শিরোনাম

সারাদেশ

ময়মনসিংহে ১৩ বিয়ের পর গ্রেপ্তার

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি: ময়মনসিংহে নৌবাহিনীর সদস্য পরিচয় দিয়ে ১৩ তরুণীকে বিয়ে করার অভিযোগে মহিদুল ইসলাম (২৭) নামের এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

গতকাল শুক্রবার (৯ ফেব্রুয়ারি) রাতে গাজীপুরের চন্দ্রা এলাকা থেকে সহযোগী কুদ্দুস আলীসহ (৩৫) তাকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে আজ শনিবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে জানান পুলিশ সুপার মাসুম আহমেদ ভূঞা।

গ্রেপ্তার মহিদুল মানিকগঞ্জের দৌলতপুর থানার বাসিন্দা এবং কুদ্দুস আলী ময়মনসিংহের তারাকান্দার নগুয়া গ্রামের বাসিন্দা।

পুলিশ সুপার জানান, মহিদুল নৌবাহিনীতে এমএলএস পদে দুই বছর চাকরির পর বিভিন্ন কারণে চাকরিচ্যুত হন। এরপর থেকে তিনি নৌবাহিনীর সদস্য পরিচয়ে মানিকগঞ্জে তিনটি, টাঙ্গাইলে তিনটি, কিশোরগঞ্জে এক ও ময়মনসিংহে ছয়টি বিয়ে করেন।

আরও পড়ুন:

এক প্রতিবন্ধী নারীকে বিয়ে করে সরকারি ভাতার টাকা আত্মসাৎ করেন। মানুষের সরল বিশ্বাসের সুযোগ নিয়ে একের পর এক বিয়ে করে ৫০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেন সে। মহিদুলের গ্রেপ্তারের খবরে তার ছয় স্ত্রী উপস্থিত হয়েছেন। তারা প্রত্যেকেই টাকা উদ্ধার ও মহিদুলের কঠিন বিচার দাবি করেছেন।

google-news-channel-newsasia24

Follow

রাজশাহীর কিশোর গ্যাং

রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহী মহানগরীতে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে কিশোর গ্যাং। হত্যা, সন্ত্রাসী হামলা, চাঁদাবাজি, চুরি-ছিনতাই, মাদক সেবন ও বিক্রিসহ নানা অপরাধে জড়াচ্ছে তারা। স্কুল-কলেজগামী মেয়েদের রাস্তাঘাটে উত্ত্যক্ত করছে। এতে অতিষ্ঠ নগরবাসী।

পুলিশ সূত্র জানায়, নগরীর বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায় কিশোর গ্যাংয়ের পৃষ্ঠপোষকতা করছেন রাসিকের কতিপয় কাউন্সিলর। ২ বছর আগে মহানগরীতে ৫ শতাধিক কিশোর গ্যাং সদস্যের একটি ডাটাবেজ তৈরি করেছিল রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের (আরএমপি) সাইবার ক্রাইম ইউনিট। কিন্তু নিয়মিত নজরদারির অভাবে এলাকাভিত্তিক কিশোর গ্যাং সদস্যের সংখ্যা আরও বাড়ছে।

এ বিষয়ে আরএমপি কমিশনার বিপ্লব বিজয় তালুকদার বলেন, কিশোর গ্যাং সদস্যদের নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে পুলিশ। আগে নগরীতে পাঁচ শতাধিক কিশোর গ্যাং সদস্য ছিল। এই সংখ্যা কিছুটা বেড়েছে। নতুন কোনো গ্রুপ তৈরি হচ্ছে কিনা পুলিশ সেদিকে নজর রাখছে।

পুলিশ বলছে, কিশোর গ্যাং সদস্যদের অনেকেই এসেছে সচ্ছল পরিবার থেকে। তাদের সঙ্গে জোট বাঁধছে নগরীর বস্তির কিশোর যুবকরা। এদের অনেকেরই দামি মোটরসাইকেল রয়েছে।

আরও পড়ুন>>ব্যাংক কর্মকর্তা সেজে লাখ টাকা আত্মসাৎ, গ্রেপ্তার ২

সন্ধ্যা নামলেই তারা তিনজন করে মোটরসাইকেলে উঠে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে নগরীতে । পথে কোনো পথচারী বা অটোরিকশা যাত্রীর ব্যাগ দেখলেই তারা টান দিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। গত এক মাসে এমন ২৬টি ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে।

