:
১. ফুলকপি ১টি ২. দুধ ২ লিটার ৩. ভাঙা বাসমতি চাল অর্ধেক কাপ ৪. কনডেন্সড মিল্ক আধা কাপ ৫. খেজুরের গুড় আধা কাপ ৬. এলাচ ৭. দারুচিনি গুঁড়া ৮. কাজু ৯. কিশমিশ ও ১০. বাদাম।

যে পদ্ধতিতে তৈরি করবেন,

প্রথমে ছোট ছোট করে কেটে নিন ফুলকপি। এবার গরম করা দুধে চাল দিয়ে সেদ্ধ করতে বসিয়ে দিন। সেদ্ধ হয়ে এলে আধা লিটার দুধ ও কেটে রাখা ফুলকপি মিশিয়ে আবারও জ্বাল দিন। সেদ্ধ হয়ে এলে চালের সঙ্গে গুড়, আধা লিটার দুধ, দারুচিনি ও এলাচের গুঁড়া মিশিয়ে দিন। ভালো করে নাড়তে থাকুন। দুধ ঘন হয়ে এলে মিশিয়ে দিন কনডেন্সড মিল্ক। এবার নাড়তে নাড়তে মিশিয়ে দিন পেস্তা বাদাম কুচি ও কিশমিশ। চাল ও ফুলকপি ভালো করে সেদ্ধ হয়ে গেলে কাজুবাদাম সাজিয়ে পরিবেশন করুন।

আরও পড়ুন:

Follow

শীতে খাবেন না যে ৭ খাবার

লিমা পারভীন: শীতে চলে বিভিন্ন রকমের পিকনিক, পার্টি, গেটটুগেদার। যেখানে প্রচুর আনন্দ, সেই সঙ্গে প্রচুর খাওয়া-দাওয়া হয়।

তবে শীতে খাবারের বেলায় একটু সতর্ক থাকুন। কারণ এসময় অনেক খাবার আছে যেগুলো আপনার পেটের সমস্যা বাড়িতে দিতে পারে। দেখা দিতে পারে অ্যাসিডিটির মত সমস্যা, বদহজম, ডায়রিয়া।

7 foods-that-should-not-be-eaten-in-winte2r-newsasia24

শীতে যে সকল খাবার খাবেন না,

১. ফাইবার সমৃদ্ধ সব খাবার বেশি পরিমাণে খেলে দেহে ফাইবার ওভারলোড হওয়ার আশঙ্কা বাড়ে। আর সেই কারণেই শরীরে গ্যাস, অ্যাসিডিটির মতো ছোটখাট সমস্যা। তাই এই সময় একদিনে অনেকবেশি শাক ও সবজির পদ না খাওয়াই ভালো।

২. বাইরের ভাজাপোড়া খাবার খেতে পছন্দ করেন কমবেশি সবাই। তবে শীতে এই খাবার আপনার বদহজমের কারণ হতে পারে। এমনকি এসব খাবারে থাকা অত্যধিক মশলা এবং লবণ হৃৎপিণ্ডের গুরুতর ক্ষতি করতে পারে।

আরও পড়ুন>>শীতকালে সুস্থ থাকতে যে খাবারগুলি খাবেন

৩. শীত বাজারে হরেক রকমের লেবু বা কমলালেবু পাওয়া যায়। একদিনে একাধিক লেবু বা কমলালেবু খেয়ে ফেলা যাবে না। এতে অ্যাসিডিটি বেড়ে যেতে পারে। দিনে ২টির বেশি খাওয়া চলবে না।

৪. পুষ্টিবিজ্ঞানীদের কথায়, বিনস হলো একটি অত্যন্ত উপকারী খাবার। এতে রয়েছে প্রোটিন, খনিজ এবং ভিটামিনের ভাণ্ডার। তাই তো শরীরের খেয়াল রাখতে নিয়মিত বিনস খেতেই হবে। কিন্তু তাই বলে আবার শীতের দিনে এক সঙ্গে অনেক বেশি বিনসের তরকারি খাবেন না। এতে পেটে ব্যথা, ডায়রিয়া এবং গ্যাস-অ্যাসিডিটির মতো জটিল অসুখে ভোগার আশঙ্কা বাড়বে।

