শিরোনাম

আইন-আদালত

যশোরের ইমামের জামিন স্থগিত

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার যাদবপুর সীমান্ত থেকে ৩২ পিস সোনার বার জব্দ করা হয়। তার সাথে গ্রেফতার করা হয় ইমাম হুসাইনকে (৩০)।

বুধবার (১৩ সেপ্টেম্বর) রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের শুনানি নিয়ে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম জামিন স্থগিত করেছেন।

আবেদনের পক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন জানান, হাইকোর্টের দেওয়া জামিন আট সপ্তাহের জন্য স্থগিত করা হয়েছে।

এর আগে, ইমাম হুসাইনকে জামিন দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। পরে এ জামিন স্থগিত চেয়ে মঙ্গলবার (১২ সেপ্টেম্বর) আপিল বিভাগে আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ।

উল্লেখ্য, ২০২২ সালের অক্টোবরের ২২ তারিকে ঝিনাইদহের মহেশপুরের যাদবপুর সীমান্ত এলাকার বড়বাড়ি গ্রামের বি.কে নিম্ন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের সামনে থেকে তাকে আটক করা হয়। তিনি যশোরের চৌগাছা এলাকার আব্দুল খালেকের ছেলে।

তার বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করেন নায়েব সুবেদার মো. মাহবুব হোসেন।

আরও পড়ুন: সাংবাদিককে ২০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন মিয়ানমার

মামলায় বলা হয়, ২২ অক্টোবর টহলের সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তারা জানতে পারেন যে, যশোরের চৌগাছা এলাকা থেকে মোটরসাইকেলযোগে সোনার বার ভারতে পাচার করা হবে।

এমন সংবাদের ভিত্তিতে সীমান্ত এলাকার বড়বাড়ি গ্রামে অবস্থান নেয় বিজিবি। পরে সন্দেহ হলে বিদ্যালয়ের সামনে ইমাম হোসেনকে তল্লাশি করে ৩২ পিস সোনার বার পাওয়া যায়। তিন কেজি ৭১৯ গ্রাম ওজনের জব্দ করা সোনার বারের আনুমানিক মূল্য ২ কোটি ৬৩ লাখ ৯৪ হাজার ৫৮৫ টাকা।

সাক্ষী মুলতবি করার আবদন খালেদা জিয়ার

জান্নাত সম্পর্কে কুরআনের বর্ণনা

গাজীপুর সিটি করপোরেশনের গাড়িতে অস্ত্র ও মাদক

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক:  গাজীপুর সিটি করপোরেশনের গাড়িতে অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার করা হয়েছে। আজ শনিবার (২ সেপ্টেম্বর) সকালে কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কারাগারে এ ঘটনাটি ঘটে।

জানা গেছে, আজ সকালে কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কারগারে ময়লা নিতে আসে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের গাড়ি। এসময় কর্তব্যরত কারারক্ষীরা গাড়ি তল্লাশি করে। সেসময় গাড়ির ডেক্স কভারের নিচ থেকে ২২ ইঞ্চি লম্বা দুইটি লোহার দা, ১০ ইঞ্চি লম্বা চাকু, একটি মোবাইল, একটি ইয়ারফোন এবং কালো টেপে পেঁচানো দুইটি গাজার বল জব্দ করা হয়। পরে ওই দুইজনকে আটক করে কোনাবাড়ি থানায় হস্তান্তর করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- গাজীপুর মহানগরীর ছোট দেওড়া এলাকার নুরুল ইসলামের ছেলে আবু নাঈম (২৮) ও মহানগরীর শান্তি পল্লী গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে মো. আশরাফ (৩০)।

আরও পড়ুন: চাঁদপুরে মাকে হত্যার দায়ে ছেলের যাবজ্জীবন

কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার সুব্রত কুমার বালা বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন কোনাবাড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কে এম আশরাফ উদ্দিন বলেন, কারা কর্তৃপক্ষ দুইজনকে আমাদের নিকট হস্তান্তর করে। আইনি প্রক্রিয়া শেষে আসামিদের আদালতের মাধ্যমে কারগারে পাঠানো হয়েছে।

৯২ কোটি টাকা আত্মসাতের মামলায় পাট ব্যবসায়ী বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি

নিউজ এশিয়া24 ডেস্ক: ৯২ কোটি টাকা আত্মসাতের মামলায় এক পাট ব্যবসায়ীর জামিন বাতিল ও গ্রেপ্তারি পরওয়ানা জারি করেছেন খুলনার বিভাগীয় স্পেশাল জজ আদালত। তিনি মেসার্স ইস্টার্ন ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী সনজিৎ কুমার দাস। তিনি খুলনার সোনালী ব্যাংকের দৌলতপুর শাখা থেকে ৯২ কোটি ৬৩ লাখ ৩১ হাজার টাকা ঋণ নেন।