সম্প্রতি নগরীর শাহ মখদুম থানার গাংপাড়ায় প্রতিপক্ষের আরাফাত হোসেন নামে এক কিশোরকে মারধরের পর অস্ত্র উঁচিয়ে নৃত্য করে কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা। ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা যায়, বাদ্যের তালে তালে চাইনিজ কুড়াল, ধারাল ছুরি, রাম-দা ও অন্য দেশীয় অস্ত্র নিয়ে কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা নৃত্য করছে।

পরে পুলিশ তাদের সাতজনকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতার এসব কিশোর গ্যাং সদস্য রাসিকের একজন ওয়ার্ড কাউন্সিলরের ছত্রছায়ায় এলাকায় চাঁদাবাজি করে আসছিল বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা।

আরও পড়ুন>>পাকিস্তানে সরকার গঠন নিয়ে ধোঁয়াশা

জানা গেছে, বিভিন্ন ওয়ার্ড ও পাড়া-মহল্লায় নানা নামে গড়ে উঠেছে কিশোর গ্যাং। এর মধ্যে রয়েছে, ‘টেন স্টার বয়’, ‘রাইজিং বয়’, ‘অদম্য বালক’। এসব কিশোর গ্যাং সদস্যের অনেকে সারা দিন ঘুমায়, রাত হলেই নানা অপরাধে জড়ায়।

২৯ অক্টোবর রাতে রাজশাহী রেলস্টেশন এলাকায় সশস্ত্র ছিনতাইকারীর কবলে পড়েন বাগমারার দুই কলেজ ছাত্র কৌশিক ও অভিজিৎ। ধারাল অস্ত্রের আঘাতে গুরুতর আহত হয়ে উভয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। কৌশিকের বুকে ৫০টি এবং অভিজিতের বুকে ৩০টি সেলাই দিতে হয়েছে।

আরও পড়ুন>>রাজশাহী রেল স্টেশনে যুবকের ঘুসিতে আনসার সদস্য নিহত

১৭ সেপ্টেম্বর ভোরে নগরীর রাজারহাতা এলাকায় সশস্ত্র ছিনতাইকারীর আঘাতে রাজশাহী কলেজের পরিসংখ্যান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র নিশাদ আকরাম গুরুতর আহত হন। ১৬ দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর ৩ অক্টোবর তিনি মারা যান।

গত বছরের ৭ এপ্রিল ছিনতাই করে পালানোর সময় অনিক (১৯) নামে এক কিশোর গ্যাং সদস্য নগরীর ডাবতলায় মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ঘটনাস্থলেই নিহত হয়। এ সময় তার আরেক সহযোগী মারুফ হোসেন (১৮) মারাত্মক আহত হয়।

google-news-channel-newsasia24

Follow

ব্যাংক কর্মকর্তা সেজে লাখ টাকা আত্মসাৎ, গ্রেপ্তার ২

নিজস্ব প্রতিনিধি: ব্যাংকের কর্মকর্তা সেজে মাস্টার ও ভিসা কার্ড ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে লাখ টাকা আত্মসাৎ করে একটি প্রতারক চক্রের সদস্যরা।

ব্যাংকের কর্মকর্তা সেজে মাস্টার ও ভিসা কার্ড ব্যবহারকারীদের কাছে ফোন দেন একটি প্রতারক চক্রের সদস্যরা। এরপর তথ্য হালনাগাদ, কার্ডের পিন নম্বর ও মেইল আপডেট না করার কারণে কার্ডের সেবা বন্ধ হয়ে গেছে বলে জানানো হয় ওই গ্রাহককে। এতে কোনো কোনো গ্রাহক আতঙ্কিত হয়ে প্রতারকদের কথামতো কাজ করতে থাকেন।

আর এই সুযোগে ১৬ ডিজিটের কার্ডের নম্বর, কার্ডের মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ, কার্ডের বিপরীত পাশে উল্লিখিত ৩ ডিজিটের (সিকিউরিটি পিন নম্বর) সিভিভি নম্বর সংরক্ষণ করেন চক্রের সদস্যরা। পরে গ্রাহকের কাছে কথিত ওটিপি কোড পাঠান তারা।