আরও পড়ুন>>নারীদের সুস্থ থাকার ১১টি কৌশল

৫. শীতে প্রক্রিয়াজাত খাবার যেমন- মিষ্টান্ন, পানীয়, চকলেট, বেকারি আইটেম যেমন ময়দা-ভিত্তিক পাউরুটি, কেক, মাফিন কম খাওয়ার পরামর্স দিচ্ছেন পুষ্টিবিদরা। এসব খাবারে প্রচুর পরিমাণে স্যাচুরেটেড এবং ট্রান্স ফ্যাট থাকে যা অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়ার ভারসাম্যকে ব্যাহত করতে পারে এবং এর ফলে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

৬. বুকে কফ জমলে, গলা ব্যথা, সর্দি-কাশি হলে শীতের সময় চিকিৎসকরা দুগ্ধ জাতীয় খাবার না খাওয়ার পরামর্শ দেন। কারণ এসব খাবার খেলে বুকে কফ জমার প্রবণতা আরও বেড়ে যায়।

আরও পড়ুুন>> সবজি দিয়ে ‘ভেজিটেবল প্যানকেক’ তৈরির রেসিপি

৭. শীতে অসুস্থতা এড়াতে হিস্টামিনযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলা উচিত। এ ধরনের খাবারের মধ্যে ডিম, মাশরুম, টমেটো, শুকনো ফল, দই উল্লেখযোগ্য। এসব খাবার শীতের দিনে অতিরিক্ত কফ তৈরি করে।

google-news-channel-newsasia24

Follow

দাঁতের ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়ার জাদুকরি ৭ উপায়

লিমা পারভীন: দাঁতের ব্যথার সমস্যার কোনো বয়স নেই। পাঁচ বছরের শিশু থেকে শুরু করে ৬০ বছরের বৃদ্ধেরও এ ব্যথা হতে পারে। হঠাৎ যদি দাঁতে ব্যথা শুরু হয়ে যায়, দিশেহারা হয়ে আমরা ওষুধের খোঁজ করি। কিন্তু কিছু উপায় জানা থাকলে কিছু সময়ের মধ্যে এ ব্যাথা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।

চলুন জেনে নিই সেইসব জাদুকরি উপায়:

১. এক গ্লাস কুসুম গরম পানিতে ১ টেবিল চামচ লবণ মিশিয়ে মুখে নিয়ে ১ মিনিট রাখুন। এভাবে দিনে ৪ থেকে ৫ বার কুলি করলে করুন ব্যথাও কমে যায়।

7-Magical-Ways-to-Get-Rid-of-Toothache-newsasia24

২. দুটি লবঙ্গ থেঁতো করে কয়েক ফোঁটা অলিভ অয়েলের সঙ্গে মিশিয়ে দাঁতে লাগান। অথবা দুটি লবঙ্গ থেঁতো করে ব্যথার স্থানে জিভ দিয়ে চেপে রাখুন।

৩. রসুন ঘরোয়া অ্যান্টিবায়োটিক। রসুন দাঁতে তৈরি হওয়া ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়াকে ধ্বংস করে ও ব্যথা উপশমেও সহায়ক। রসুনের কয়েকটি কোয়া নিয়ে থেঁতলে সামান্য লবণ মিশিয়ে ব্যথার জায়গায় লাগান। রসুন চিবিয়েও খেতে পারেন। যন্ত্রণা কম না হওয়া পর্যন্ত প্রতিদিন লাগাতে হবে।

৪. এক টুকরা কাঁচা পেঁয়াজ চিবিয়ে দাঁতের ওপর চেপে রাখলে আরাম পাওয়া যাবে।

৫. পেয়ারা পাতা দাঁত ব্যথায় দারুণ উপকারী। দুটি পেয়ারা পাতা চিবিয়ে দাঁতে চেপে রাখুন। আরাম পাবেন।

আরও পড়ুুুুুুুুন:

৬. দূর্বা ঘাসের রস দাঁতের ব্যথা কমাতে পারে। এটা দাঁতের স্বাস্থ্য ভাল রাখতেও সহায়তা করে।