আজ মঙ্গলবার (২৯ আগস্ট) আদালতের বিচারক আশরাফুল ইসলাম এ আদেশ দেন।

১৯৯৬-৯৭ সাল থেকে পরবর্তী কয়েক বছরে পাট কেনার জন্য ওই টাকা ঋণ নেওয়া হয়। যা সুদে-আসলে বর্তমানে শত কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। ২০১৭ সালে ২৬ সেপ্টেম্বর দুদক খুলনার উপসহকারী পরিচালক মোশাররফ হোসেন বাদী হয়ে অর্থ আত্মসাতের ঘটনায় সনজিৎ কুমার দাসসহ ব্যাংকের পাঁচ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দৌলতপুর থানায় মামলা করেন।

২০১৮ সালের ৮ আগস্ট দুদকের একই কর্মকর্তা আদালতে চার্জশিট দেন।

জানা গেছে, অর্থ আত্মসাতের মামলার সনজিৎ কুমার দাস দীর্ঘদিন উচ্চ আদালতের জামিনে ছিলেন। সুপ্রিম কোর্টের আপিলেট ডিভিশন তাকে নিম্ন আদালতে পাসপোর্ট জমা দিতে নির্দেশ দেন।

কিন্তু সনজিৎ কুমার দাস তার পাসপোর্ট জমা না দিয়ে র‌্যাব জব্দ করেছে বলে আদালতকে জানান। পরবর্তীতে তার পাসপোর্ট র‌্যাব জব্দ করেনি বলে নিশ্চিত হয় দুদক।

আরও পড়ুন: চাঁদপুরে মাকে হত্যার দায়ে ছেলের যাবজ্জীবন

একই মামলায় সোনালী ব্যাংক দৌলতপুর শাখার গোডাউন কিপার মতিয়ার রহমান, সাবেক এজিএম নজরুল ইসলাম, সহকারী মহাব্যবস্থাপক মানিক চন্দ্র মণ্ডল, সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার রুহুল আমিন, অফিসার অজিত কুমার সরকারকে আসামি করা হয়।

চাঁদপুরে মাকে হত্যার দায়ে ছেলের যাবজ্জীবন

নিউজ এশিয়া ডেস্ক: মাকে হত্যার দিয়ে ছেলের যাবজ্জীবন ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন আদালত। ঘটনাটি ঘটেছে চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে।

জানা গেছে, ছালেহা খাতুন (৮০) নামে এক নারীকে হত্যা করে তার ছেলে আবুল কালাম বাহার (৫০)।

আজ মঙ্গলবার (২৯ আগস্ট) দুপুরে চাঁদপুরের জ্যেষ্ঠ জেলা ও দায়রা জজ মো. মহসিনুল হক এ রায় দেন।

হত্যার শিকার ছালেহা খাতুন জেলার ফরিদগঞ্জ উপজেলার গোবিন্দপুর উত্তর ইউনিয়নের পূর্ব ধানুয়া গ্রামের মিজিবাড়ীর মৃত আব্দুল খালেক মিজির স্ত্রী এবং কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আবুল কালাম বাহার তার ছেলে।

মামলার বিবরণ অনুযায়ী, আসামি বাহার এক সময় প্রবাসে ছিলেন। দেশে ফিরে এলোমেলো কথাবার্তা বলার কারনে তার স্ত্রী চলে যান। এরপরে বিভিন্ন সময়ে বাহার তার মাকে মারধর করতেন। ঘটনার দিন ২০১৮ সালের ২৩ জুলাই রাত সাড়ে ৩টার দিকে বাহার তার মায়ের ঘরে ঢুকে।মারধর করেন।

বাহার তার মাকে ধাক্কা দিলে ঘরের দরজার আংটা মায়ের চোখে ঢুকে যায় এবং তিনি অজ্ঞান হয়ে পড়ে যান। ঘরের অন্য সদস্যরা ছালেহা খাতুনকে উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। হাসপাতালের চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে ফরিদগঞ্জ ও চাঁদপুর সদর মডেল থানা পুলিশ মরদেহের ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেন।

এ ঘটনায় ছালেহা খাতুনের মেয়ের জামাতা মো. রুহুল আমিন মিজি ঘটনার পরদিন ২৪ জুলাই ফরিদগঞ্জ থানায় আবুল কালাম বাহারকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেন।

আরও পড়ুন:

বিএনপিপন্থি আইনজীবীদের আরও ধৈর্যধারণ করা উচিত: আইনমন্ত্রী

মামলাটি তদন্ত করার জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয় ফরিদগঞ্জ থানার তৎকালীন উপ-পরিদর্শক (এসআই) কাজী মো. জাকারিয়াকে। তিনি মামলাটি তদন্ত শেষে ওই বছর ১৩ ডিসেম্বর আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।