এরপর কৌশলে আসল ওটিপি কোড সংগ্রহ করে বিকাশ অ্যাপের মাধ্যমে ‘অ্যাড মানি’ করে টাকা হাতিয়ে নেন চক্রের সদস্যরা। এভাবে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন তারা। এমনই একটি প্রতারণা চক্রের দুই সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) সাইবার ক্রাইম ইউনিট। গ্রেপ্তাররা হলেন মো. রবিউল মিয়া ও নজরুল ইসলাম।

দিনাজপুর থেকে তাদের আটক করা হয়। এ সময় পাঁচটি মোবাইল ফোন এবং ১০টি সিম জব্দ করা হয়। এসব সিমের অধিকাংশই মিথ্য পরিচয়ে নিবন্ধিত। গতকাল শুক্রবার সিআইডির সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

সিআইডি জানায়, ভিসা ও মাস্টার কার্ড ব্যবহারকারীদের অ্যাকাউন্ট হ্যাক করে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছিল প্রতারক চক্র। এ ধরনের কয়েকটি ঘটনায় ঢাকা মহানগরীর বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা হয়।

আরও পড়ুন:

সেই মামলার ছায়া তদন্ত শুরু করে সিআইডির সাইবার ইন্টেলিজেন্স টিম। এরপর চক্রের সদস্যদের শনাক্ত করা হয়। পরে দিনাজপুরে অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করা হয় দুজনকে। তাদের স্থায়ী ঠিকানা ফরিদপুরের ভাঙ্গায়।

দুজন সম্পর্কে আত্মীয়। পুলিশের চোখ ফাঁকি দিতেই তারা দিনাজপুরে বাসা ভাড়া নিয়ে প্রতারণার কাজ করে আসছিল। সিআইডির তদন্তসংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, চক্রের এক সদস্য বিভিন্ন কার্ডধারীর মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করে।

এরপর এসব নম্বর অন্য আরেক সহযোগীর কাছে পাঠায়। এরপর তারা বিভিন্ন ব্যাংকের কার্ড ডিভিশনের কর্মকর্তা সেজে কার্ড ব্যবহারকারীদের নম্বরে কল করে।

google-news-channel-newsasia24

Follow

রাজশাহী রেল স্টেশনে যুবকের ঘুসিতে আনসার সদস্য নিহত

রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহী রেল স্টেশনে যাত্রীর ঘুসিতে মাইনুল ইসলাম (৪৫) নামের এক আনসার সদস্য নিহত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) রাত ৯টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। মইনুল গোদাগাড়ী উপজেলার মাঙ্গনপুর গ্রামের জয়েন উদ্দিনের ছেলে।

রাজশাহী রেল স্টেশন ম্যানেজার আব্দুল করিম বলেন, রাতে স্টেশনে কয়েকজন যুবক ঘোরাঘুরি করছিলেন। ওই সময় আনসার সদস্য নিষেধ করলে তারা বাগবিতণ্ডায় জড়ায়।

এক পর্যায়ে আনসার সদস্য মাইনুলকে ঘুসি মারলে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি জানান, এ ঘটনায় জড়িতদের শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে। সন্দেহজনক একজনকে আটক করা হয়েছে। এ বিষয়ে রেলওয়ে থানার ওসি গোপাল কুমারকে ফোন করে পাওয়া যায়নি।

স্টেশনে আনসারের প্লাটুন কমান্ডার দেলোয়ার হোসেনের জানান, স্টেশনে ঘোরাঘুরি করতে থাকা যুবকদের বাঁধা দিলে একজন মইনুলকে ঘুসি মারেন। তার নাক ও মুখ দিয়ে রক্ত পড়তে শুরু করে। পরে তাকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করে।

আরও পড়ুন:

পশ্চিম অঞ্চল রেলওয়ের মহা-ব্যবস্থাপক অসিম কুমার তালুকদার বলেন, আমাদের এক আনসার সদস্য মারা গেছেন। স্টেশনে তাকে কেউ ঘুসি মেরে ফেলে দিয়েছে। পুলিশ বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করছে।

google-news-channel-newsasia24

Follow

ফেসবুকে প্রেম, কোটি টাকা হারালেন নারী

নিজস্ব প্রতিনিধি: ফেসবুকে পরিচয়ের পর এক পর্যায়ে বেনজীর হোসেন (৪০) নামের এক ব্যক্তির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে এক নারীর। অভিযুক্ত ব্যক্তি নিজেকে পরিচয় দেন একজন বৈমানিক ও যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী হিসেবে।