৭. অ্যালোভেরায় থাকে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল উপাদান, যা দাঁতের জীবাণুকে নষ্ট করে দেয়। অ্যালোভেরা জেল নিয়ে ব্যথার জায়গায় লাগাতে পারেন।

google-news-channel-newsasia24

Follow

শীতকালে সুস্থ থাকতে যে খাবারগুলি খাবেন

লিমা পারভীন: শীতকালে শরীর সুস্থ রাখা বেশ কঠিন কাজ। এ সময় প্রকৃতিগত পরিবর্তনের কারণে বিভিন্ন রোগবালাই যেন লেগেই থাকে । কিছু শীতের খাবার রয়েছে, যেগুলো খেলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।

শীতকালে সুস্থ থাকতে যে খাবারগুলি খাবেন:

১. শীতের সময়ে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে ঠান্ডা-কাশির মত রোগবালাই দূর করতে শীতের খাবার হিসেবে খাদ্যতালিকায় গমের তৈরি রুটি, ননীবিহীন দুধ, চর্বিহীন প্রোটিন ইত্যাদি রাখা উচিত। পাশাপাশি পর্যাপ্ত ঘুম, ব্যায়াম, কম মানসিক চাপ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে উন্নত রাখতে সহায়তা করে।

orange-health-tips-newsasia24

 

২. কমলা একটি সাইট্রাস জাতীয় ফল। শীতের খাবার হিসেবে কমলা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি ফল। এর মধ্যে রয়েছে উচ্চ পরিমাণ ভিটামিন সি ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এটি শীতকালে বিভিন্ন রোগব্যাধি থেকে শরীরকে রক্ষা করবে।

আরও পড়ুন>>নারীদের সুস্থ থাকার ১১টি কৌশল

৩. শীতের খাবার হিসেবে গাজরও বেশ ভালো। গাজর বিভিন্ন ধরনের সংক্রমণ প্রতিরোধ করে এবং শ্বাসতন্ত্রের সমস্যা কমিয়ে ফুসফুসকে সুরক্ষা দেয়।

৪. ডিমের মধ্যে রয়েছে নয়টি প্রয়োজনীয় অ্যামাইনো এসিড। এতে রয়েছে ক্যালসিয়াম ও আয়রন। বিভিন্ন সংক্রমণ থেকে প্রতিরোধে ডিম কার্যকর। ডিমে রয়েছে বিভিন্ন ভিটামিন, যেমন—বি২, বি১২, এ ও ই; রয়েছে জিংক, ফসফরাস এবং প্রয়োজনীয় মিনারেল। শীতের খাবার হিসেবে প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় তাই ডিম রাখতে পারেন।

আরও পড়ুন>>সবজি দিয়ে ‘ভেজিটেবল প্যানকেক’ তৈরির রেসিপি

৫. শীতকালে আদার চা বেশি করে খাবেন। এতে ঠান্ডা কাশি থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

 

৬. মাশরুম রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। শীতে ঠান্ডা ও ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করতে মাশরুম খুব উপকারী। তাই শীতের খাবার হিসেবে আপনার খাদ্যতালিকায় অবশ্যই মাশরুম রাখুন!

৭. জ্বর ও ঠান্ডার জাতীয় রোগব্যাধির জন্য রসুন খাওয়া ভালো। রসুন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। এ ক্ষেত্রে কাঁচা রসুন সবচেয়ে ভালো কাজ করে।

আরও পড়ুন>>জলপাইয়ের সুস্বাদু ঝুরি আচারের রেসিপি

৮. জ্বর ও ঠান্ডা প্রতিরোধে মধু সবচেয়ে নিরাপদ খাবার। শীতের খাবার হিসেবে তো মধুর কোন জুড়িই নেই। মধুর মধ্যে রয়েছে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান। এটি ব্যাকটেরিয়া ও ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করে।

৯. শীতকাল মানেই হরেক রকম সবজি। শীতের খাবার হিসেবে প্রতিদিন সবুজ পাতার সবজি রাখুন। এতে প্রচুর ভিটামিন ‘এ’, ‘সি’ ও ‘কে’ থাকে।

১০. গ্রিন টির মধ্যে রয়েছে শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান। শীতের দিনে দুই থেকে তিন কাপ গ্রিন টি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করবে।

google news newsasia24

Follow