সরকার পক্ষের আইনজীবী পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) রনজিত রায় চৌধুরী জানান, মামলায় ১২ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করে ও মামলার নথিপত্র পর্যালোচনা শেষে আসামির অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় এ রায় দেন। রায়ের সময় আসামি আবুল কালাম বাহার উপস্থিত ছিলেন।

বিএনপিপন্থি আইনজীবীদের আরও ধৈর্যধারণ করা উচিত: আইনমন্ত্রী

নিউজ এমিয়া ২৪ ডেস্ক: বিএনপিপন্থি আইনজীবীদের আরও ধৈর্যধারণ করা উচিত। রাজনীতির কারণে আদালতকে কলুষিত করাটা ঠিক হবে না বলে মন্তব্য করেছেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী আনিসুল হক।

আজ মঙ্গলবার (২৯ আগস্ট) বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সাম্প্রতিক দেওয়া সব বক্তব্য অনলাইন থেকে সরানোর আদেশকে কেন্দ্র করে বিএনপিপন্থি আইনজীবীদের হট্টগোল করার বিষয়ে আইনমন্ত্রী এ কথা বলেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, আমি সব পক্ষের কাছে আবেদন করি যে, রাজনীতির কারণে আদালতকে কলুষিত করাটা ঠিক হবে না। আদালতের মর্যাদা যেন কেউ হানি না করেন। বাংলাদেশ যতদিন থাকবে আদালত থাকবে। আইনজীবীরা সবাই অফিসার অব দ্য কোর্ট।

আরও পড়ুন: আবারও দাম বাড়বে পেঁয়াজের

তিনি বলেন, দেশের বিচার বিভাগ স্বাধীন, কোনো অন্যায় বা অপরাধ সাধারণ মানুষ করলে তার বিচার হবে। কিন্তু বিজ্ঞ মানুষরা করলে তার বিচার হবে না কেন এই যে সংস্কৃতি সৃষ্টি করা যায় না। আমরা দেখেছি শিশু রাসেলসহ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করা হয়েছে, হত্যা করা হয়েছে ১৮ জনকে সেই ১৮ জনের হত্যার পর আমি দেখেছি ইমডেমনিটি অধ্যাদেশ কেউ কিন্তু বাতিল করেন নাই।

আরও পড়ুন: বাংলাদেশ চাইবে কিছু পাবে না, এমন নয়: প্রধানমন্ত্রী

সাক্ষী মুলতবি করার আবদন খালেদা জিয়ার

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: সাক্ষী মুলতবি করার আবদন করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পক্ষে আইনজীবী ব্যারিস্টার কায়সার কামাল। নাইকো দুর্নীতি মামলায় নথি দেখে আদালতে সাক্ষ্য দিচ্ছেন দুদক কর্মকর্তা— এমন অভিযোগ এনে হাইকোর্টে আবেদন করেছেন তিনি।

আজ রবিবার (২৭ আগষ্ট) বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলামের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চে এর শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে।

গত ২২ আগস্ট নাইকো দুর্নীতি মামলার অভিযোগ গঠনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে খালেদা জিয়ার করা আবেদনের পরবর্তী শুনানির জন্য আজকের দিন নির্ধারণ করেন হাইকোর্ট।

আরও পড়ুন:

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে সাজা ঘোষণাকারী বিচারককে ওএসডি

প্রসঙ্গত, ২০০৭ সালের ৯ ডিসেম্বর খালেদা জিয়াসহ পাঁচ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক। রাজধানীর তেজগাঁও থানায় মামলাটি করেন দুদকের সহকারী পরিচালক মুহাম্মদ মাহবুবুল আলম বাদী হয়ে ।

গৃহবধূকে গণধর্ষণ: মা ছেলেসহ গ্রেপ্তার-৩

নিউজ এশিয়া২৪:   এক গৃহবধূকে (২২) গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় পুলিশ মা-ছেলেসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে । ঘটনাটি ঘটেছে দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে।

আজ শনিবার (২৬ আগস্ট) ওই গৃহবধূর বাবা বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে তাদের মাসহ দুই যুবক ও অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

এ ঘটনায় বেলওয়া গ্রামের ইউসুফ আলীর ছেলে মামুনুর রশিদ পলিন (২৮), তার মা শিরিন আক্তার (৫৫) এবং উত্তর দেবীপুর গ্রামের আব্দুল আওয়ালের ছেলে মিজানুর রহমান মিজান (৩০) কে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তবে এ মামলার অপর আসামি মিজানের মা লিপি আক্তার পলাতক রয়েছেন।

মামলা ও পরিবারসূত্রে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার (১৭ আগস্ট) ওই গৃহবধূর বাবার বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায় প্রতিবেশী শিরিন আক্তার। পরবর্তিতে তাকে মামুনুর রশিদ ও তার সহযোগীদের হা তুলে দেয়। এর পরে মামুনুর রশিদসহ তার সহযোগীরা অপহরন দেখিয়ে ঐ পারিবারের কাছ থেকে মুক্তিপন হিসেবে ১ লাখ টাকা দাবি করেন। পরে তাদেরকে ৪০ হাজার টাকা তুলে দেয় তার পরিবার।

আরও পড়ুন: এবার সম্পর্ক ভাঙলো মালাইকার!