আসলে তিনি বাংলাদেশের নড়াইল জেলার বাসিন্দা। প্রেমের সম্পর্কের জেরে ওই নারীর কাছ থেকে তিনি হাতিয়ে নিয়েছেন ১ কোটি ৯ লাখ টাকা।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী নারী মামলা দায়ের করেছেন। মামলা তদন্ত করে নড়াইল থেকে অভিযুক্ত বেনজীরকে গ্রেপ্তার করে ঢাকা মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্স ন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের সদস্যরা।

গত বছরের নভেম্বরে ভুক্তভোগী নারী রাজধানীর ওয়ারী থানায় মামলা করার কিছুদিনের মধ্যে বেনজীরকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

সিটিটিসি এক প্রতিবেদনে বলেছে, বিয়ে করার ফাঁদে ফেলে বেনজীর ভুক্তভোগী নারীর কাছ থেকে ১ কোটি ৯ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।

আরও পড়ুুুুুুুুুুুুন>>সুবর্ণচরে চুরি করতে গিয়ে মা-মেয়েকে দলবদ্ধ ধর্ষণ

জানা গেছে, গত বছর মে মাসে ভুক্তভোগী নারী ফেসবুকে শহীদ হাসান নামের একজনের কাছ থেকে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পান। ফেসবুকে বন্ধু হওয়ার পর শহীদ হাসানের সঙ্গে মেসেঞ্জারে কথা চলতে থাকে তার।

মূলত শহীদ হাসান নামক ব্যক্তিই বেনজীর হোসেন। তিনি নিজেকে একজন পাইলট পরিচয় দেন। পাশাপাশি তিনি বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিক বলে জানান। বাস করেন নিউইয়র্ক শহরে।

কথার এক পর্যায়ে নানা আবেগপ্রবণ কথাবার্তায় নারীকে ফাঁদে ফেলেন। তখন তার সঙ্গে মেসেঞ্জারে নিয়মিত কথা হয় ওই নারীর। একপর্যায়ে প্রতারক তাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন। এবং বিয়ে করে তিনি তাকে যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে যাবেন বলে আশ্বাস দেন।

আরও পড়ুন>>রাজশাহীতে আহত বন্ধুকে দেখতে গিয়ে বন্ধুই খুন

এরপর তাকে যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে যেতে পাসপোর্ট করানোর জন্য ওই নারীর কাছ থেকে একের পর এক টাকা নিতে থাকেন প্রতারক বেনজীর।

এদিকে ব্যাংকঋণ ও ধারের টাকা পরিশোধের চাপ সামলাতে না পেরে বাধ্য হয়ে ওই নারী আসামির সঙ্গে আপস করেছেন।

এ বিষয়ে তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, আমি একটি ব্যাংকে চাকরি করতাম। কিন্তু প্রতারকের খপ্পরে পড়ে চাকরি হারিয়েছি। কোটি টাকা হারানোর পর আমি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছি।

টাকা শোধ করতে পারছিলাম না। বাধ্য হয়ে আমি ৬০ লাখ টাকায় আসামির সঙ্গে আপস করেছি। আমি সেই টাকা বুঝে পেয়েছি।

আরও পড়ুুুন>>একসঙ্গে আত্মহত্যা করতে গিয়ে প্রতারনা করলেন প্রেমিকা, প্রেমিকের মৃত্যু

সিটিটিসির সাইবার টেররিজম ইনভেস্টিগেশন বিভাগের উপপরিদর্শক মো. সুমন জানান, ভুক্তভোগী নারীর সঙ্গে আসামির আপস হওয়ার বিষয়ে তিনি জানেন না।

তদন্তে ওই নারীর কাছ থেকে কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার তথ্যের সত্যতা পেয়েছেন।

google-news-channel-newsasia24

Follow

সুবর্ণচরে চুরি করতে গিয়ে মা-মেয়েকে দলবদ্ধ ধর্ষণ

নিজস্ব প্রতিনিধি: নোয়াখালীর সুবর্ণচরে ঘরের সিঁধ কেটে চুরি করতে গিয়ে মা-মেয়েকে ধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। তিনজনের চোর দলের দুজন গৃহবধূকে (৩০) ও অপরজন তার কিশোরী মেয়েকে (১১) ধর্ষণ করে।

চোররা যাওয়ার সময় গহনা এবং নগদ ১৭ হাজার টাকা নিয়ে যায়।

সোমবার (০৫ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাত ২টার দিকে উপজেলার চর ওয়াপদা ইউনিয়নের চর কাজী মোখলেস গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ধর্ষণের শিকার ওই গৃহবধূ তিন সন্তানের জননী ও কিশোরী স্থানীয় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ধর্ষণের শিকার পরিবারটি কয়েক মাস আগে হাতিয়া থেকে এসে ওই গ্রামে নতুন বসতি স্থাপন করে। ওই গৃহবধূর স্বামী পেশায় দিনমজুর। তিনি কাজের জন্য বিভিন্ন এলাকায় গেলে ২/৩ দিন পর বাড়িতে ফেরেন।

গত দুদিন আগে তিনি কাজের সন্ধানে আবারও বাইরে যান। এসময় গৃহবধূ বাড়িতে তার তিন সন্তান নিয়ে অবস্থান করছিলেন।

সোমবার দিবাগত রাত ২টার দিকে বসতঘরের সিঁধ কেটে প্রথমে এক চোর ভেতরে প্রবেশ করে ঘরের দরজা খুলে দিলে বাকি দুই চোর ঘরে প্রবেশ করে।

আরও পড়ুুন>>রাজশাহীতে আহত বন্ধুকে দেখতে গিয়ে বন্ধুই খুন

এদের মধ্যে দুজন ওই গৃহবধূকে এবং অপরজন কিশোরী মেয়েকে ধর্ষণ করে। চোরের দল যাওয়ার সময় গৃহবধূর হাত-পা ও মুখ বেঁধে মা-মেয়ের নাকফুল ও কানের দুল এবং নগদ ১৭ হাজার টাকা নিয়ে যায়।

শিশুদের চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন গৃহবধূর বাঁধন খুলে দেয় ও থানায় খবর দেয়।

চর জব্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম জানান, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। গৃহবধূ ও তার মেয়েকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। মামলা প্রক্রিয়াধীন।

আরও পড়ুন>>গাজীপুর মোজা কারখানায় ভয়াবহ আগুন, নিয়ন্ত্রণে ৭ ইউনিট

জেলা পুলিশ সুপার মো. আসাদুজ্জামান জানান, আমরা ঘটনাস্থলে রয়েছি। তদন্ত শুরু হয়েছে। অভিযুক্তদের ধরতে অভিযান শুরু হয়েছে। আশা করি দ্রুতই বিস্তারিত জানতে পারব।

এর আগে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের রাতে নোয়াখালীর সুবর্ণচরে গৃহবধূকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছিল। আলোচিত ওই ঘটনার মামলায় গতকাল ১০ জনের ফাঁসি রায় দেন আদালত।

আরও পড়ুন>>ময়মনসিংহে অটোরিকশা-পিকআপের সংঘর্ষ: নিহত ২

একই সঙ্গে ছয় আসামির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরও ২ বছরের কারাদণ্ডের আদেশ দেওয়া হয়।

google-news-channel-newsasia24

Follow

খোকসা-ওসমানপুর সংযোগ সেতুর নির্মাণ কাজের উদ্বোধন (ভিডিও)

নাজমুল হাসান, কুষ্টিয়া প্রতিনিধি: কুষ্টিয়ার খোকসা-ওসমানপুর সংযোগ সেতুর নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করা হয়েছে। আজ সোমবার (০৫ ফেব্রুয়ারি) সকালে ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেন সাবেক প্রধান বিচারপতি হাছান ফয়েজ সিদ্দিকী।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কুষ্টিয়া-৪ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রউফ, জেলা প্রশাসক এহতেশাম রেজা,জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সদর উদ্দিন খান,জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা জাহিদ হোসেন জাফর,কুমারখালী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান খানসহ আওয়ামী লীগ অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন: 