পরে রবিবার ২০ আগস্ট রাত ১১টার দিকে অভিযুক্তরা লিপি আক্তারের বাড়ি থেকে ওই গৃহবধূকে পরিবারের হাতে তুলে দেন । পরে ওই গৃহবধূকে অসুস্থ অবস্থায় তাকে ঘোড়াঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

ওই গৃহবধূর মামা জানান, ভাগনির শরীরে মারধরের দাগ দেখে জিজ্ঞেস করলে সে দুই/তিনটা চড়-থাপ্পড় দেওয়ার কথা বলে। কিন্তু পরে সে পুরো ঘটনা খুলে বলে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন।

ঘোড়াঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, গ্রেপ্তারকৃত তিনজনকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।ভিকটিমকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তিনি আরও জানান এ ঘটনায় পলাতক অপর এক আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে ।

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে সাজা ঘোষণাকারী বিচারককে ওএসডি

নিউজ এশিয়া২৪ ডেস্ক: পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে সাজা ঘোষণাকারী বিচারককে ওএসডি দিয়েছে ইসলামাবাদ হাইকোর্ট (আইএইচসি)।। তিনি দেশটির অতিরিক্ত জেলা ও সেশন বিচারক হুমায়ুন দিলাওয়ার।। তিনি ইমরান খানকে তিন বছর কারাবাসের সাজা ঘোষনা করেছিলেন। তাকে ‘নতুন একটি পদে’ নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তবে পদটি কি, সেটি জানা যায়নি।

শনিবার (২৬ আগস্ট) ইসলামাবাদ হাইকোর্টের এ ঘোষণার পর অতিরিক্ত জেলা ও সেশন বিচারক হুমায়ুন দিলাওয়ারকে নতুন পদ দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, জজ হুমায়ুন দিলাওয়ারকে হাইকোর্টের জুডিশিয়াল সার্ভিস সংক্রান্ত নতুন একটি পদে দিতে নিদের্শ দিয়েছেন আইএইচসির মাননীয় শীর্ষ বিচারপতির।

তবে, গত বুধবার (২৩ আগস্ট) বিচারক হুমায়ুন দিলাওয়ার ঘোষিত সাজার রায়ে ‘গুরুতর ত্রুটি’ ছিল বলে পর্যবেক্ষণ দেন দেশটির সুপ্রিম কোর্টের তিন সদস্যের বেঞ্চ। এই বেঞ্চটি গঠিত হয়
পাকিস্তানের প্রধান বিচারপতি ওমর আতা বান্দিয়ালসহ তোন বিচারকের সমন্বয়ে। তার সঙ্গে ছিলেন জামাল খান মান্দোখালিল ও সৈয়দ মাজহার আলী আকবর নকবী। তাদের বেঞ্চ হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে ইমরানের আপিলটি আমলে নেন।

প্রধান বিচারপতি ওমর আতা বান্দিয়াল বলেন, দায়রা আদালত যে রায় দিয়েছে, তা সঠিক নয়। ফলে প্রথমেই রিায়ের ত্রুটি ধরা পরেছে। হাইকোর্ট বিষয়টি নিয়ে রায় দেওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করার কথা বলেন তিনি।

সর্বোচ্চ আদালতের এ সিদ্ধান্তের তিন দিনের মধ্যেই বিচারক হুমায়ুন দিলাওয়ারকে ওএসডি করা হলো।

আরও পড়ুন: আবারও দাম বাড়বে পেঁয়াজের

উল্লেখ্য, ২০২১ সালে তোশাখানা বিতর্ক শুরু হয় ইমরান খানের বিরুদ্ধে । রাষ্ট্রীয় তোশাখানা থেকে বিদেশিদের দেওয়া বিভিন্ন উপহার নামমাত্র মূল্যে কিনে নিয়েছিলেন পিটিআই চেয়ারম্যান ও তার স্ত্রী বুশরা বিবি । কিন্তু পরবর্তীতে উপহারগুলোর দাম বেশি দেখান তারা। এ ই পরিপ্রেক্ষিতে পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশন ইসলামাবাদের অতিরিক্ত জেলা ও সেশন আদালতে মামলা করেন । মামলার রায়ে ইমরান খানকে জরিমানা করা হয় ৩ বছর কারাবাস ও ১ লাখ রুপি।