 

গড়াই নদীর উপর নির্মিত ২ লেনের ৯৫০ মিটার দৈর্ঘ্যর পিসি গার্ডার সেতুর নির্মাণ ব্যায় ধরা হয়েছে ২৭৭ কোটি টাকা। সেতুর নির্মাণ কাজ সমাপ্ত হলে ঝিনাইদহ ও মাগুরার সাথে খোকসার যোগাযোগ ব্যবস্থার প্রভূত উন্নয়নের পাশাপাশি ব্যবসা বানিজ্য সফলতা আসবে বলে জানা গেছে।

google-news-channel-newsasia24

রাজশাহীতে আহত বন্ধুকে দেখতে গিয়ে বন্ধুই খুন

রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহীর বাগমারায় প্রতিপক্ষের হামলায় আহত বন্ধুকে ঢাকা থেকে দেখতে গিয়ে খুন হয়েছেন সোহাগ আলী (২৪) নামের যুবক। তার বাড়ি যশোরের মণিরামপুরে।

শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) রাতে উপজেলার ঝিকড়া ইউনিয়নে মরুগ্রাম ডাঙ্গাপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। আহত বন্ধু মনোয়ার হোসেনের সঙ্গে সোহাগ ঢাকায় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতেন।

স্থানীয়রা জানান, বাগমারার ঝিকড়া ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও উপজেলা কৃষক লীগের নির্বাহী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলামের সঙ্গে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদের বিরোধ চলে আসছিল।

গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নজরুল স্বতন্ত্র প্রার্থী এবং আসাদুল দলীয় প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেন। এনিয়ে তাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব আরও প্রকট হয়। এরই মধ্যে সপ্তাহখানেক আগে ছুটিতে ঢাকা থেকে বাড়ি আসেন নজরুল ইসলামের ভাতিজা মনোয়ার হোসেন।

আরও পড়ুন: 

মনোয়ার শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে নজরুলের লিজ নেওেয়া পুকুর পাড়ে নিজেদের সরিষা ক্ষেতে যান। এসময় প্রতিপক্ষ আসাদুল ইসলামের লোকজন মনোয়ারের সঙ্গে বাগবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন।

একপর্যায়ে তারা মনোয়ারকে পিটিয়ে হাত ভেঙে দেন। এসময় মারামারিতে আসাদুলের পক্ষের মুসলেম নামের একজন আহত হন। পরে মনোয়ারকে উদ্ধার করে নওগাঁর আত্রাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন পরিবারের লোকজন। এনিয়ে দুপক্ষের মধ্যে দিনভর উত্তেজনা চলছিল।

এদিকে, মনোয়ারের ওপর হামলা ও আহত হওয়ার খবর পেয়ে তাকে দেখতে ঢাকা থেকে আসেন তার চাচাতো ভাই ইমরান এবং সহকর্মী সোহাগ ও রনি। তারা ঢাকা থেকে এসে প্রথমে সন্ধ্যায় আত্রাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মনোয়ারকে দেখতে যান।

এরপর রাত ৯টার দিকে আত্রাই থেকে সিএনজিচালিত একটি অটোরিকশা নিয়ে ডাঙ্গাপাড়া গ্রামে মনোয়ারে বাড়িতে যান।

তারা এলাকায় গেলে গ্রামে বহিরাগত সন্ত্রাসী ভাড়া করে নিয়ে আনা হয়েছে বলে প্রচার চালান আসাদুল ইসলামের লোকজন। এনিয়ে গ্রামে আবারও উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। একপর্যায়ে আসাদুলের লোকজন ডাঙ্গাপাড়া মোড়ে তাদের ওপর হামলা করেন।

এসময় তারা অটোরিকশাচালকসহ তিনজনকে ঘিরে রাখেন। সেখান থেকে দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করলে সোহাগকে মাঠের মধ্যে ধরে পিটিয়ে ও কুপিয়ে হত্যা করা হয়। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয়।

আওয়ামী লীগ নেতা নজরুল ইসলাম বলেন, ‘আমি ইজারা নিয়ে দুটি খাস পুকুরে মাছচাষ করি। ভোটের দিন বিকেলে আমার ছোট ভাই সুজনকে মারধর করে আসাদুল ইসলামের লোকজন। ভোটের পরের দিন আসাদুল আমাকে ওই দুই পুকুরে যেতে নিষেধ করে এবং মাছ মেরে বিক্রি করে দেয়।

আরও পড়ুন ;

ময়মনসিংহে অটোরিকশা-পিকআপের সংঘর্ষ: নিহত ২

নীল তিমির জিহ্বার ওজন কত? জেনে নিন, ১৮টি মজার তথ্য!

অনলাইনে ইনকাম করার ১৬ টি উপায়

২৬ জানুয়ারি আমার আরেক ভাই নুরুল ইসলামের সেচ মেশিন বন্ধ করে দেয়। এনিয়ে ওইদিন থানায় একটি অভিযোগ দেওয়া হয়। কিন্তু পুলিশ কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। এরপরই আমার ভাতিজার বন্ধুকে প্রকাশ্যে হত্যা করা হলো।’

এ বিষয়ে জানতে যোগাযোগের চেষ্টা করেও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুল ইসলামের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

বাগমারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অরবিন্দ সরকারকে কল করলে তিনি ধরেননি।

তবে রাজশাহী জেলা পুলিশের মুখপাত্র ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) রফিকুল আলম বলেন, খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায় এবং স্থানীয় লোকজনের রোষানলে থেকে তিনজনকে উদ্ধার করে নিজেদের হেফাজতে নেওয়া হয়।

তবে এর আগেই মাঠের মধ্যে একজনকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়।

তিনি আরও বলেন, নিহত সোহাগসহ তারা রাতে কেন গ্রামে এলেন এবং সেখানে কী ঘটেছে তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এ ঘটনায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

google-news-channel-newsasia24

google-news-follow-us-newsasia24

 

গাজীপুর মোজা কারখানায় ভয়াবহ আগুন, নিয়ন্ত্রণে ৭ ইউনিট

গাজীপুর প্রতিনিধি: গাজীপুরের শ্রীপুরে গ্লোব গ্লোভস (বাংলাদেশ) ম্যানুফ্যাকচারিং লিমিটেডে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। ইতিমধ্যে ফায়ার সার্ভিসের ৭টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে।

আজ শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) বিকেল ৪টার দিকে শ্রীপুরের রাজাবাড়ি ইউনিয়নের গ্লোব গ্লোভস (বাংলাদেশ) ম্যানুফ্যাকচারিং লিমিটেডে কারখানায় এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে ।বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গাজীপুর ফায়ার সার্ভিসের উপ সহকারী পরিচালক মো. আব্দুল্লাহ আল আরেফিন।

জানা গেছে, গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার রাজাবাড়ি ইউনিয়নের সাটিয়াবাড়ি এলাকায় একটি মোজা তৈরির কারখানায় আগুন লাগে। পরে এটি আশপাশে ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে ৭টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে কাজ করেছে।

আরও পড়ুন:

গাজীপুর ফায়ার সার্ভিসের উপ সহকারী পরিচালক মো. আব্দুল্লাহ আল আরেফিন জানান, গ্লোব গ্লোভস (বাংলাদেশ) ম্যানুফ্যাকচারিং লিমিটেড কারখানার ভবনের দুই তলা ও তিন তলায় আগুন লাগে।

আগুন নিয়ন্ত্রণে কাপাসিয়া, জয়দেবপুর, রাজেন্দ্রপুর ও শ্রীপুর ফায়ার সার্ভিসের ৭টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে। প্রাথমিকভাবে আগুন লাগার ও হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

google-news-channel-newsasia24

Follow

ময়মনসিংহে অটোরিকশা-পিকআপের সংঘর্ষ: নিহত ২

ময়মনসিংহ   প্রতিনিধি: ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলায় অটোরিকশা ও মুরগিবাহী পিকআপ ভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে দুই নারী পোশাক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে।

এ ঘটনায় অটোরিকশার আরও ৩ যাত্রী গুরুতর আহত হয়েছেন।

আজ শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) সকাল পৌনে ৬টার দিকে উপজেলার উথুরা ইউনিয়নের হাতিবেড় এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

ভালুকা মডেল থানার উপপরিদর্শক কাজল হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আরও পড়ুন:

google-news-channel-newsasia24

Follow